গাবতলীতে ঘরমুখো মানুষের ভিড় বাড়ছে
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

গাবতলীতে ঘরমুখো মানুষের ভিড় বাড়ছে

ঈদের বাকি হাতে গোনা আর মাত্র কদিন। প্রিয়জনদের সঙ্গে ঈদ করতে তাই ঘরমুখো মানুষের ভিড় বাড়তে শুরু করছে কমলাপুর রেল স্টেশনসহ সদরঘাট ও গাবতলী বাস টার্মিনালে। ছুটি পেয়েই ইতোমধ্যে ব্যস্ত নগরী ছেড়ে নাড়ির টানে বাড়ি ফিরতে শুরু করেছেন অনেকেই।

আজ বৃহস্পতিবার রাজধানীর অন্যতম আন্তঃনগর বাস টার্মিনাল গাবতলীতে গিয়ে দেখা যায়, আপনজনদের সঙ্গে ঈদ করতে যাওয়া এসব মানুষদের ভিড় ক্রমেই বাড়ছে। সময় বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে বাড়ছে এসব ঘরমুখো মানুষের ভিড় বাড়ছে বলে বিভিন্ন কাউন্টার সূত্রে জানা গেছে। এই চাপ বিকেলের দিকে আরও বাড়বে বলে ধারণা করছেন তারা। তবে আজ রাত থেকে পুরোদমে ঈদ যাত্রীদের যাতায়াত শুরু হবে।

গাড়ির অপেক্ষায় ঘরমুখো মানূষের দল। ফাইল ছবি

জানা গেছে, ভোর থেকেই বাসগুলো দেশের বিভিন্ন রুটে চলাচল করতে শুরু করেছে। যাত্রীদের চাপে প্রায় প্রতিটি পরিবহনকেই অতিরিক্ত ট্রিপের ব্যবস্থা করতে হয়েছে।

গাবতলী বাস টার্মিনাল থেকে মূলত উত্তরাঞ্চল ও দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল রুটে চলাচলকারী মানুষের সংখ্যাই বেশি। সকাল থেকে ঘরমুখো মানুষকে ছুটে আসতে দেখা গেছে বাস কাউন্টারগুলোতে।

একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র ইমরান বলেন, অনেক দিন পর রংপুরের গ্রামের বাড়িতে ফিরছি। সকাল থেকে মা কখন উঠেছি বাসে তা জানার জন্য কয়েক দফায় ফোন করেছেন। ঈদ উপলক্ষে ছোট বোনের জন্য এবং বোনের ছেলে-মেয়েদের জন্য জামাকাপড় কিনেছি।

ঈদে ঘরমুখো যাত্রীরা। ফাইল ছবি

নিজের লাগেজ ও হাতে দুইটা শপিং ব্যাগ নিয়ে সকালেই গাবতলী বাস টার্মিনালে চলে এসেছেন বগুড়ামুখী আজিজুল ইসলাম।  তিনি বলেন, ঈদের আনন্দ সবার সঙ্গে ভাগ করে নেওয়ার জন্য গ্রামে ফেরা। ঈদে সব বন্ধুর দেখা মেলে। সবাই গ্রামে আসে। বন্ধুদের সঙ্গে দেখা করা বন্ধুদের বাড়ি বাড়ি হইহুল্লোড় করে বেড়ানোর লোভটা কে বা সামলাতে পারে বলেন।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী মামুনুর রশিদ যাবেন খুলনা। তিনি বলেন, আজ রাত থেকে ভিড় বেশি হবে তাই সকালেই চলে এসেছি। ভাড়া একটু বেশি নিলেও সময় মতো গাড়ি ছাড়ছে বলে জানান তিনি।

ঈগল পরিবহনের ম্যানেজার হাদিউজ্জামান মিঠুন বলেন, মূলত রাত থেকে ভিড় শুরু হবে। তবে সকাল থেকে অসংখ্য মানুষ আসছে। যাদের টিকিট দিয়েছি তারা ঠিকঠাক আসছেন কি না কেউ রাস্তায় আটকা পড়লেন কি না সবই দেখতে হচ্ছে। বিভিন্ন রুটে সিডিউল বাসকে সহায়তায় রিজার্ভ বাসও রাখা হয়েছে বলে জানান তিনি।

হানিফ পরিবহনের কাউন্টার মিন্টু বলেন, সকাল থেকে আমাদের সব রুটে বাস ছেড়ে গেছে। রাস্তায় তেমন কোনো যানজটের খবর আমরা এখনো পাইনি। আশা করা যায় যথাসময়েই যাত্রীরা গন্তব্যে পৌঁছাবে।

অর্থসূচক/মুন্নাফ/কে এম

এই বিভাগের আরো সংবাদ