পাকিস্তানে ভোটকেন্দ্রের কাছে বোমা বিস্ফোরণে নিহত ৩১
শনিবার, ৩০শে মে, ২০২০ ইং
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

পাকিস্তানে ভোটকেন্দ্রের কাছে বোমা বিস্ফোরণে নিহত ৩১

পাকিস্তানের বেলুচিস্তান প্রদেশের কোয়েটা শহরের পূর্ব বাইপাস এলাকায় একটি ভোটকেন্দ্রের কাছে পুলিশভ্যানকে লক্ষ্য করে চালানো একটি বোমা বিস্ফোরণে অন্তত ৩১ জন নিহত হয়েছে। বুধবার সকালে দেশটিতে সাধারণ নির্বাচনের ভোটগ্রহণ শুরুর পরপরই এ বোমা বিস্ফোরণ ঘটানো হয়। এতে আরও অন্তত ৩০ ব্যক্তি আহত হয়েছে। হতাহতদের মধ্যে পুলিশ সদস্যের পাশাপাশি সাধারণ মানুষও রয়েছে। ঘটনার পর কেন্দ্রটিতে কয়েক ঘণ্টা ভোটগ্রহণ বন্ধ ছিল। আহত ৮ জনের অবস্থা গুরুতর। পাকিস্তানি সংবাদমাধ্যম ডনের প্রতিবেদন থেকে এসব তথ্য জানা গেছে।

ইসলামি জঙ্গি সংগঠন আইএস এ হামলার দায় স্বীকার করেছে।

কোয়েটা পুলিশের দেওয়া এক বিবৃতিতে বলা হয়, তামির-ই-নাউ মডেল স্কুল কেন্দ্রে ঢুকতে চেয়েছিলেন সেই আত্মঘাতী ব্যক্তি। কিন্তু পুলিশ বাঁধা দিলে সেখানেই তিনি বোমা হামলা চালিয়ে  নিজেকে উড়িয়ে দেন। প্রাথমিক খবরে বলা হয়েছিল, টহল পুলিশের একটি ভ্যানকে লক্ষ্য করে এ হামলা চালানো হয়েছে।

এর আগে নির্বাচনী প্রচার চালাতে গিয়ে বেলুচিস্তান ও খাইবার পাখতুনখাওয়ায় আত্মঘাতী হামলায় তিনজন প্রার্থী নিহত হয়েছিল। নির্বাচনী প্রচারের সময় নিহত হয়েছিল আরো প্রায় দুই শতাধিক নেতা ও কর্মী-সমর্থকের।

ডিআইজি আইজাজ আহমেদ গোরায়া জানান, সাধারণ নির্বাচনে ভোট চলতে থাকা কোয়েটার ‘স্পর্শকাতর’ একটি স্কুলকেন্দ্রের (এনএ-২৬০) কাছে এ বোমা বিস্ফোরণ ঘটানো হয়। এতে এখন পর্যন্ত ৩১ জন নিহত ও ২৪ জন আহত হয়েছে। বর্তমানে ওই স্কুলকেন্দ্রে ভোটগ্রহণ বন্ধ রাখা হয়েছে।

এ ঘটনায় হতাহতদের চিকিৎসায় স্থানীয় সরকারি হাসপাতালগুলোতে জরুরি অবস্থা ঘোষণা করা হয়েছে।

কোয়েটার যে এলাকায় বিস্ফোরণটি হয়েছে, সেটি ন্যাশনাল অ্যাসেম্বলির ২৬০তম আসন। এই এলাকার ভোটকেন্দ্রগুলোকে ঝুঁকিপূর্ণ বলে গণ্য করা হয়। গত ১৫ বছরে এই এলাকায় বহু মানুষকে হত্যা করা হয়েছে। অনেক বোমা বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে।

পাকিস্তানে ২০১৮ সালের সাধারণ নির্বাচনে দেশজুড়ে ভোটগ্রহণ শুরুর পর এটিই প্রথম ভয়াবহ সন্ত্রাসী হামলা। কোয়েটার ওই অঞ্চলে গত ১৫ বছর ধরে প্রায়শই টার্গেট কিলিং ও বোমা বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটছে।

উল্লেখ, বুধবার (২৫ জুলাই) সকাল আটটা থেকে পাকিস্তানের সাধারণ নির্বাচন ও চারটি প্রাদেশিক পরিষদের নির্বাচনের ভোটগ্রহণ চলছে। প্রত্যেক ভোটকেন্দ্রের ভেতরে ও বাইরে নিরাপত্তা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে রেকর্ড সংখ্যক সেনা মোতায়েন করা হয়েছে।ডনের প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, এবার নির্বাচনকে কেন্দ্র করে সেনাবাহিনীর ৩ লাখ ৭১ হাজারের বেশি সেনা মোতায়েন থাকছে। একই সঙ্গে পুলিশ ও অন্যান্য বাহিনীর আরও সাড়ে ৪ লাখের বেশি সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে।

অর্থসূচক/জেডআর

এই বিভাগের আরো সংবাদ