মহেশ খালের অস্থায়ী বাঁধ সরছে; বসবে স্লুইস গেট
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

মহেশ খালের অস্থায়ী বাঁধ সরছে; বসবে স্লুইস গেট

চট্টগ্রামের আগ্রাবাদ এলাকায় মহেশ খালের উপর বন্দর কর্তৃপক্ষের নির্মিত অস্থায়ী বাঁধটি অপসারণের সিদ্ধান্ত নিয়েছে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন (চসিক)। এর পরিবর্তে নগরীর জলাবদ্ধতা স্থায়ীভাবে নিরসনের লক্ষ্যে মহেশ খালের মুখে স্লুইস গেট উইথ পাম্প হাউজ নির্মাণ পরিকল্পনা করছে চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ।

চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের সম্মেলন কক্ষে চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ, পানি উন্নয়ন বোর্ড ও চসিকের যৌথ সভায় এ সিদ্ধান্ত হয়।

CCC

চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের সম্মেলন কক্ষে চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ, পানি উন্নয়ন বোর্ড ও চসিকের যৌথ সভা।

সভার পর চসিক মেয়র আ.জ.ম. নাছির উদ্দীন বলেন, আগ্রাবাদ-হালিশহর এলাকার বাসিন্দাদের জন্য অস্থায়ী ভিত্তিতে মহেশ খালে বাঁধ নির্মাণ করেছিল বন্দর কর্তৃপক্ষ। কিন্তু বর্ষা মৌসুমের অতিবৃষ্টি ও জোয়ারের পানির চাপ সংশ্লিষ্ট এলাকায় ব্যাপক জলদুর্ভোগের সৃষ্টি করছে এই বাঁধ। তাই গতকালের সভায় বাঁধটি অপসারণের সিদ্ধান্ত হয়েছে। শিগগির এই সিদ্ধান্ত কার্যকর হবে। এর বাস্তবায়নের জন্য সংশ্লিষ্টদের সই করা পত্র মন্ত্রণালয়ে পাঠানোর ব্যবস্থা করা হচ্ছে।

তিনি আরও বলেন, চট্টগ্রামের ইতিহাসে প্রথবারের মতো নগরীর অনেক এলাকা প্রায় ২০ ঘণ্টা পানি নিচে ছিল। এখনও কিছু কিছু এলাকায় পানি আছে। এই জলাবদ্ধতা স্থায়ীভাবে নিরসনের লক্ষ্যে মহেশ খালের মুখে স্লুইস গেইট উইথ পাম্প হাউজ নির্মাণ পরিকল্পনা করছে চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ। এই প্রকল্প বাস্তবায়নে লজিস্টিক সহযোগিতা দেবে বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড। আগামী সপ্তাহেই প্রকল্প বাস্তবায়ন কাজের জন্য দরপত্র আহ্বান করা হবে।

Mohesh Khal Water gate

চট্টগ্রামের আগ্রাবাদ এলাকায় মহেশ খালের মুখে স্থাপনের জন্য প্রস্তাবিত স্লুইস গেট উইথ পাম্প হাউজের নকশা।

মেয়র বলেন, নগরে বিদ্যমান ৪০টি খালের মধ্যে দখল, দূষণের কবলে পড়ে অনেকগুলোই ভরাট হয়েছে। অসচেতনভাবে নালা-নর্দমার মধ্যে জনসাধারণ ময়লা আবর্জনা ফেলে। জলাশয় ভরাট হওয়াই জলাবদ্ধতার অন্যতম কারণ। অসহযোগিতার কারণে অনেক কাজ করতে পারছি না।

তিনি আরও বলেন, সিটি কর্পোরেশনের ফান্ড কম। হোল্ডিং ট্যাক্সও ঠিক মতো পাওয়া যায় না। এই ট্যাক্স পেলে ফান্ড ভালো থাকবে। এতে নগরীর উন্নয়নে কাজ করতে পারবো।

আ.জ.ম. নাছির উদ্দীন বলেন, নগর উন্নয়নে চসিক, ওয়াসা, কর্ণফুলী গ্যাস, টিঅ্যান্ডটিসহ সেবা সংস্থাগুলোর প্রকল্প বাস্তবায়নের কাজ চলছে। একসঙ্গে অনেক উন্নয়ন কাজ চলার কারণে বৃষ্টির পানি রাস্তায় জলজটের সৃষ্টি করছে। ফলে দুর্ভোগ ও যানজটের কবলে পড়ছে নগরবাসী। প্রকল্পগুলোর বাস্তবায়ন হল এক নতুন চট্টগ্রাম দেখবে নগরবাসী।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের প্রকৌশলী এ.কে.এম. সামছুল করিম বলেন, নগরীতে ৪০টি খাল আছে। এর মধ্যে ১০টি খাল দিয়ে জোয়ারের পানি শহরে প্রবেশ করে। আর সেই পানি একসঙ্গে বের হতে পারে না। ফলে জলাবদ্ধতা দেখা দেয়। মহেশ খালের সামনে স্লুইস গেইট উইথ পাম্প হাউস নির্মাণ করতে পারলে নগরীর জলাবদ্ধতা সমস্যা অনেক কমে যাবে।

সভায় চসিক কাউন্সিলর নাজমুল হক ডিউক, হাবিবুল হক, এইচ.এম. সোহেল, মোরশেদ আকতার, আবুল হাশেম, শৈবাল দাশ সুমন, সংরক্ষিত কাউন্সিলর ফেরদৌসি আকবর, ফারহানা জাবেদ, চসিক সচিব আবুল হোসেন, প্রধান প্রকৌশলী মাহমুদুল হোসেন খান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

অর্থসূচক/দেবব্রত/এমই/

এই বিভাগের আরো সংবাদ