‘পুঁজিবাজারে টানা ঊর্ধ্বগতি বড় ঝুঁকির কারণ’
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

‘পুঁজিবাজারে টানা ঊর্ধ্বগতি বড় ঝুঁকির কারণ’

ভারতের পুঁজিবাজার ঘোড়ার দৌড়ের গতিতে এগুচ্ছে। কিন্তু বিনিয়োগকারীরা এতে সতর্ক হচ্ছে না। তারা শুধু শেয়ার কিনেই হাওয়ায় গা ভাসিয়ে দিচ্ছে। আর তার সুবাদে বাজার চড়ছে মগডালে।

আজ বৃহস্পতিবারও দেশটির পুঁজিবাজারে সেনসেক্স সূচক নয়া রেকর্ড গড়েছিল। এদিন সূচকটি ৩১ হাজার ২৯০ পয়েন্টে পৌঁছে লেনদেন শেষ করে। তবে লেনদেনের একপর্যায়ে তা ৩১ হাজার ৫০০ এর ঘর অতিক্রম করে। নিফটি সূচকেও এদিন কোনো হতাশার ছাপ পড়েনি।

ছবিটি প্রতীকী

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বাজারে এই ঊর্ধ্বগতির সঙ্গে বিনিয়োগকারীদের সতর্কহীন অবস্থান এখন সবচেয়ে বড় ঝুঁকি।

কোটাক মাহিন্দ্র ওল্ড মিউচুয়াল লাইফ ইন্স্যুরেন্সের প্রধান হেমন্ত কানাওয়ালা বলছেন, বাজার সংশোধন না হলে সেটিই বিনিয়োগের জন্য বড় ঝুঁকি।

তিনি সাক্ষাৎকারে বলেন, বৈশ্বিক ও স্থানীয় বাজারে ইতিবাচক হাওয়া, ভারতীয় ‘ভ্যাট’ (গুডস অ্যান্ড সার্ভিস ট্যাক্সেস- জিএসটি) বাস্তবায়ন এবং বার্ষিক মৌসুমী বৃষ্টিপাত বাজারের সেন্টিমেন্টে আঘাত হানতে পারে। আর তাতে বিনিয়োগকারীরা দ্রুতগতিতে শেয়ার ছেড়ে দিবে।

এক পরিসংখ্যানে দেখা যায়, দেশীয় বিনিয়োগকারীরা চলতি বছরের প্রথম দুই মাসে প্রায় ২০২ বিলিয়ন রুপি বিনিয়োগ করেছে। গত বছরের একই সময় যা ছিল ৯২ বিলিয়ন রুপি। অর্থাৎ দেশটির পুজিবাজারে এ বছর রেকর্ড বিনিয়োগ এসেছে।

ব্লুমবার্গের খবরে বলা হয়, ভারতের বাজারে চলতি বছর সেনসেক্স সূচক ১৮ শতাংশ বেড়েছে; এশিয়ার বাজারে এটিই সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য সফলতা। এই সময়ে দেশীয় ও বিদেশি নতুন বিনিয়োগ এসেছে সাড়ে ১৩ বিলিয়ন ডলার।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, রাজ্যসভা নির্বাচনে গত মার্চে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির দলের নিরঙ্কুশ জয় বাজারে শেয়ার কেনার হার বাড়িয়ে দিয়েছে। বর্তমানে বাজার কোম্পানি আয়, আগামী ১ জুলাই থেকে ভারতের নতুন ‘ভ্যাট’ ব্যবস্থাপনার বাস্তবায়ন এবং সম্ভাব্য মৌসুমী বৃষ্টিপাতের দিকে চেয়ে আছে।

কেনাওয়ালা বলেন, জিএসটি বাস্তবায়ন ও মৌসুমী বৃষ্টিপাত যদি হতাশায় পরিণত হয় তবে বিনিয়োগকারীদের আরও বেশি সতর্ক থাকতে হবে। তিনি বলেন, বাজারে টানা ইতিবাচক খবর  হতাশা বয়ে আনতে পারে।

শাহীন

এই বিভাগের আরো সংবাদ