প্রধান বিচারপতির পর্যবেক্ষণে 'চক্রান্ত' দেখছেন নাসিম
শুক্রবার, ৭ই আগস্ট, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

প্রধান বিচারপতির পর্যবেক্ষণে ‘চক্রান্ত’ দেখছেন নাসিম

ষোড়শ সংশোধনী বাতিলের রায়ে প্রধান বিচারপতির পর্যবেক্ষণে দেশ এবং  প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার  বিরুদ্ধে ‘চক্রান্ত’ দেখছেন আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম।

আজ সোমবার জাতীয় প্রেসক্লাবে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষ্যে সতীর্থ স্বজন আয়োজিত তিনিই বাংলাদেশ শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

Md. Nasim

স্বাস্থ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য মোহাম্মদ নাসিম। ফাইল ছবি।

এতে সভাপতিত্ব করেন প্রবীন সাংবাদিক রাহাত খান। বক্তব্য রাখেন- আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল আলম হানিফ, ইউজিসির চেয়ারম্যান আব্দুল মান্নান প্রমুখ।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ৭ মার্চ বঙ্গবন্ধু স্বাধীনতা ঘোষণা দেওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ঘাতকের একটি বুলেট তার জন্য বরাদ্দ হয়েছিল। তিনি জনগণের আস্থা অর্জন করেছিল ,এটাই ছিল তার অপরাধ। দেশ স্বাধীন করে বাংলাদেশ অর্থনৈতিক মুক্তি দিতে চেয়েছিলেন, এটাই অপরাধ। শেখ হাসিনা ৭১’র ঘাতক, ৭৫’র ঘাতকদের বিচার করলেন-এটাই তার অপরাধ। দেশকে অর্থনৈতিকভাবে বিশ্বের মধ্যে ঈর্ষণীয় স্থানে এনেছেন-এটাই অপরাধ। এসব অপরাধে আজ নানামুখী চক্রান্ত শুরু হয়েছে। প্রধান বিচারপতি রায়ের পর্যবেক্ষণে-বঙ্গবন্ধু, স্বাধীনতা নিয়ে ইতিহাস বিকৃত করে মিমাংসিত বিষয়টি আনা হয়েছে। এটা কার স্বার্থ বির্তকিত করা হচ্ছে। জাতি শঙ্কিত, বিভ্রান্ত। এটা দেশ ও শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে চক্রান্ত।

তিনি বলেন, রায় ছিল বিচারকদের অপসারণ ক্ষমতা সংসদের হাত থেকে সুপ্রিম জুডিশিয়ালের হাতে ন্যস্ত করা। বিচারকার্য চলাকালে তো কোনো আইনজীবী বিষয়টি আনেননি। এটা বিচারের বিষয় নয়-তাহলে কার স্বার্থে এসব বিষয় আনা হলো।

বিচারকদের সমালোচনা করে মোহাম্মদ নাসিম বলেন, এখন সরকারকে কোনো কাজ করতে হয় না। একজন আইনজীবী দাঁড়ালেই হাইকোর্ট নির্দেশনা দিয়ে দেন। কিন্তু যখন বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর কোথায় ছিলেন বিচারকরা। ২১ বছর বিচার পাইনি- কোন বিচারক তো নির্দেশ দিলেন না। যে কোনো হত্যাকাণ্ডের বিচার চাওয়ার অধিকার তো সংবিধানই দিয়েছে। ৯১ সালে সংসদে দাঁড়িয়ে বিচার চাইলাম, পাইনি। কোনো নির্দেশনাও পাইনি। আজ এত নির্দেশা পাই। এতো শেখ হাসিনা সরকারই করেছেন- বিচার বিভাগ, নির্বাহী বিভাগ আলাদা করেছেন।

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল আলম হানিফ বলেন, ৭১ সালে জিয়া পাকিস্তানের এজেন্ট ছিলেন। সত্যিকারের মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন না। তাই অবৈধভাবে ক্ষমতা দখল করে স্বাধীনতা বিরোধী পাকিস্তান প্রেমিদের ক্ষমতায় বসিয়েছেন। রাজাকার খনিদের মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রী এবং রাষ্ট্রদূত করেছেন।

অর্থসূচক/আজম/এসএম

এই বিভাগের আরো সংবাদ