সামাজিক পোকা পিঁপড়া
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

সামাজিক পোকা পিঁপড়া

পিঁপড়া হলো ফর্মিসিডি গোত্রের অন্তর্গত সামাজিক কীট বা পোকা। মধ্য-ক্রেটাশাস পর্যায়ে ১১ থেকে ১৩ কোটি বছর আগে বোলতা জাতীয় প্রাণি থেকে বিবর্তিত হয় এই প্রাণি। এখন পর্যন্ত পিঁপড়ার প্রায় ২২ হাজার প্রজাতির মধ্যে ১২ হাজার ৫০০টির বেশি শ্রেণি বিন্যাস করা হয়েছে।

পিঁপড়ার কিছু অজানা কথা-

১. পিঁপড়া হচ্ছে সামাজিক পোকা। দলবল ছাড়া চলতে পারে না। তাই সঙ্গী-সাথী নিয়ে লাইন ধরে চলে চলাচল করে।

২. রানী পিঁপড়ার পাখা থাকে। কর্মী পিঁপড়া সব সময় কাজ করে। ওদেরও পাখা গজায়; তবে সেটা মৃত্যুর কিছু সময় আগে।

৩. পিঁপড়াদের মধ্যে কোনো রাজা নেই। প্রতিটি পিঁপড়ে কলোনিতে একজন রানী পিঁপড়ে, কয়েকজন ছেলে পিঁপড়া আর অসংখ্য কর্মী পিঁপড়া থাকে। ছেলা পিঁপড়াদের দ্রণ বলে ডাকা হয়। সারা জীবনে খাওয়া ছাড়া তারা আর কোনো কাজ করে না।

৪. রানী আর বাচ্চা পিঁপড়াদের দেখাশোনা করে কর্মী পিঁপড়া। মাঝ বয়সে খাবার সংগ্রহ এবং শেষ বয়সে সৈনিকের দায়িত্ব পালন করে কর্মী পিঁপড়া।

৫. খাবার সংগ্রহ এবং বাচ্চা লুট করতে এক কলোনির পিঁপড়া অন্য কলোনিতে আক্রমণ চালায়।

৬. দেহের ওজনের ১০ গুণ বেশি ভার বহন করতে পারে পিঁপড়া।

৭. পিঁপড়ার শরীর থেকে ফেরোমোনেস নামক গন্ধযুক্ত রাসায়নিক পদার্থ বের হয়। এই ছোট প্রাণিটি যেদিকে যায়, সেদিকেই তাদের শরীরের গন্ধযুক্ত ওই রাসায়নিক পদার্থ লেগে যায়। পরবর্তীতে ওই গন্ধ অনুসরণ করে নিজ কলোনিতে ফিরে পিঁপড়া।

তথ্য সূত্র : ইন্টারনেট

অর্থসূচক/ টি এম

এই বিভাগের আরো সংবাদ