'মি টু'; আমিও যৌন নিগ্রহের শিকার
বৃহস্পতিবার, ২রা জুলাই, ২০২০ ইং
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

‘মি টু’; আমিও যৌন নিগ্রহের শিকার

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সর্বশেষ ট্রেন্ডিং হ্যাসট্যাগ ‘মি টু’। সারা বিশ্বের নারী পুরুষ যারা জীবনের কোনো না কোনো সময় যৌন নিগ্রহের শিকার হয়েছেন তারা এই হ্যাসট্যাগে নিজেদের সংহতি জানাচ্ছেন। ধর্ষণ সংস্কৃতিকে ঠেকানোর জন্য এই হ্যাসট্যাগকে হাতিয়ার হিসেবে দেখছেন তারা।

যৌন নিগ্রহের বেদনাদায়ক অনুভূতি যা কাউকে এতদিন বলা হয়নি, তা ফেসবুক, টুইটার ব্যবহারকারী নারী পুরুষরা তুলে ধরছেন। গতকাল সোমবার একটি টুইটার বার্তায় হলিউড অভিনেত্রী আলিশা মিলানো যৌন নিগ্রহের শিকার সকলকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ‘মি টু’ হ্যাসট্যাগ দিয়ে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান। তারপর থেকেই ফেসবুক, টুইটার ভাসছে এ হ্যাসট্যাগে।

ফেসবুকের তথ্যানুযায়ী বিশ্বের প্রায় ৪ লাখ মানুষ এ হ্যাসট্যাগ ব্যবহার করেছে। গত ২৪ ঘণ্টায় আরো ৫ লাখ টুইট ও ১২ লাখ ফেসবুক পোস্ট, কমেন্ট, প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে। সাথে থাকছে হ্যাসট্যাগ ‘মি টু’। কেউ শুধু হ্যাসট্যাগ পোস্ট করছে। কেউ নিজের বা চোখে দেখা যৌন নিগ্রহের ঘটনা তুলে ধরছে।

মূলত হলিউডের প্রযোজক হারভে ওয়েন্সটেইনের বিরুদ্ধে যৌন নিগ্রহ ও ধর্ষণের অভিযোগের জেরেই এ হ্যাসট্যাগ পোস্ট। ডজন খানেক জনপ্রিয় হলিউড অভিনেত্রী তার বিরুদ্ধে অভিযোগের তীর ছুঁড়েছেন। এদের মধ্যে রয়েছে অ্যাঞ্জেলিনা জোলি, গেনেথ পালত্রো, রোজ ম্যাকগোয়ান। পুরো হলিউড পাড়া এখন এ ঘটনায় সরগরম। এদিকে ওয়েন্সটেইন দাবি করছেন, যৌন সম্পর্কগুলো সম্মতি নিয়ে হয়েছিল।

মি টু হ্যাসট্যাগ পোস্টকারী দেশগুলোর মধ্যে প্রতিবেশি দেশ ভারতসহ রয়েছে পাকিস্তান, যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য। যুক্তরাজ্য প্রবাসী বাঙালি সঙ্গীতশিল্পী সোহিনী আলম লিখেছেন, ‘যতজন নারীর সাথে আমার সাথে এ পর্যন্ত দেখা তারাও শিকার। অনেক গল্প এবং এটা বড় কোনো বিষয় নয়। সচরাচর জীবনে হাঁটার মতো সহজ বিষয় এটা। যদি খারাপ কিছু না হয়, তবে, বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই নারীকে দোষারোপ করা হয়।’ সাংবাদিক সিরাজুম মুনিরা নীরা লিখেছেন, আমিও জীবনে বহুবার যৌন হয়রানির শিকার হয়েছি। কখনো জনতা আমাকে মারতে চেয়েছে, কারণ আমি এই হয়রানির প্রতিবাদ করেছি।’

বিবিসির এক মুখপাত্র রজনী বিদ্যানাথন তার অভিজ্ঞতা লিখেছেন, ‘মানুষ যত বেশি এ বিষয় নিয়ে কথা বলে, তত কম তা গ্রহণযোগ্য হয়।’ মি টু হ্যাসট্যাগের পাশাপাশি ‘ওমেন হু রোয়ার’ আরেকটি টার্ম যা যৌন নিগ্রহের শিকারদের কথা তুলে ধরতে অনুপ্রাণিত করছে।

শুধু নারীরাই নন, পুরুষরাও যৌন নিগ্রহের বিরুদ্ধে সরব প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে। তাদের মন্তব্য, শুধু নারীরা নন, পুরুষরাও যৌন নিগ্রহের শিকার হয়। অনেকে ছেলে শিশুদের প্রতি খেয়াল রাখতে সচেতনতা তুলে ধরেছে ‘মি টু’ হ্যাসট্যাগে।

অর্থসূচক/এসবিটি/কে এম

এই বিভাগের আরো সংবাদ