ঘূর্ণিঝড় মোরা; চট্টগ্রাম বন্দরের পণ্য খালাস বন্ধ
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

ঘূর্ণিঝড় মোরা; চট্টগ্রাম বন্দরের পণ্য খালাস বন্ধ

চট্টগ্রাম ও কক্সবাজারের দিকে ধেয়ে আসছে ঘূর্ণিঝড় মোরা। আর এর আঘাতে বড় ধরনের বিপর্যয় থেকে বাঁচতে চট্টগ্রাম বন্দরের বহিঃ নোঙ্গরসহ সব ধরনের পণ্য খালাস বন্ধ ঘোষণা করেছে চট্টগ্রাম বন্দর কতৃপৃক্ষ।

আজ সোমবার সকাল ৯টায় আবহাওয়া অধিদপ্তর চট্টগ্রাম বন্দরের জন্য ৭ নম্বর বিপদ সংকেত দেখাতে বললে সকাল ১০টা থেকে বন্দরের বহিঃ নোঙ্গরে পণ্য খালাস বন্ধের নোটিশ ইস্যু করে বন্দর।

Chittagong Port_3

রপ্তানির উদ্দেশ্যে পণ্যভর্তি কন্টেইনার জাহাজের দিকে নেওয়া হচ্ছে। ফাইল ছবি

বন্দর কর্তৃপক্ষের নোটিশে বলা হয়েছে, বহিঃ নোঙ্গরে বড় জাহাজ থেকে ছোট জাহাজে পণ্য খালাস এবং জেটিতে অবস্থানরত জাহাজে কন্টেইনার ও কার্গো জাহাজের লোড-আনলোডসহ সব কার্যক্রম সাময়িকভাবে বন্ধ রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

বন্দর সচিব মো. ওমর ফারুক অর্থসূচককে জানান, আবহাওয়া অধিদপ্তরের ৭ নম্বর সংকেত ঘোষণার পর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে চট্টগ্রাম বন্দর। বহিঃ নোঙ্গর ও জেটির জাহাজে লোড-আনলোড বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। জেটিতে নতুন করে কোনো জাহাজ ভেড়ানো হচ্ছে না। যে সব জাহাজ কর্ণফুলী চ্যানেলে অবস্থান করছে- সেগুলোকে বহিঃ নোঙ্গরে পাঠিয়ে দেওয়া হচ্ছে।

তিনি জানান, বন্দরের ৪ নম্বর সতর্কতা সংকেত না দেখানো পর্যন্ত কোনো কাজ বন্ধ রাখা হয় না। এখন ৭ নম্বর বিপদ সংকেত দেখানো হয়েছে। তাই বন্দর ও বিদেশ থেকে পণ্যবাহী জাহাজের নিরাপত্তার স্বার্থে পণ্য খালাস বন্ধ রেখে নিরাপদ স্থানে সরে যাওয়ার জন্য নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

বিদেশ থেকে বড় জাহাজে বহিঃ নোঙ্গরে চাল, গম, কয়লা, ক্লিংকার ইত্যাদি খোলা পণ্য আনার পর ছোট ছোট জাহাজে (লাইটার) খালাস করে নদীপথে বিভিন্ন কারখানা ও বন্দরে নেওয়া হয়।

লাইটার জাহাজ নিয়ন্ত্রণকারী সংস্থা ওয়াটার ট্রান্সপোর্ট সেলের নির্বাহী পরিচালক মাহবুব রশীদ জানিয়েছেন, আজ সোমবার সকাল প্রায় ১০টা থেকে বহিঃ নোঙ্গরে পণ্য খালাস বন্ধ রয়েছে। বড় জাহাজগুলো কক্সবাজার-কুতুবদিয়ার দিকে নিরাপদ স্থানে চলে যাওয়ার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। এছাড়া লাইটারেজ জাহাজগুলোকে সতর্ক অবস্থানের মধ্যে থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

অর্থসূচক/দেবব্রত/এমই/

এই বিভাগের আরো সংবাদ