রাজশাহীতে বিক্ষিপ্ত সংঘর্ষ মধ্য দিয়ে জামায়াত-জাপার হরতাল চলছে

rajshahi

রাজশাহী ম্যাপরাজশাহী মহানগরীতে রোববার বিভিন্ন পয়েন্টে বিক্ষোভ ও সড়ক অবরোধকে কেন্দ্র করে শিবির-পুলিশের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ও দফায় দফায় সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে  অন্তত ২৫ শিবির নেতাকর্মী আহত হয়েছে। অপরদিকে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এইচএম এরশাদের মুক্তির দাবিতে হরতালের সমর্থনে বেলা ১২টার দিকে মহানগরীর সাহেব বাজার এলাকায় জাপা নেতাকর্মীরা মিছিল বের করলে পুলিশ গুলি ও টিয়ার শেল নিক্ষেপ করে। এসময় একজন গুলিবিদ্ধসহ ১২ নেতাকর্মী আহত হয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শী ও সংশ্লিষ্টরা জানায়, হরতালের সমর্থনে সোয়া ৭টার দিকে নগরীর বিনোদপুর, অক্ট্রয় মোড়, কাজলা গেট ও মিতা স্টুডিও-এর সামনে থেকে একযোগে মিছিল বের করে শিবির কর্মীরা। এসময় রাস্তায় গাছের গুড়ি  ও টায়ার জ্বালিয়ে সড়ক অবরোধের চেষ্টা করে। এসময়  পুলিশ তাদের ছত্রভঙ্গ করতে টিয়ারশেল, শটগানের গুলি, রাবার বুলেট ছুঁড়ে। এসময় ২ জন গুলিবিদ্ধসহ ১৫ নেতাকর্মী আহত হয়েছে শিবিরের একাধিক নেতাকর্মী জানান।

প্রায় একই সময়ে মহানগরীর দেবীসিংপাড়া এলাকায় মিছিল বের করে শিবির কর্মীরা। পরে সড়কে পেট্রোল জ্বালিয়ে অবরোধ করলে পুলিশ তাদের ছত্রভঙ্গ করতে টিয়ার শেল, শটগানের গুলি, রাবার বুলেট ও সাউন্ড গ্রেনেড নিক্ষেপ করে। এসময় আধাঘন্টাব্যাপী দফায় দফায় সংঘর্ষ চলে।

পরে সকাল ৯টার দিকে নগরীর লক্ষ্মীপুর এলাকার জিপিওর সামনের রাস্তায় টায়ার ও পেট্রোল জ্বালিয়ে অবরোধের চেষ্টা করলে পুলিশের সাথে সংঘর্ষ বাধে। পুলিশ তাদের ছত্রভঙ্গ করতে শটগানের গুলি, টিয়ার শেল, রাবার বুলেট ও সাউন্ড গ্রেনেড নিক্ষেপ করে। এসময় ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। শিবির কর্মীরাও পুলিশ ও সাঁজোয়া যান লক্ষ্য করে বেশ কয়েকটি ককটের বিস্ফোরণ ঘটনায়। এছাড়া বেলা সাড়ে ১১টার দিকে নগরীর সোনাদিঘী মোড়ে সড়কে টায়ার জ্বালিয়ে অবরোধের চেষ্টা করলে পুলিশের সাথে সংঘর্ষ বাধে।

মহানগর শিবিরের প্রচার সম্পাদক আসাদুজ্জামান জানান, জামায়াত নেতা আব্দুল কাদের মোল্লার ফাঁসির রায় কার্যকরের প্রতিবাদে সারা দেশে ডাকা সকাল-সন্ধ্যা হরতালের সমর্থনে নগরীর বিভিন্ন পয়েন্টে মিছিল ও সড়ক অবরোধ করে শিবির নেতাকর্মীরা। এসময় পুলিশ মিছিল লক্ষ করে গুলি ও টিয়ার শেল ছুঁড়লে অন্তত ১০ জন নেতাকর্মী আহত হয়েছে। আহতদের নগরীর বিভিন্ন চিকিৎসাকেন্দ্রে ভর্তি করা হয়েছে।

রাজশাহী মহানগর পুলিশের সহকারী কমিশনার প্রলয় চিসিম বলেন, সকালের দিকে শিবির কর্মীরা নগরীর বিভিন্ন স্থান থেকে মিছিল বের করে। এসময় তারা রাস্তায় টায়ার জ্বালায় ও ককটেল বিস্ফোরণ করে। তবে পুলিশের বাধায় তারা রাস্তায় বেশি সময় থাকতে পারেনি।

অপরদিকে, এরশাদের মুক্তির দাবিতে ডাকা হরতাল সমর্থনে বেলা ১২টার দিকে নগরীর গণকপাড়াস্থ দলীয় কার্যালয় থেকে একটি যৌথ মিছিল বের করে জেলা ও মহানগর জাতীয় পার্টি। মিছিলটি সাহেব বাজার জিরো পয়েন্টের দিকে এগিয়ে যেতেই পুলিশ সদস্যরা মিছিলকারীদের লক্ষ্য করে গুলি, রাবার বুলেট ও টিয়ারশেল ছুঁড়ে। এতে জেলা সাংগাঠনিক সম্পাদক শামসুদ্দিন রেন্টু গুলিবিদ্ধসহ ১০/১২ নেতাকর্মী আহত হয়েছে বলে দলটির পক্ষ থেকে দাবি করা হয়।

এ ব্যাপারে জেলা জাতীয় পার্টির সাধারণ সম্পাদক শাহবুদ্দিন বাচ্চু বলেন, আমাদের শান্তিপূর্ণ মিছিলে পুলিশ গুলি চালিয়ে একজনকে গুলিবিদ্ধ করেছে। তিনি এর তীব্র নিন্দা এবং একই সাথে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে বিষয়টি তুলে ধরা হবে বলে জানান।

মহানগর পুলিশ (আরএমপি) কমিশনরার ব্যারিস্টার মাহবুবুর রহমান জানান, নগরবাসীর নিরাপত্তায় পর্যাপ্ত আইন-শৃংখলা বাহিনী মোতায়েন রয়েছে। হরতালের নামে যে কোন ধরনের নাশকতার চেষ্টা কঠোর হাতে দমন করা হবে।