মহানায়িকা সুচিত্রা সেনের মৃত্যুবার্ষিকী আজ
সোমবার, ১৭ই ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ইং
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

মহানায়িকা সুচিত্রা সেনের মৃত্যুবার্ষিকী আজ

মহানায়িকা সুচিত্রা সেনের ৫ম মৃত্যুবার্ষিকী আজ (১৭ জানুয়ারি)। ২০১৪ সালের এই দিনে কলকাতার একটি বেসরকারি হাসপাতালে মৃত্যু হয় পাবনায় জন্ম নেওয়া এই কিংবদন্তির।

দিনটি উপলক্ষে সংস্কৃতিবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সহযোগিতায় পাবনা জেলা প্রশাসন ও সুচিত্রা সেন স্মৃতি সংরক্ষণ পরিষদ নানা অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে।

সুচিত্রা সেনের জন্ম ১৯৩১ সালের ৬ এপ্রিল পাবনায়। শৈশব কেটেছে সেখানেই। পাবনা সরকারি বালিকা বিদ্যালয়ে নবম শ্রেণি পর্যন্ত পড়াশোনা করেন সুচিত্রা সেন। বাবা করুণাময় দাশগুপ্ত ছিলেন পাবনা মিউনিসিপ্যালিটির স্যানিটারি ইনস্পেক্টর। পরে কর্মযোগ্যতায় পদোন্নতি পেয়েছিলেন হেড ক্লার্ক হিসেবে। ১৯৪৭ সালে দেশভাগের সময় বাড়িঘর ফেলে সুচিত্রা সেনের বাবা সপরিবারে ভারতে চলে যান। কলকাতার বিশিষ্ট বাঙালি শিল্পপতি আদিনাথ সেনের ছেলে দীবানাথ সেনের সঙ্গে বিয়ে হয় সুচিত্রার। তাদের ঘরে একমাত্র সন্তান মুনমুন সেন।

১৯৫২ সালে তিনি প্রথম চলচ্চিত্রে পা রাখেন। প্রথম ছবি করেন শেষ কোথায়। কিন্তু সেই ছবিটি আর মুক্তি পায়নি। ১৯৫৩ সালে মহানায়ক উত্তম কুমারের সঙ্গে সাড়ে চুয়াত্তর ছবি করে সাড়া ফেলে দেন চলচ্চিত্র অঙ্গনে।

সুচিত্রা সেন বাংলা ও হিন্দি ছবিতে অভিনয় করেন। তার অভিনীত প্রথম হিন্দি ছবি হলো দেবদাস (১৯৫৫)। সুচিত্রা সেন ১৯৭৮ সালে প্রণয় পাশা ছবি করার পর লোকচক্ষুর অন্তরালে চলে যান। এর পর আর জনসমক্ষে আসেননি। মাঝে একবার ভোটার পরিচয়পত্রে নাম অন্তর্ভুক্ত করার জন্য ছবি তুলতে ভোটকেন্দ্রে আসেন।

বলিউড-টালিউডের বহু পরিচালক সুচিত্রা সেনকে নিয়ে ছবি করতে চাইলেও তিনি তাতে সম্মত হননি। এমনকি দেশ–বিদেশের কোনো পরিচালক, অভিনেতা বা অভিনেত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎও দেননি তিনি। সেই থেকে তিনি লোকচক্ষুর অন্তরালেই থেকে যান।

অর্থসূচক/কেএসআর

এই বিভাগের আরো সংবাদ