সর্বজনীন পেনশনে নেওয়া হবে ভারত পাকিস্তানের অভিজ্ঞতা
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

সর্বজনীন পেনশনে নেওয়া হবে ভারত পাকিস্তানের অভিজ্ঞতা

সর্বজনীন পেনশন ব্যবস্থা কার্যকরে প্রতিবেশি  ভারত ও পাকিস্তানের অভিজ্ঞতা কাজে লাগানোর চিন্তা-ভাবনা করছে সরকার। যাতে সরকারি-বেসরকারি খাতে পেনশন ব্যবস্থা গ্রহণযোগ্য করা যায়।

আগামীকাল বুধবার দুপুর আড়াইটায় বিশ্বব্যাংকের সহযোগিতায় পেনশন ব্যবস্থার সংশোধনে আঞ্চলিক অভিজ্ঞতা তুলে ধরতে এক বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে। এতে অংশ নেবে অর্থমন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা।

পেনশন

অর্থ মন্ত্রণালয় সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

এ বৈঠকে ভারত ও পাকিস্তানের পেনশন ব্যবস্থার ওপর একটি অভিজ্ঞতাপত্র উপস্থাপন করবে বিশ্বব্যাংক।যার উপর আলোচনায় অংশ নেবেন অতিথিবৃন্দ।

সূত্র মতে, সর্বজনীন পেনশন ব্যবস্থা কার্যকরে কাজ করছে অর্থমন্ত্রণালয়; গঠন করা হবে অংশীদারিত্বমূলক পেনশন কাঠামো। এতে চাকরিজীবী এবং নিয়োগকারী কর্তৃপক্ষ উভয়ের অবদান থাকবে। চাকরিজীবীর মূল বেতনের শতকরা ১০ ভাগ জমা হবে তহবিলে। নিয়োগকারী কর্তৃপক্ষও সমপরিমাণ টাকা দেবে। সরকারি ও বেসরকারি খাতে একই নিয়মে তহবিল গঠন করা হবে। আগামী ২০১৮ সাল থেকে এটিকে বাস্তব রুপ দিতে চায় সরকার।

প্রস্তাবিত পেনশন স্কিমের আওতায় সরকারি চাকরিজীবীদের বয়স হবে ৬০ বছর। আর বেসরকারি খাতের জন্য ৬৫ বছর। নির্ধারিত সময়ে চাকরি শেষে অর্ধেক পেনশনের টাকা এককালীন তোলা যাবে। বাকি টাকা তহবিলে থাকবে। এ তহবিল পরিচালনার জন্য আলাদা কোম্পানি গঠন করা হবে। তারা লাভজনক খাতে তহবিলের অর্থ বিনিয়োগ করবে। বিনিয়োগ সুরক্ষাও দেওয়া হবে। এ থেকে যে মুনাফা আসবে, তার অংশ মাসে মাসে পাবেন সুবিধাভোগীরা।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, সরকারি চাকরিজীবীদের ক্ষেত্রে এটা বাম্তবায়ন সম্ভব হলেও বেসরকারি খাতে কঠিন হবে। এক্ষেত্রে বেসরকারি খাতের মালিকদের স্বদিচ্ছার প্রয়োজন রয়েছে।

তবে প্রাথমিকভাবে বড় বড় কোম্পানি, শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত কোম্পানিতে কর্মরত চাকরিজীবীদের পেনশনের আওতায় আনার প্রস্তাব করা হয়েছে বলে অর্থমন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে।

অর্থসূচক/আজম/এস

এই বিভাগের আরো সংবাদ