কুম্বলে-কোহলি দ্বন্দ্ব; বাঁশের চেয়ে কঞ্চি বড়
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

কুম্বলে-কোহলি দ্বন্দ্ব; বাঁশের চেয়ে কঞ্চি বড়

চ্যাম্পিয়নস ট্রফির ফাইনালে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী পাকিস্তানের কাছে হারের ঘটনাকে ছাপিয়ে উঠেছে ভারতীয় কোচ অনিল কুম্বলের পদত্যাগ। ইতোমধ্যে ক্রিকেট দুনিয়ায় সবার জানা হয়ে গেছে, দলের অধিনায়ক বিরাট কোহলির সঙ্গে দ্বন্দ্ব আর তার একগুঁয়েমির কারণেই দায়িত্ব ছাড়তে বাধ্য হয়েছেন কুম্বলে।

ভারতের বিভিন্ন সংবাদপত্রে প্রকাশিত প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, গত ছয় মাস ধরে ক্যাপ্টেন ও কোচের মধ্যে কথাবার্তা বন্ধ। ক্রিকেট দুনিয়ায় ভদ্রলোক হিসেবে পরিচিত অনিল কুম্বলে বিষয়টি কাউকে বুঝতে না দিয়ে কাজ করে যাওয়ার চেষ্টা করেছেন। কিন্তু বিরাট কোহলি করেছেন ঠিক উল্টো কাজ। তিনি বিভিন্ন সময়ে কোচ সম্পর্কে বাজে মন্তব্য করেছেন। কুম্বলে কীভাবে কোচ হিসেবে থাকেন তা দেখে নেবেন বলে হুমকী দিয়েছেন। ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের কাছে অনানুষ্ঠানিকভাবে অনিল কুম্বলেকে সরিয়ে দেওয়ার অনুরোধ জানিয়েছেন।

জানা গেছে, ভারত-পাকিস্তান ফাইনাল ম্যাচের দু’দিন আগে টিম মিটিং এ কোহলি প্রকাশ্যে অনিল কুম্বলেকে গালিগালাজ করেছেন। তিনি তাকে বলেছেন, টিম মেম্বাররা তাকে (কুম্বলে) আর কোচ হিসেবে চায় না। সব মিলিয়ে পরিবেশ এতটাই অস্বস্তিকর হয়ে পড়ে যে, কুম্বলে তার মান সম্মান রক্ষায় দায়িত্ব ছেড়ে দিয়ে সরে পড়তে বাধ্য হন। এ যেন বাঁশের চেয়ে কঞ্চি বড় হয়ে যাওয়ার মতো অবস্থা।

এদিকে ভারতের প্রধান কোচের পদ থেকে দেশটির সাবেক ক্রিকেটার অনিল কুম্বলের পদত্যাগের পর সমালোচনার মধ্যে পড়েছেন জাতীয় দলের খেলোয়াড়রা। তাদের ক্ষমতা নিয়ে বিভিন্ন মহলে ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনা হচ্ছে। এই বিষয়ে ভারত জাতীয় ক্রিকেট দলের সাবেক খেলোয়াড়রাও নিজেদের মতামত ব্যক্ত করছেন।

তাদের কেউ কেউ বলছেন, যারা কুম্বলের বিরুদ্ধে নালিশ দিয়েছে, তাদের দল থেকে বাদ দেওয়া উচিৎ। আবার কারো কারো মতে, কোচের চেয়ে খেলোয়াড়ের মতামতের মূল্য বেশি। এমন বিব্রতকর পরিবেশে দায়িত্ব পালনের চেয়ে পদত্যাগ করায় শ্রেয়।

Anil Kumble

ভারতের কিংবদন্তী লেগ স্পিনার অনিক কুম্বলে।

২০১৬ সালে জুন মাসে জাতীয় ক্রিকেট দলের দায়িত্ব দেওয়া হয় কিংবদন্তী লেগ স্পিনার অনিল কুম্বলেকে। চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি শেষ না হওয়া পর্যন্ত কোচের দায়িত্ব পালনে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ হন তিনি।

সে সময়ে কোচিংয়ে অনভিজ্ঞ এই ক্রিকেটারকে জাতীয় দলের প্রধান কোচ করাকে বিসিসিআইয়ের জুয়া খেলা বলে মন্তব্য করেছিলেন অনেকেই। তবে অল্প সময়ের মধ্যে সমালোচকদের যথোপযুক্ত জবাব দিয়েছেন কুম্বলে। একের পর এক সফলতা এনে দিয়েছেন এই লেগ স্পিনার। তার অধীনে ১৭ টেস্ট খেলার মধ্যে ১২টিতে জয় পেয়েছে ভারত। চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির ফাইনালেও খেলেছে দলটি।

এমন পারফরম্যান্সের পর কুম্বলেকে লম্বা সময়ের জন্য কোচের দায়িত্বে রাখার পক্ষে মত দিয়েছেন ভারতীয় ক্রিকেট দলের বেশ কয়েকজন সাবেক অধিনায়ক। অন্যদিকে কুম্বলের কোচিং নিয়ে অধিনায়ক কোহলিসহ দলের বেশ কয়েকজন খেলোয়াড় বিসিসিআইয়ের কাছে নেতিবাচক মন্তব্য করেছেন জানা গেছে।

Virat Kohli Sunil Gavaskar

বিরাট কোহলির সঙ্গে ভারত জাতীয় দলের সাবেক অধিনায়ক সুনীল গাভাস্কার।

এর পরিপ্রেক্ষিতে নতুন কোচ নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে বিসিসিআই। এই পদের জন্য কয়েকজন দেশি-বিদেশি খেলোয়াড় আবেদন করেছেন। কুম্বলে আবেদন না করলেও তার নাম তালিকায় থাকবে বলে জানিয়েছে বিসিসিআই।

তবে আবেদন করা ব্যক্তিদের সাক্ষাৎকার নেওয়ার আগে গতকাল মঙ্গলবার আনুষ্ঠানিকভাবে পদত্যাগের ঘোষণা দিয়েছেন অনিক কুম্বলে। এরপর এক টুইট বার্তায় তিনি লিখেছেন, ক্রিকেট উপদেষ্টা কমিটি আমাকে দায়িত্ব চালিয়ে যাওয়ার ব্যাপারে সেই আস্থা ও বিশ্বাস রেখেছে সেটির জন্য আমি গর্বিত। গত বছর আমরা যেই অর্জন করেছি তার কৃতিত্ব অধিনায়ক, গোটা দল, কোচিং এবং সাপোর্ট স্টাফের।

কুম্বলে বলেন, আমি মনে করি, কোচ হলো দলীয় স্বার্থে আত্ম-উন্নতির জন্য ধরে রাখা একটি আয়নার মতো। তবে আমার কোচিংয়ে আস্থা হারিয়ে ফেলেছে কোহলি। বিসিসিআইয়ের কাছ থেকে জানতে পেরেছি, আমার কোচিং স্টাইল অধিনায়কের পছন্দ নয় এবং আমার দায়িত্ব চালিয়ে যাওয়ার ব্যাপারেও তার আপত্তি রয়েছে। ব্যাপারটা শুনে আমি খুবই বিস্মিত হয়েছি। কোচ ও অধিনায়কের সম্পর্কের সীমার প্রতি আমি সব সময় শ্রদ্ধা করি। এটা স্পষ্ট ছিল যে, আমার অংশীদারিত্ব তাদের কাছে অসহ্য। তাই এটাই আমি সরে যাওয়ার জন্য সবচেয়ে ভালো সময় বলে বিশ্বাস করি।

তিনি বলেন, গত এক বছর ধরে ভারতীয় দলের প্রধান কোচের দায়িত্ব পালন করা ছিল অসাধারণ ব্যাপার। আমি ক্রিকেট উপদেষ্টা কমিটি, বিসিসিআই, কমিটি অব অ্যাডমিনিস্ট্রেশন এবং সংশ্লিষ্টদের ধন্যবাদ জানাই। ধারাবাহিক সমর্থনের জন্য ভারতীয় ক্রিকেটের অগণিত অনুসারী এবং ভক্তের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাই। আমি সর্বদাই আমার দেশের শুভাকাঙ্ক্ষী হিসেবে থাকবো।

কুম্বলের পদত্যাগ এবং টুইটের পর ক্ষেপেছেন ভারত জাতীয় দলের সাবেক অধিনায়ক সুনীল গাভাস্কার। স্থানীয় একটি সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, তাহলে তারা নরম কাউকেই চায়। এমন একজনকে তারা চায়, যে বলবে, ঠিক আছে, আজকে অনুশীলন করতে হবে না। তোমরা হয়তো একটু ক্লান্ত। ঠিক আছে, আজ তোমাদের ছুটি। দল বেঁধে শপিং করে আসতে পারো।

Bishan Singh Bedi

ভারত জাতীয় দলের সাবেক অধিনায়ক বিশন সিং বেদি।

ভারত জাতীয় দলের সাবেক এই অধিনায়ক বলেন, অনিল কুম্বলের মতো একজন কোচ, যিনি পরিশ্রম করতে ও করাতে পছন্দ করেন; গত এক বছরে যিনি দলকে ভালো করতে সহায়তা করেছেন। আপনি চাইবেন, এমন কেউই দলের কোচ হিসেবে থাকুক। কিন্তু যেসব খেলোয়াড়ে তার বিরুদ্ধে নালিশ দিয়েছে, তাদের দল থেকে বাদই দেওয়া উচিৎ।

ভারত জাতীয় দলের সাবেক অধিনায়ক বিশন সিং বেদি বলেন, পদত্যাগের বিষয়ে কুম্বলের সিদ্ধান্তে আমি মোটেও অবাক হয়নি। পরীক্ষিত কোচের বিরুদ্ধে খেলোয়াড়ের অভিযোগ প্রাধান্য পায়; আত্ম-সম্মানবোধ রয়েছে- এমন কেউই এই পরিবেশে টিকে থাকতে পারবে না।

এর আগে গত সোমবার কোচ অনিক কুম্বলে এবং অধিনায়ক কোহলিকে নিয়ে বিশেষ সভা করেছিল ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড। ওই সভায় থাকা এক কর্মকর্তা জানান, কুম্বলি ও কোহলিকে নিয়ে বোর্ডের বৈঠক মোটেও আনন্দদায়ক ছিল না। নিজের অবস্থানে অনড় ছিলেন কোহলি; সেটাই হয়তো কুম্বলেকে তার সিদ্ধান্ত নিতে সহায়তা করেছে।

অর্থসূচক/এমই/

এই বিভাগের আরো সংবাদ