ধর্ষণের শিকার ১০ বছরের শিশু জানে না- সে অন্তঃসত্ত্বা!

ছবিটি প্রতীকী

ভারতে ধর্ষণের পর ১০ বছরের শিশুর অন্তঃসত্ত্বা নিয়ে এখন মিডিয়ায় তোলপাড় চলছে।  ইতোমধ্যে ওই শিশু জানিয়ে দিয়েছে সে গর্ভপাত করবে না। কারণ সে এখনও জানে না যে সে অন্তঃসত্ত্বা।

গণমাধ্যমের খবর, এই শিশু তার এক আত্মীয়ের হাতে ধর্ষণের শিকার হয়েছে। ওই আত্মীয় এখন বিচারের অপেক্ষায় জেলে রয়েছে।

গত ২৮ জুলাই ভারতের সর্বোচ্চ আদালত ওই শিশুর গর্ভপাতের অনুমতি না দিয়ে রায় দেয়। রায়ে বলা হয়, সে ৩২ সপ্তাহের অন্তঃসত্ত্বা। এই সময়টা এখন আর গর্ভপাতের পর্যায়ে নেই।

ছবিটি প্রতীকী

ভারতের আইন অনুযায়ী, ২০ সপ্তাহের পর চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া কোন গর্ভবতী মা বিপদে রয়েছে কিনা নিশ্চিত না হয়ে গর্ভপাতের অনুমতি ভারতীয় আইনে নিষিদ্ধ।

এই শিশু নিয়ে চিকিৎসকদের একটি প্যানেল জানিয়েছে, বর্তমানে ভ্রণের অবস্থা ভালো আছে। এক্ষেত্রে গর্ভপাত ঘটানো হলে মেয়েটির জীবননাশের হুমকি রয়েছে।

এই মামলার সবচেয়ে আশ্চর্যমূলক তথ্য হচ্ছে- ওই মেয়েটি এখনো জানে না যে, সে অন্তঃসত্ত্বা।

মেয়েটি পেটে ব্যথা অনুভব করলে সম্প্রতি তাকে হাসপাতালে নেওয়ার পরই বিষয়টি মা-বাবার সামনে আসে।

চিকিৎসকরা প্রথমে তাকে বলেছিল, তার পেটে বড় ধরনের পাথর জমে আছে; যা ধীরে ধীরে বড় হচ্ছে।

মেয়েটির পরিবার অত্যন্ত গরিব; চন্ডিগড়ে থাকে। তার বাবা একজন সরকারি চাকরিজীবী; মা গৃহিণী। আদালতে তার গর্ভপাতের বিষয় নাকচ করার পর এই পরিবার এখন চরম হতাশায় পড়েছে।

এই মামলার তদন্তকারী পুলিশ জানিয়েছে, মেয়েটির মায়ের চোখে এখন কান্না ছাড়া কিছু নেই। তারা তাকে জানায়, তারা কখনই বুঝতে পারিনি, তাদের আত্মীয় তার মেয়েটির সঙ্গে এ ধরনের আচরণ করছে।

চিকিৎসকরা এখন চাইছে মেয়েটিকে সিজার করে বাচ্চা প্রসব করাতে। তবে এর জন্য ওই মেয়েটির কাউন্সিলিং দরকার।

এদিকে, মেয়েটির পরিবার বলছে, তারা এই বাচ্চা লালন পালন করতে চায় না। কেউ যদি দত্তক নিতে চায় তবে তাদের দিয়ে দেবে।

বিবিসির তথ্য অনুযায়ী-

ভারতে ১৬ বছরের নিচে প্রতি ১৫৫ মিনিটে একজন শিশু ধর্ষণের শিকার হয়। আর ১০ বছরের নিচে প্রতি ১৩ ঘণ্টায় একজন ধর্ষণের শিকার হয়।

২০১৫ সালের হিসাব অনুযায়ী, দেশটিতে এই এক বছরে ১০ হাজারেরও বেশি শিশু ধর্ষণের শিকার হয়েছে।

১৮ বছর হওয়ার আগে এখানে ২৪ কোটি তরুণী বিয়ের পিড়িতে বসেছে।

এস