‘আগামী বছর থেকে চট্টগ্রামে জলাবদ্ধতা থাকবে না’
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

‘আগামী বছর থেকে চট্টগ্রামে জলাবদ্ধতা থাকবে না’

চলতি বছরের মধ্যে মহেশখাল খনন, অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ, দুই পাড়ে রাস্তা নির্মাণ, এক্সেস রোড উঁচু করে পরিকল্পিত ড্রেনেজ সিস্টেমের কাজ আগামী বর্ষা মৌসুমের আগেই শেষ করা সম্ভব হলে জলাবদ্ধতা থেকে নগরীর মানুষ মুক্তি পাবে বলে মন্তব্য করেছেন চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন।

আজ সোমবার দুপুরে আগ্রাবাদ এক্সেস রোডের বেপারি পাড়া পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন তিনি।

আগ্রাবাদ এক্সেস রোডের বেপারি পাড়া পরিদর্শন করেছেন চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন।

মেয়র বলেন, গত বছর এভাবে পানি এখানে ওঠেনি। এ বছর পানির পরিমাণটা বৃদ্ধি পেয়েছে। এটার পেছনে মহেশখালের মুখে অস্থায়ী যে বাঁধ আছে সেটাকে দায়ী করছেন সবাই। সম্প্রতি এই বাঁধ অপসারণের ব্যাপারে আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি। জনস্বার্থে বাঁধটি তৈরি হলেও এখন সেভাবে সুফল পাওয়া যাচ্ছে না। সে কারণে তা অপসারণের জন্য বন্দর কর্তৃপক্ষকে অনুরোধ জানিয়েছি।‍

বৃষ্টিপাতে চট্টগ্রামে জলাবদ্ধতা।

তিনি বলেন, মহেশখালের অবস্থা খারাপ। অনেক জায়গা ভরাট হয়ে গেছে। আমি স্থানীয়দের অনুরোধ করেছি, আপনারা যদি ময়লা-আবর্জনা খালে ফেলেন, খাল দখল করেন তবে জলাবদ্ধতা যাবে না। জলাবদ্ধতার শিকার হচ্ছেন আপনারা, তা নিরসনে আপনাদের সহযোগিতা প্রয়োজন। চসিক পরিকল্পিত উদ্যোগ নিয়েছে, আগামী বছর এর ভালো সুফল পাবেন বলে আমি আশা করছি।

আগ্রাবাদ এক্সেস রোডে ড্রেনেজ ব্যবস্থা পরিকল্পিত ছিল না উল্লেখ করে মেয়র বলেন, আমরা জাইকার অর্থায়নে প্রকল্প গ্রহণ করেছি। স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের চূড়ান্ত অনুমোদন পেলে ঠিকাদার নিয়োগ ও কাজ শুরু হয়ে যাবে। পিডির সঙ্গে কথা হয়েছে। এটি হয়ে গেলে কাজ শুরু হবে। আমরা রাস্তা আরও বেশি উঁচু করবো এবং পরিকল্পিত ড্রেনেজ ব্যবস্থা সম্পন্ন করতে পারবো।

এসময় স্থানীয় কাউন্সিলর এইচ এম সোহেল শৈবাল দাশ সুমন সহ চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন এর প্রকৌশলী, উর্ধ্বতন কর্মকর্তা ও রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

অর্থসূচক/দেবব্রত/কে এম

এই বিভাগের আরো সংবাদ