পাখির 'বাসা ভাড়া' বছরে ৩ লাখ টাকা
সোমবার, ১৫ই ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

পাখির ‘বাসা ভাড়া’ বছরে ৩ লাখ টাকা

রাজশাহীর বাঘা উপজেলার খোর্দ্দবাউসা গ্রামের একটি আমবাগানের ৩৮টি গাছে শামুকখোল পাখি বাসা বেঁধেছে। তবে গাছে আমের মূকুল আসার আগে এসব পাখির বাসা ভেঙে দেন বাগানমালিক। এসব বাসা যেন না ভাঙা হয় এজন্য ওই আমবাগানে বাসা বাঁধা অতিথি পাখি শামুকখোলের জন্য বাৎসরিক তিন লাখ ১৩ হাজার টাকা বরাদ্দ চেয়ে প্রতিবেদন দাখিল করা হয়েছে। রাজশাহী জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে কৃষি মন্ত্রণালয়ে ওই বরাদ্দ চাওয়া হয়।

মন্ত্রণালয় থেকে বরাদ্দ পেলে তা প্রতি বছর আমবাগানের মালিক বা ইজারাদারকে দেয়া হবে। যাতে তারা বাগান থেকে পাখি তাড়িয়ে দেওয়া ও বাসা ভাঙা থেকে বিরত থাকেন বা পাখির অবাধ বিচরণে কোনো বাধা-বিপত্তির সৃষ্টি না করেন। যতদিন ইচ্ছে পাখিগুলো ওই বাগানে বাঁধা বাসায় থাকবে। আর সরকার তাদের ‘বাসাভাড়া’ বাবদ ব্যয় বহন করবে।

আজ মঙ্গলবার সকালে বাঘা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শফিউল্লাহ সুলতান গণমাধ্যমকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, হাইকোর্টের আদেশ এবং জেলা প্রশাসনের নির্দেশনা অনুযায়ী আমরা গ্রামের আমবাগানটি সরেজমিন পরিদর্শন করেছি। সেখানে মোট ৩৮টি গাছে শামুকখোল পাখি বাসা বেঁধেছে। ওই গাছগুলোতে বছরে কী পরিমাণ আম ধরে এবং তা না হলে কেমন ক্ষতি হবে, তা নিরূপণের চেষ্টা করেছি।

কৃষি কর্মকর্তা শফিউল্লাহ আরো বলেন, মালিক পক্ষ, ইজারাদার, স্থানীয় মানুষ, আম ব্যবসায়ীসহ সব পক্ষের হিসেব অনুযায়ী পাখির বাসা সেখানে থাকলে বছরে তিন লাখ ১৩ হাজার টাকা ক্ষতি হতে পারে। সে অনুযায়ী আমরা জেলা প্রশাসকের কাছে প্রতিবেদন দেই। সেটি সোমবার (১১ নভেম্বর) জেলা প্রশাসক যাচাই করে কৃষি মন্ত্রণালয়ে পাঠিয়েছেন। বরাদ্দের অনুমোদন পেলে তা বাগান মালিক ও ইজারাদারদের দেওয়া হবে।

রাজশাহী জেলা প্রশাসক হামিদুল হক বলেন, উচ্চ আদালতের নির্দেশনা ছিল, সে অনুযায়ী স্থানীয় প্রশাসন ও কৃষি কর্মকর্তারা বাগানটিতে সার্ভে করে এ হিসেব বের করেছেন। সেটি প্রতিবেদন আকারে আমরা মন্ত্রণালয়ে পাঠিয়েছি। আশা করি, দ্রুত বরাদ্দ অনুমোদন হবে। যা ওই বাগান মালিককে দিয়ে আমরা পাখিদের নিরাপদ আবাস গড়ে তুলতে সক্ষম হব।

বাঘার খোর্দ্দবাউসা গ্রামের ওই বাগানটি গত চার বছর ধরে শামুকখোল পাখি এসে বাসা বাঁধে। তারা বর্ষা মৌসুমের শেষ দিকে আসে এবং বাসা বেঁধে বাচ্চা ফুটিয়ে শীত শুরু হলে ও তাদের বাচ্চা উড়তে শিখলে চলে যায়। এবারও সেখানে কয়েক লাখ পাখি বাচ্চা ফুটিয়েছে। বাচ্চা এখনও উড়তে শেখেনি।

এদিকে, পাখি বাসা বাঁধায় গত দুই বছর পাখির জন্য বাগান পরিচর্যা ব্যাহত হচ্ছে। ফলে আমের ফলন কম হয়েছে বলে অভিযোগ করেন বাগান ইজারা নেওয়া আম ব্যবসায়ী আতাউর রহমান। তিনি গত ৩০ অক্টোবর একটি গাছের কিছু বাসা ভেঙে দেন এবং সব বাসা ভেঙে গাছ খালি করতে চান।

অর্থসূচক/কেএসআর

এই বিভাগের আরো সংবাদ