ডাক্তার পেঁপে ...
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

ডাক্তার পেঁপে …

পাকা পেঁপে সবারই পছন্দ। শুধু ভেতর থেকেই নয়; পেঁপে চুল এবং ত্বকের যত্নেও বেশ উপকারী। তবে আমরা বেশিরভাগ সময়ই পেঁপের বীজ ফেলে দেই। আমরা অনেকেই জানি না, পাকা পেঁপের মতো তার দানাও অনেক গুণের অধিকারী। অার কাঁচা পেঁপেরও রয়েছে অসারণ পুষ্টিগুণ।

কাঁচা ও পাকা পেঁপের নানাবিধ ওষুধি গুণ:

ফ্যাটি লিভার:

বহু গবেষণায় দেখা গেছে, যারা ফ্যাটি লিভার বা লিভার সিরোসিসে ভুগছেন তাদের জন্য পাকা পেঁপের দানা খুব ভালো ওষুধ। প্রতিদিন এক চামচ করে পেঁপে দানার গুঁড়ো খান। এটি খেলে লিভারকে পরিস্কার থাকবে।  পাশাপাশি খাওয়া-দাওয়া ও লাইফস্টাইলে কিছু পরিবর্তন আনতে হবে।

হজমশক্তি বাড়াতে সাহায্য করে:

হজমশক্তি বাড়াতে পেঁপের তুলনা নেই। পরিপাক নালিকে চনমনে রাখে। ফলে দ্রুত হজম হয়; পাকস্থলির উপর কম চাপ পড়ে।

কিডনি সুস্থ রাখে:

লিভারের মতো কিডনি থেকেও ক্ষতিকারক জিনিস বের করে দেয় পাকা পেঁপের দানা।

রক্তের চাপ কমায়:

বিভিন্ন গবেষণায় দেখা গেছে, পাকা পেঁপের পাশাপাশি পেঁপের দানাও হৃদযন্ত্রের স্বাস্থ্য ভালো রাখে। পেঁপেতে থাকা কারপেইন নামে বিশেষ এক যৌগ উচ্চ রক্তচাপ কমায়। ফলে যারা হাইপ্রেসারে ভুগছেন, বেশি করে পেঁপে খান।

গাঁটের যন্ত্রণা, হাঁপানি, আর্থরাইটিস:

এসব অসুখেও পেঁপে খুব উপকারী। বিশেষত, পেঁপে গাছের ডাল। এর মধ্যে থাকা বিশেষ এক ধরনের রস আছে; যা আর্থরাইটিস, গাঁটের যন্ত্রণার পাশাপাশি হাঁপানিতে ভালো কাজ দেয়।

ক্যান্সার প্রতিরোধ:

পেঁপের মধ্যে ক্যান্সারবিরোধী পুষ্টিগুণ রয়েছে। ফলে ক্যান্সার থেকে দূরে থাকতে নিয়মিত পেঁপে খেতে হবে। গবেষণায় দেখা গেছে, পেঁপেতে ফাইটোনিউট্রিয়েন্ট আইসোথিয়োসায়ানেট (এক ধরনের পুষ্টি উপাদান) রয়েছে; যা স্তন, প্রস্টেট, ফুসফুস ও কোলন ক্যান্সার থেকে বাঁচায়।

লিভার পরিষ্কার করে:

যারা লিভারের সমস্যায় ভুগছেন এবং লিভার ভালো রাখতে চান- তারা নিয়মিত পাকা পেঁপে খাওয়া উচিৎ। কারণ লিভার পরিষ্কার রাখে পেঁপে।

ফাইলেরিয়া রোগের প্রতিষেধক:

ফাইলেরিয়া মশাবাহিত রোগ। ফাইলেরিয়ার বিভিন্ন উপসর্গ নিরাময়ে পেঁপে গাছের বিভিন্ন উপাদান ব্যবহার করা যায়। কয়েকটি পেঁপে পাতা সংগ্রহ করে সেগুলোকে গরম পানিতে ভালো করে ফুটিয়ে নিতে হবে। এরপর পাতাগুলোকে গরম অবস্থায় সেঁকে নিয়ে ওই পানি দিয়ে (নিয়মিত কয়েক দিন) সেঁক দিলে ফাইলেরিয়ার উপসর্গ অনেক কমে যাবে।

অনিয়মিত মাসিক হলে:

পেঁপে খাওয়ার ফলে আপনার অনিয়মিত মাসিক নিয়মিত হয়ে যাবে। সুতরাং যাদের মাসিকের সমস্যা আছে- তারা নিয়মিত পেঁপে খেতে পারেন।

পেঁপের অন্যান্য উপকারী পুষ্টিগুণ:

১। ওষুধ হিসেবে কাঁচা পেঁপের গুণ পাকা পেঁপের চেয়ে বেশি। পেপটিন বা পেঁপের আঠার গুণ অনেক।

২। প্রতিদিন দুপুর এবং রাতে খাওয়ার পর এক টুকরা কাঁচা পেঁপে ভালো করে চিবিয়ে খান। এরপর এক গ্লাস পানি পান করলে সকালে পেট পরিষ্কার হয়।

৩। কাঁচা পেঁপে বা পেঁপে গাছের আঠা পেটের অসুখ, কোষ্ঠকাঠিন্য প্রভৃতি রোগের জন্য বিশেষ উপকারী।

৪। পেঁপের তরকারি নিয়মিত খেলে পেটের পীড়া বা উদরাময়ে উপকার হয়।

৫। অনেকের খাওয়াতে অরুচি দেখা দেয়; খাবার দেখলেই পালিয়ে যান। এমন মানুষের জন্য জন্য পেঁপে খুবই উপকারী।

৬। পেঁপেতে প্রচুর পরিমাণ পেপসিন থাকে। এই পেপসিন হজমে সাহায্য করে। কাঁচা পেঁপেতে প্রচুর পরিমাণে পেপেইন নামক হজমকারী দ্রব্য থাকে। অজীর্ণ, কৃমি সংক্রমণ, আলসার, ত্বকে ঘা, কিডনি ও ক্যান্সার নিরাময়ে কাজ করে। পাকা পেঁপে ফল ও কাঁচা পেপে সবজি হিসেবে খাওয়া যায়। পেঁপে কাঁচা কী পাকা, দুটোতেই পুষ্টি গুণে ভরপুর।

৭। পেঁপে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টি-অক্সিডেন্টসমৃদ্ধ ফল; তাই ত্বকের লাবণ্য ও উজ্জ্বলতা ধরে রাখতে সাহায্য করে। রক্ত সঞ্চালন স্বাভাবিক রাখে। প্রতিদিন পাকা পেপের সঙ্গে মধু ও টকদই মিশিয়ে ত্বকে লাগালে উজ্জ্বলতা বাড়ে।

রূপচর্চায় পেঁপে:

১। পেঁপেতে আছে ভিটামিন এ এবং এক ধরনের প্রোটিন; যা ত্বকের মৃতকোষ দূর করতে সাহায্য করে।

২ । কাঁচা পেপে ব্লেন্ড করে পুরো মুখে নিয়মিত লাগালে ব্রণের সমস্যা কমবে এবং ব্রণের দাগ চলে যাবে।

৩। পায়ের ফাটা দূর করতে পেঁপে বাটা বিশেষ উপকারী। পেঁপের খোসা মুখে, হাতে কিংবা পায়ে লাগিয়ে রাখতে হবে। নিয়মিত ব্যবহারে ত্বক উজ্জ্বল হয়।

৪। মুখে নিয়মিত পেঁপের রস লাগালে বয়সের ছাপ দূর হয়।

৫। পেঁপে বাটা ও মধু একসঙ্গে মিশিয়ে মুখে লাগিয়ে ১৫ মিনিট রাখতে হবে। এতে ত্বকের শুষ্কতা দূর হবে এবং ত্বক কোমল হবে।

৬। চুল শ্যাম্পু করার আগে চুলে পেঁপে বাটা বা পেপের রস লাগালে খুশকি সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যাবে।

অর্থসূচক/টি এম/

এই বিভাগের আরো সংবাদ