‘তরুণ উদ্যোক্তাদের জন্য বাজেটে বিশেষ বরাদ্দ প্রয়োজন’
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

‘তরুণ উদ্যোক্তাদের জন্য বাজেটে বিশেষ বরাদ্দ প্রয়োজন’

আজকের তরুণ উদ্যোক্তারাই আগামীর ভিশন-২০৪১ এর উন্নত বাংলাদেশ গড়ার কাজে মূল ভূমিকা পালন করবেন। তাই বাজেটে তরুণ উদ্যোক্তাদের বিষয়ে বরাদ্দ রাখা প্রয়োজন ছিল।

২০১৭-১৮ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেট প্রতিক্রিয়ায় এসব কথা বলেন চট্টগ্রাম জুনিয়র চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজের সভাপতি মো. গিয়াস উদ্দিন। তিনি বলেন, বর্তমানে তরুণ উদ্যোক্তাদের ব্যাংক ঋণ পাওয়ার ক্ষেত্রে সহজীকরণ করা প্রয়োজন। সংশোধিত বাজেটে এর প্রতিফলন থাকতে হবে।

GIAS UDDIN

চট্টগ্রাম জুনিয়র চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজের সভাপতি মো. গিয়াস উদ্দিন।

মো. গিয়াস উদ্দিন বলেন, আগামী অর্থবছরের ঘোষিত বাজেট শিল্পবান্ধব। ৪ লাখ ২২৬ কোটি টাকার ঘোষিত বাজেটের আকার বড় হলেও এর বাস্তবায়ন সম্ভব। এই বাজেটে উন্নয়নের ধারাবাহিকতা রয়েছে। আলোচিত-সমালোচিত ভ্যাট আইন চালু নিয়ে নানা মহলে প্রতিক্রিয়া থাকলেও শেষ মুহূর্তে মৌলিক খাদ্যপণ্য, ওষুধ, শিক্ষা, চিকিৎসাসহ বিভিন্ন খাতে ভ্যাট অব্যাহতি দেওয়ার বিষয়টি ইতিবাচক। এই বাজেট বাস্তবায়ন হলে ভিশন-২০২১ বাস্তবায়নে বাংলাদেশ আরও একধাপ এগিয়ে যাবে।

চট্টগ্রাম জুনিয়র চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজের সভাপতি বলেন, ভ্যাট আইন কার্যকর হলে রাজস্ব আহরণ অনেক সহজতর হবে। কিন্তু এই ভ্যাট আদায়ের ক্ষেত্রে সাধারণ ভোক্তারা যাতে হয়রানি ও ক্ষতিগ্রস্ত না হয়- সে দিকে সরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোকে নজর দিতে হবে। তৈরি পোষাকখাতে আয়কর কমানোতে এই শিল্পে ইতিবাচক প্রভাব ফেলতে পারে।

শিক্ষা ও মানবসম্পদ উন্নয়ন খাতে ২৬.১২ শতাংশ বরাদ্দ ইতিবাচক উল্লেখ করে তিনি বলেন, এতে দেশে শিক্ষার উন্নতি ঘটবে। সামনের দিনগুলোতে ধারাবাহিকতা রাখা গেলে  ভিশন-২০৪১ এর উন্নত বাংলাদেশ গঠনে বড় ভূমিকা রাখবে।

মো. গিয়োস উদ্দিন বলেন, জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের মাধ্যমে আড়াই লাখ কোটি টাকা রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা নেওয়া হয়েছে। এতে পুরো কর ব্যবস্থাপনায় চাপ তৈরি করবে। এক্ষেত্রে দ্রুততম সময়ে ও সচেতনতার মাধ্যমে রাজস্ব আদায়ের পরিবেশ তৈরি করে দিতে হবে। রাজস্ব আহরণ করতে গিয়ে ব্যবসায়ীরা যাতে হয়রানিতে না পড়েন সে দিকে সরকারকে সজাগ থাকতে হবে।

বাজেটের আকার যথার্থই হয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, সরকার যে সব মেগাপ্রকল্প হাতে নিয়েছে তা বাস্তবায়নের জন্য এ ধরনের বড় বাজেট প্রয়োজন ছিল। এই বাজেট উচ্চবিলাসী নয়; বরং শিল্প ও জনবান্ধব। বাজেটের ঘোষণা অনুযায়ী আগামী অর্থবছরে সব শিল্প প্রতিষ্ঠানে গ্যাস সরবরাহ করা হলে শিল্প বিকাশের পাশাপাশি কর্মসংস্থান তৈরিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।

চট্টগ্রাম জুনিয়র চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজের সভাপতি বলেন, একটি ইতিবাচক বাজেট উপস্থাপন করায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতকে ধন্যবাদ। ঘোষিত বাজেট সরকারের ভিশন-২০২১ বাস্তবায়ন পরিকল্পনার একটি প্রতিচিত্র। বর্তমানে দেশে যে রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা রয়েছে, তার ধারাবাহিকতা থাকলে প্রবৃদ্ধি ৭ দশমিক ৪ ছাড়িয়ে যাওয়ার পাশাপাশি এই বাজেট দেশের উন্নয়ন অগ্রযাত্রাকে আরও ত্বরান্বিত করবে।

অর্থসূচক/দেবব্রত/এমই/

এই বিভাগের আরো সংবাদ