অতি উৎসাহীরা চালের দাম বাড়াচ্ছে: আমু
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

অতি উৎসাহীরা চালের দাম বাড়াচ্ছে: আমু

শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু বলেছেন, বাজারে চালের মজুত আছে। তা সত্ত্বেও দাম বেড়েছে এটা আমাদের অস্বীকার করার উপায় নেই। মূলত দুর্যোগের প্রভাব পড়েছে এখানে। তবে এটা ঠিক যে, বাজারে অতি উৎসাহীরা চালের দাম বাড়াচ্ছে।

আজ শুক্রবার ২০১৭-১৮ অর্থবছরের বাজেটোত্তর সংবাদ সম্মেলনে এক প্রশ্নের জবাবে শিল্পমন্ত্রী এ কথা বলেন।

এসময় অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত, কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী, পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল, অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান, বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবির, অর্থ মন্ত্রণালয়ের জ্যেষ্ঠ সচিব হেদায়েতুল্লাহ আল মামুন, এনবিআর চেয়ারম্যান নজিবুর রহমান, ইআরডি সচিব কাজী শফিকুল আজম এবং পরিকল্পনা বিভাগের সচিব মো. জিয়াউল ইসলাম উপস্থিত আছেন।

রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

শিল্পমন্ত্রী বলেন, রোজার মাস আসলেই বাজারে এক শ্রেণির অতি উৎসাহীরা চালের দাম বাড়িয়ে দেয়। তাদের কারণেই দাম বাড়ে। এমনকি পরিবহন সেক্টরের লোকজনও দাম বাড়ানোর পেছনে কাজ করে।

তিনি বলেন, আমাদের দেশপ্রেমের অভাব আছে। যার কারণে এখন মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণেও আমাদের সমস্যা সমাধান করতে হবে; দাম নিয়ন্ত্রণেও আইন করতে হবে।

এর আগে অর্থমন্ত্রী চালের দাম বাড়া নিয়ে বলেন, চালের দাম বেড়েছে দুর্যোগের কারণে; সম্প্রতি ৭ জেলায় দুর্যোগের প্রভাব পড়েছে এ বাজারে। তবে আমাদের কাছে পর্যাপ্ত মজুদ রয়েছে। আশা করি, সেটা ব্যবহারের মাধ্যমে শিগগির দাম আবার কমবে।

চালের দাম বৃদ্ধি প্রসঙ্গে কৃষি মন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী বলেন, চালের দাম বাড়লেও ক্রয়ক্ষমতার মধ্যে আছে। মানুষ কিনে খাচ্ছে। হাওরে দুর্যোগের ফলে বহু ফসল পানির নিচে চলে গেছে। এতে উৎপাদন কমেছে।

কৃষি মন্ত্রী বলেন, আমরা কিছুদিন আগে ১০ টাকা দামে ৩০ কেজি করে চাল বিক্রি করেছি। আগামী ৩ মাস (ভাদ্র, আশ্বিন ও কার্তিক) আবারও একই দামে চাল দেওয়া হবে।

তিনি বলেন, আমরা আউশ উৎপাদনের ওপর জোর দিয়েছি। জিটুজি পদ্ধতিতে চাল আমদানির কথা ভাবছি। চালের দাম ক্রয় ক্ষমতার বাহিরে চলে গেছে এটা বলার সুযোগ নেই। কয়েক দিনের মধ্যে স্বাভাবিক হয়ে আসবে।

এই বিভাগের আরো সংবাদ