পোশাক কারখানায় বেতন-বোনাস বাকি নেই: বিজিএমইএ
শুক্রবার, ৫ই জুন, ২০২০ ইং
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

পোশাক কারখানায় বেতন-বোনাস বাকি নেই: বিজিএমইএ

ঈদ-উল-আযহার আগে শতভাগ পোশাক কারখানায় শ্রমিকদের বেতন-বোনাস দেওয়া হয়েছে বলে দাবি করেছে বাংলাদেশ গার্মেন্টস ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যান্ড এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন (বিজিএমইএ)।

এছাড়া কোন কোন কারখানায় ঈদকে সামনে রেখে শ্রমিকদের আগস্ট মাসের অগ্রিম বেতনও দেওয়া হয়েছে বলে দাবি করা হয়েছে।

আজ বৃহস্পতিবার রাজধানীর বিজিএমইএ ভবনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এমন দাবি করেন বিজিএমইএ সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান। তিনি বলেন, আমরা সব কারখানা মনিটরিং করেছি। আমাদের জানা মতে, শতভাগ কারখানায় ঈদ-উল-আযহার উৎসব ভাতা ও জুলাই মাসের বেতন-ভাতা প্রদান করা হয়েছে।

কিছু কিছু কারখানায় শ্রমিকদের সঙ্গে আলোচনা করে আগস্ট মাসের অগ্রিম বেতন আংশিক ও পূর্ণ প্রদান করা হয়েছে। প্রতিবছরের মতো এবার অভিযোগ আসেনি।

এক প্রশ্নের জবাবে সভাপতি বলেন, আমাদের অধীনে ৩ হাজার ১০০টি কারখানা চালু আছে। আমরা এসব কারখানায় কথা বলেছি। সদস্য নয় এমন কারখানার কথা আমরা বলতে পারবো না। তাদের কোনো বিষয়ে আমরা দায়িত্বও নেব না।

তিনি বলেন, বুধবার পর্যন্ত ৯০ ভাগ কারখানায় ছুটি হয়েছে। আজকের মধ্যেই অবশিষ্ট কারখানাগুলো ছুটি দেয়া হবে।

প্রতি ঈদে বেতন-বোনাস নিয়ে সমস্যা হয় কেন এমন প্রশ্নের জবাবে সিদ্দিকুর রহমান বলেন, আসলে সব মালিকের হাতেই তো নগদ টাকা থাকে না। অনেক সময় তাদের কোনো অর্ডারের টাকা হাতে পেয়ে বেতন দিতে হয়। এবারও দুটি কারখানার মালিককে কারখানার মেশিন বিক্রি করে বেতন পরিশোধ করতে হয়েছে।

চট্টগ্রাম পোর্টের সমস্যা তুলে ধরে তিনি বলেন, চট্টগ্রামসহ সব স্থল ও নৌ-বন্দরে মালামাল আমদানি-রপ্তানির কাজে ২৪ ঘণ্টা চালু থাকার কারণে আমদানি রপ্তানি কার্যক্রমে কিছুটা গতি এসেছে। তবে সামগ্রিকভাবে তা কাঙ্ক্ষিত পর্যায়ে পৌঁছেনি। বহির্নোঙ্গরে জাহাজের অবস্থানকাল এখনো ৪-৯ দিন যা আরও কমিয়ে আনা প্রয়োজন। সেই সঙ্গে চট্টগ্রাম বন্দরের সক্ষমতা বৃদ্ধির জন্য বন্দরে জেটি সংখ্যা বৃদ্ধি করা, ইয়ার্ড সম্প্রসারণ, কন্টেইনার হ্যান্ডলিং এর জন্য পর্যাপ্ত সংখ্যক ইকুইপমেন্ট ও ক্রেন সংগ্রহ করার দাবি জানান তিনি।

অর্থসূচক/রহমত/এস

এই বিভাগের আরো সংবাদ