দুর্নীতির খবরকেও গুরুত্ব দেয় না সরকার: ইফতেখারুজ্জামান
বুধবার, ২৩শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » জাতীয়

দুর্নীতির খবরকেও গুরুত্ব দেয় না সরকার: ইফতেখারুজ্জামান

TIB_09.12.13_Dominic--1সরকার, প্রশাসন ও বিভিন্ন স্তরের দুর্নীতি নিয়ে আমাদের দেশে অনেক খবর প্রকাশিত হয় কিন্তু সেগুলোকে গুরুত্ব দেয় না সরকার। এ গুলোকে পাশ কাটিয়ে চলার চেষ্টা করা হয় ফলে দূর্নীতির রোধ করা সম্ভব হয় না বলে মন্তব্য করেছেন ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান।

সোমবার রাজধানীর ব্র্যাক ইন্টারন্যাশনাল ইন সেন্টারে ‘টিআইবি’র অনুসন্ধানী সাংবাদিকতা পুরস্কার-২০১৩’ অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, সংবাদকর্মীরা দুদকসহ নীতি নির্ধারণী বিভিন্ন বিষয়ে তথ্যানুসন্ধানী প্রতিবেদন প্রকাশ করে সরকারের দৃষ্টি গোচর করলেও সরকার অধিকাংশ ক্ষেত্রে তাতে দৃষ্টি গোচর করে না। সংশোধিত দুদক আইন ২০১৩-এর ক্ষেত্রেও তাই হয়েছে বলে জানান তিনি।

অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন প্রবীণ সাংবাদিক এবিএম মুসা, বৈশাখী টিভি’র প্রধান বার্তা সম্পাদক ও সিইও মঞ্জুরুল আহসান বুলবুল, টিআইবি বাংলাদেশের নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান। অনুষ্ঠান সভাপতিত্ত্ব করেন টিআইবি ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারপারসন অ্যাডভোকেট সুলতানা কামাল।

এবিএম মুসা বলেন, কী ঘটেছে সেটা যেমন গুরুত্বপূর্ণ কিন্তু তার চেয়েও গুরুত্বপূর্ণ কেন ঘটেছে। অনুসন্ধানী সাংবাদিকতায় জাতীয় সংবাদ থেকে মফস্বল সংবাদ অনেক বেশি এগিয়ে। আর তাই মফস্বলের সাংবাদিকরা বেশি নির্যাতনের শিকার হন। মফস্বলের এসব সাংবাদিকদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে তিনি সরকারের প্রতি আহবান জানান।

সুলতানা কামাল বলেন, সাংবাদিকরা আছেন বলেই সমাজের অনেক অসঙ্গতির কথা আমরা জানতে পারি। এক্ষেত্রে সরকারের মধ্যে প্রতিক্রিয়া হয় কিন্তু বেশিরভাগে ক্ষেত্রে যথাযথ পদক্ষেপ নেয়া হয় না। শহরের সাংবাদিকের তুলনায় মফস্বলের সাংবাদিকরা বেশি নির্যাতনের শিকার হয়। এক্ষেত্রে সরকার হয়ত সরাসরি ভূমিকা পালন করে না কিন্তু তারা সরকার সমর্থকদের প্রতিহিংসার শিকার হন। তারপরও আমাদের সাহসি সাংবাদিকরা অনুসন্ধানি সাংবাদিকতা চালিয়ে যাচ্ছেন বলে মন্তব্য করেন তিনি।

মঞ্জুরুল আহসান বলেন, আমাদের দেশের সাংবাদিকতা হলো একটি পুকুরে থাকা অনেকগুলি কুমিরের মধ্যে পুকুরের এক পাড় থেকে সাঁতরিয়ে অন্য পাড়ে ওঠা। এই কুমির হলো সরকার, প্রশাসন, বড় বড় ধনকুবেরা। এসব কাটিয়েও আমাদের দেশে অনুসন্ধানী সাংবাদিকতার চর্চা চলছে এবং আমাদের ছেলেনা অনেক ভাল করছে বলে জানান তিনি।

এ বছর প্রিন্ট মিডিয়া জাতীয় বিভাগে দ্য ডেইলি স্টার পত্রিকায় ২০১২ সালের ১৪ অক্টোবর প্রকাশিত ‘এ ডেভিল ডিজাইন’ সংবাদের জন্য দ্য ডেইলি স্টার প্রত্রিকার প্রাক্তন প্রধান প্রতিবেদক এবং বর্তমানে ঢাকা ট্রিবিউনের বিশেষ প্রতিনিধি জুলফিকার আলী মানিক বিজয়ী হন। ২০১২ সালের ৩ মার্চ থেকে ২৫ মার্চ পর্যন্ত খুলনার আঞ্চলিক পত্রিকা দৈনিক পূর্বাঞ্চলে ‘শহরতলীতে ভূমিদস্যুদের উত্থান’ ধারাবাহিক প্রতিবেদনের জন্য আঞ্চলিক বিভাগে বিজয়ী হয়েছেন খুলনার সাংবাদিক এইচ এম আলাউদ্দিন। ইলেকট্রনিক মিডিয়া বিভাগে বিজয়ী হয়েছেন ইনডিপেনডেন্ট টেলিভিশনের প্রাক্তন বিশেষ প্রতিনিধি অপূর্ব আলাউদ্দিন (মো. আলাউদ্দিন আহমেদ)। তিনি তার ‘লাল হলেই রক্ত হয় না’ প্রতিবেদনের জন্য এ পুরস্কার লাভ করেন।

বিজয়ী সাংবাদিকদের সম্মাননাপত্র, ক্রেস্ট ও ৮০ হাজার টাকার চেক এবং ক্যামেরা পারসনের জন্য ৫০ হাজার টাকার সম্মানী দেয়া হয়।

উল্লেখ্য, বাংলাদেশে দুর্নীতি বিষয়ক অনুসন্ধানী সাংবাদিকতায়  পেশাদারি উৎকর্ষ সাধনের লক্ষে ১৯৯৯ সাল থেকে প্রতি বছর টিআইবি এ পুরস্কার প্রদান করে আসছে। এবার তিনটি বিভাগে সর্বমোচ ৫৩ জন সাংবাদিক প্রতিবেদন জমা দেন। এর মধ্যে প্রিন্ট মিডিয়া জাতীয় বিভাগে ৩১ জন, প্রিন্টা মিডিয়া আঞ্চলিক বিভাগে ১১ জন এবং ইলেকট্রনিক মিডিয়া বিভাগে ১১ জন সাংবাদিক তাদের প্রতিবেদন জমা দেন।

 

 

এই বিভাগের আরো সংবাদ