বৃষ্টির পর ঘুরে দাঁড়াচ্ছে ইংল্যান্ড
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

বৃষ্টির পর ঘুরে দাঁড়াচ্ছে ইংল্যান্ড

মাঠে নেই বাংলাদেশ। কিন্তু কপাজে ভাঁজ যেন আমাদেরই। থাকবে না কেন- আজ যে সেমি ফাইনালে যাওয়ার হিসাব নিকাশের পালা। বার্মিংহামে ইংল্যান্ডের কাছে হারলেই বিদায় নিশ্চিত অস্ট্রেলিয়ার। আর সেটা হলে সেমি ফাইনালের হিসাব পাক্কা। ইংল্যান্ডের সঙ্গী হবে বাংলাদেশ।

আইসিসি চ্যাম্পিয়ন ট্রপির আজকের ম্যাচে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ২৭৭ রানের তাড়া করতে নেমে ব্যাট হাতে শুরুটা ভালো করেনি ইংল্যান্ড। ৭ ওভারে ৩ উইকেট হারিয়ে ৪৪ রান করে ব্রিটিশরা। একটু বিরতি দেয় বৃষ্টি। আর তাতেই সজিব হয়ে উঠে ইংলিশরা। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত ১৮ ওভারে ১২১ রান তুলে নিয়েছে ইংল্যান্ড। উইকেট সেই ৩টিই আছে। 

ব্যাট হাতে জ্বলে উঠেছেন ইংলিশম্যান ইয়ন মর্গান ও বেন স্টোকস। তারা এখন ২৭৮ নয়, যেন ৫০০ রানের টার্গেটে ব্যাট করছেন। ৫০ বলে মর্গানের সংগ্রহ ৪৯। আর স্টোকসের ৪১ বলে ৫৩ রান।

ইনিংসের দ্বিতীয় বলেই জেসন রয়কে (৪) এলবিডাব্লিউর ফাঁদে ফেলেন মিচেল স্টার্ক। জশ হ্যাজেলউডের করা পরের ওভারে অ্যালেক্স হেলসও আউট। স্লিপে অ্যারন ফিঞ্চের তালুবন্দি হওয়ার আগে রানের খাতা খুলতে পারেন নি তিনি।

৬ রানে দুই ওপেনারকে হারানোর পর দলকে বিপদ থেকে উদ্ধারের চেষ্টা করছিলেন জো রুট ও এউইন মরগান। দারুণ ছন্দে থাকা রুট অবশ্য এবার ব্যর্থ। ১৫ রান করে হ্যাজেলউডের বলে উইকেটরক্ষক ম্যাথু ওয়েডকে ক্যাচ দিয়ে স্বাগতিকদের বিপদ বাড়িয়ে দিয়েছেন তিনি।

এর আগে ইংল্যান্ডের বোলারদের সামনে কঠিন পরীক্ষা দিতে হয়েছে অস্ট্রেলিয়ার ব্যাটসম্যানদের। সবচেয়ে বেশি পরীক্ষা নিয়েছেন আদিল রশিদ। তার দুই ওভারের ভেল্কিতে ভেঙে পড়ে অস্ট্রেলিয়ার মিডল অর্ডার। একই ওভারে তিনি ফিরিয়েছেন ম্যাথু ওয়েড (২) ও মিচেল স্টার্ককে (০)। তার আগে ও পরে ময়েসেস হেনরিকস (১৭) ও প্যাট কামিন্সকে (৪) ফিরিয়ে ইংলিশ স্পিনার নিজের নামের পাশে যোগ করেছেন ৪ উইকেট।

শুরুটা অবশ্য মন্দ ছিল না টস হেরে ব্যাটিংয়ে নামা অস্ট্রেলিয়ার। ডেভিড ওয়ার্নার ও অ্যারন ফিঞ্চ ধীরগতিতে শুরু করলেও মোটামুটি শক্ত ভিত গড়ে দিয়েছিলেন ৪০ রান যোগ করে। ফিঞ্চ তুলে নেন ওয়ানডে ক্যারিয়ারের ১৮তম হাফসেঞ্চুরি। যোগ্য সঙ্গ পেয়েছেন অধিনায়ক স্টিভেন স্মিথের কাছ থেকে। দ্বিতীয় উইকেট জুটিতে তারা যোগ করেন ৯৬ রান।

বাংলাদেশের বিপক্ষে আগের ম্যাচে ওয়ানডেতে চার হাজার রানের মাইলফলকে পৌঁছানো ওয়ার্নার গ্রুপের শেষ ম্যাচে ২১ রানে আউট হয়েছেন। মার্ক উডের বলে উইকেটের পেছনে জস বাটলারকে ক্যাচ দিয়েছেন তিনি। ওয়ার্নারের বিদায়ের পর ফিঞ্চের সঙ্গে জুটি বাঁধেন স্মিথ। দুজনের সাবলীল ব্যাটিংয়ে ভালোভাবেই এগিয়ে যাচ্ছিল অস্ট্রেলিয়া। কিন্তু স্টোকসকে তুলে মারতে গিয়ে ইংল্যান্ড অধিনায়ক এউইন মরগানের হাতে ধরা পড়েন ফিঞ্চ। তার ৬৪ বলে খেলা ৬৮ রানের ইনিংস সাজানো ৮টি চারে।

ফিঞ্চ আর স্মিথের ৯৬ রানের জুটি ভেঙে যাওয়ার ধাক্কা সামলাতে পারেনি অস্ট্রেলিয়া। ১৯ রান করা ময়েসেস হেনরিকসকে বিদায় করেন আদিল রশিদ। ২০ রান যোগ হওয়ার পর অস্ট্রেলীয়দের জন্য আরও বড় ধাক্কা, এবার স্মিথের বিদায়। অস্ট্রেলিয়া অধিনায়ককে ফিরিয়ে দেন মার্ক উড। হেনরিকসের মতো স্মিথের ক্যাচও নিয়েছেন লিয়াম প্লাঙ্কেট। স্মিথের ৫৬ রানের ইনিংস সাজানো ৫টি চারে।

অধিনায়কের বিদায়ের পর দলের হাল ধরেন গ্লেন ম্যাক্সওয়েল ও হেড। যদিও ‘দুর্ভাগা’ ম্যক্সওয়েলকে ফিরতে হয়েছে জেসন রয়ের দুর্দান্ত এক ক্যাচে। মিডউইকেটে সীমানার উপর থেকে অনেকটা লাফিয়ে বল তালুবন্দি করেন রয়, ভারসাম্য রাখতে না পেরে চলে গিয়েছিলেন সীমানার ওপারে। তবে বল শূন্যে ছুড়ে আবার মাঠের ভেতর থেকে করেন তালুবন্দি। ২০ রানে ফেরা ম্যাক্সওয়েলের আউটের পরই রশিদের আঘাতে ভেঙে পড়ে অস্ট্রেলিয়ার ব্যাটিং লাইন। সেখান থেকে একা হাতে লড়াই চালিয়ে গেছেন হেড। শেষ পর্যন্ত তিনি ৬৪ বলে অপরাজিত ছিলেন ৭১ রানে।

এস

এই বিভাগের আরো সংবাদ