'কিশোরগঞ্জ ইকোনমিক জোনে চাকরি পাবে ২০ হাজার মানুষ'
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

‘কিশোরগঞ্জ ইকোনমিক জোনে চাকরি পাবে ২০ হাজার মানুষ’

বেসরকারি খাতে দেশের শীর্ষ স্থানীয় ব্যবসায় প্রতিষ্ঠান নিটল নিলয় গ্রুপ কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়া উপজেলায় কিশোরগঞ্জ ইকোনমিক জোন (কেইজেড) নামে ইকোনমিক জোন প্রতিষ্ঠা করছে। উপজেলায় ভৈরব-কিশোরগঞ্জ মহাসড়ক সংলগ্ন প্রায় ৯১.৬৩ একর জমির উপর এ জোন হবে বেসরকারি খাতে ১৬তম ইকোনমিক জোন।

সোমবার রাজধানীর প্যান প্যাসেফিক সোনারগাঁও হোটেলে বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষ (বেজা) এর পক্ষ থেকে কেইজেডকে প্রাক-যোগ্যতা সনদ প্রদান করা হয়।

বেজার পক্ষ থেকে বলা হয়, এ জোন প্রতিষ্ঠিত হলে প্রায় ১৫ থেকে ২০ হাজারের বেশি নারী-পুরুষের কর্মসংস্থান হবে। এর মধ্যে প্রথম বছর ২ হাজার এবং পরে ৫ বছরে ক্রমান্বয়ে ২০ হাজার কর্মসংস্থান হবে।

সোমবার রাজধানীর প্যান প্যাসেফিক সোনারগাঁও হোটেলে বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষ (বেজা) এর পক্ষ থেকে কেইজেডকে প্রাক-যোগ্যতা সনদ প্রদান করা হয়। ছবি মহুবার রহমান

কিশোরগঞ্জ ইকোনমিক জোন হাওরাঞ্চলের প্রবেশদ্বার ভৈরবের নিকটে অবস্থিত হওয়ায় সহজে বিনিয়োগ আকষর্ণ ও কর্মসংস্থান সৃষ্টিতে ভূমিকা রাখবে বলে আশা করা হচ্ছে।

প্রাক-যোগ্যতা সনদপত্র প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মুখ্য সচিব (এসডিজি) আবুল কালাম আজাদ বলেন, সরকার বিনিয়োগবান্ধব। সেজন্য সরকারি কর্মচারিরা বিনিয়োগবান্ধব। আমরা লাল ফিতার দৈরাত্ম দেখতে নয় সেই ফিতাই ফেলে দিতে চাই, সাদা ফিতা দিয়ে চলতে চাই।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী দেশকে এগিয়ে নেয়ার জন্য গতিশীল নেতৃত্ব দিচ্ছেন। এদেশে ১০০টি ইকোনমিক জোন হবে কেউ কোনদিন চিন্তা করছে কি-না?

“এর আগে বেপজাসহ বেশ কিছু করা হয়েছে। তাতে কয়েকশ একর জায়গার বেশি হবে না। কিন্তু বেজা কারখানা করার জন্য ইতোমধ্যে কয়েক হাজার জমি নিয়েছে। এই যে রাজনৈতিক নেতৃত্ব, উদ্যোগ ও সহায়ক শক্তির কারণে এসব সম্ভব হয়েছে।”

মুখ্য সচিব বলেন,আশার কথা হচ্ছে আমাদের সন্তানরা যারা বড় বড় চাকরি নিয়ে দেশের বাইরে চলে গেছেন তারা ফিরে আসতে পারে।অর্থনৈতিক অঞ্চলে বিনিয়োগের মাধ্যমে তারা বাবা, ভাই বা বন্ধুর সাথে হাত মেলাতে দেশে ফিরিয়ে আসতে পারে।

“ইকোনমিক জোন বড় উৎসাহব্যঞ্জক একটি বিষয়। এটি আমাদের বিশেষ শক্তি দিয়েছে। আমাদের সন্তানরা, দেশের নাগরিকরা তাদের বিদেশি উন্নত অভিজ্ঞতা নিয়ে এখন দেশে ফিরে আসতে পারবে।”

তিনি বলেন, ইকোনমিক জোনে ওয়ান স্টপ সার্ভিস দেওয়া হচ্ছে। এটা মুখের কথা না, বাস্তব। আইন এখনো পাস হয়নি কিন্তু কাজ চলছে।

অর্থনৈতিক অঞ্চলে বিনিয়োগকারীদের আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহারের পরামর্শ দিয়ে তিনি বলেন, জোনে বিনিয়োগের ক্ষেত্রে ব্যাক ডেইটের কোন প্রযুক্তি নয় হাল নাগাদ প্রযুক্তি ব্যবহার করতে হবে।

কিশোরগঞ্জ ইকোনমিক জোন সম্পর্কে তিনি বলেন,এ জোনের মাধ্যমে কিশোরগঞ্জ এলাকার মানুষের মুখে হাসি ফুটবে, আর্থ সামাজিক উন্নয়ন হবে।

অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ বেজার নির্বাহী চেয়ারম্যান পবন চৌধুরীর সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন নিটল নিলয় গ্রুপ ও কেইজেড এর চেয়ারম্যান আব্দুল মাতলুব আহমাদ, বেজার নির্বাহী সদস্য মো. হারুনুর রশিদ প্রমুখ।

অর্থসূচক/রহমত/এস

এই বিভাগের আরো সংবাদ