‘মার্চের মধ্যে প্রি-পেমেন্ট মিটার না লাগালে চাকরি থাকবে না’
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

‘মার্চের মধ্যে প্রি-পেমেন্ট মিটার না লাগালে চাকরি থাকবে না’

চট্টগ্রাম অঞ্চলের ৭ লাখ গ্রাহকের প্রি-পেমেন্ট মিটার লাগানোর কাজ শেষ করতে সময় বেঁধে দিলেন  বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ। আগামী ২০১৮ সালের মার্চ মাসের মধ্যে এই কাজ শেষ না হলে চিফ ইঞ্জিনিয়ারসহ সংশ্লিষ্টদের চাকরি থাকবে না বলে হুমকি দিয়েছেন তিনি।

আজ শুক্রবার চট্টগ্রামের আগ্রাবাদে বিদ্যুৎ ভবনে প্রি-পেমেন্ট মিটার কার্যক্রমের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে পিডিবির কর্মকর্তাদের এই সময় বেঁধে দেন।

এসময় ৩ বছরেও চট্টগ্রামে প্রি-পেমেন্ট মিটার প্রকল্প শেষ না হওয়ার জন্য পিডিবি কর্মকর্তাদের দায়ী করেন তিনি। তিনি বলেন, প্রকল্পটি আরও আগে শেষ হওয়ার কথা থাকলেও কর্মকর্তাদের সদিচ্ছার অভাবে তা হয়নি।

এসময় কর্মকর্তাদের উদ্দেশ্য করে প্রতিমন্ত্রী প্রশ্ন করে বলেন, আপনাদের কি সরকার ঠিক মতো বেতন দেয় না? নাকি বেতন কম দেয়? কাজের ক্ষেত্রে আপনাদের এত ধীর গতি কেন? শেখ হাসিনা বাংলাদেশকে যেখানে উন্নত রাষ্ট্র বানাতে আপ্রাণ চেষ্টা করে যাচ্ছেন সেখানে আপনারা মধ্যম আয়ের দেশের পড়ে থাকতে চান?

আগ্রাবাদে বিদ্যুৎ ভবনে প্রি-পেমেন্ট মিটার কার্যক্রমের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রতিমন্ত্রী প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ।

প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন, প্রি-পেমেন্ট মিটার প্রকল্পটি শেখ হাসিনার নিজের প্রকল্প। এই প্রকল্প বাস্তবায়ন হলে দেশের বিদ্যুৎ সমস্যার সমাধান এবং সিস্টেম লসের পরিমান কমে যেত। কিন্তু চট্টগ্রাম অঞ্চলে সিস্টেম লস ৫ শতাংশের মতো। কেন এই সিস্টেম লস হবে? কে কে দুর্নীতি করছেন? আপনারা তো আপনাদের কাজে ফেল করেছেন।

গত ৩ বছরে ৭ লাখ প্রি-পেমেন্ট মিটার লাগানোর কথা থাকলেও মাত্র ১ লাখ ৪ হাজার প্রি-পেমেন্ট মিটার লাগানো হয়েছে বলে তিনি জানান, আরও ৩৫ হাজার প্রি-পেমেন্ট মিটার আগামী ৪ মাসে লাগানো শেষ করবেন বলে জানিয়েছেন। তাহলে বাকি ৬ লাখ প্রি-পেমেন্ট মিটার আপনারা কি আরও ৬ বছর ধরে লাগাবেন?

প্রতিমন্ত্রী বলেন, পিডিবি কর্মকর্তাদের লাভ লোকসান দেখার কোন দরকার নেই। আপনাদের ভিশন দেখার দরকার নেই। লাভ, লস কিংবা ভিশন এগুলোর হিসাব সরকার দেখবে। আপনাদের কাজ হল যে কাজ আপনাদের করতে বলা হবে, আপনারা সাধারণ মানুষের কথা চিন্তা করে সেটা শতভাগ করার চেষ্টা করবেন। এই প্রকল্পের প্রি-পেমেন্টের বিষয়টি কিভাবে অনলাইনে করা যায় সেটা নিয়ে চিন্তা ভাবনা করেন।

এসময় বিদ্যু প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন, বিশ্বের বিভিন্ন দেশে সাব স্টেশন, ট্রান্সফরমার সহ অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা মাটির নিচে থাকে। বাংলাদেশ উন্নত রাষ্ট্রের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। সেখানে আমাদের ঐ সব স্থাপনা এখনো উপরে আছে। চলতি সরকারের মেয়াদেই এগুলো আন্ডার গ্রাউন্ডে নিয়ে যেতে কাজ শুরু করেন।

প্রি-পেমেন্ট মিটার। সংগৃহীত ছবি।

তিনি বলেন, চট্টগ্রামের সাব স্টেশন গুলোতে ময়লা আবর্জনায় ভরা। আগামী তিন মাসের মধ্যে এগুলো সব পরিস্কার পরিচ্ছন্ন করার পাশাপাশি মাঠ পর্যায়ে কাজ করার সময় নির্দিষ্ট পোশাকের ব্যবস্থা করেন। সবাই এক পোশাকে কাজ করবেন। যাতে কে কর্মকর্তা আর কে শ্রমিক বোঝা না যায়। বিভিন্ন পাওয়ার প্লান্টে আনসার দিয়ে খালি নিরাপত্তা জোরদার করে লাভ হবে না। এখানে ৩৬০ ডিগ্রি নিরাপত্তা দিতে হবে। পিডিবি কে ডিজিটাল করতে হবে। পাওয়ার স্টেশন গুলোকে শক্তিশালী করতে হবে। তবে সবথেকে বড় কাজটি হল কাস্টমার সার্ভিস, যেটা আপনারা সবথেকে কম গুরুত্ব দেন সেটাকে জোরদার করতে হবে।

জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন, বিপিডিসি দেশের মানুষের বিভিন্ন কাজের জন্য গবেষণা কিংবা ডেভেলাপমেন্টের ক্ষেত্রে কোন টাকা পয়সা খরচ করে না। একটা প্রতিষ্ঠান গবেষণা না করলে বুঝবে কিভাবে যে কোন কাজটা করতে হবে? আমরা বিপিডিসিকে হোল্ডিং কোম্পানি করার কথা ভাবছি। এতে করে মানুষের সেবা আরও বাড়বে। আমরা আগামী বছরের মধ্যে দেশের মানুষকে নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ উপহার দিতে চাই।

বিদ্যুৎ বিভাগের সচিব ড. আহমদ কায়কাউস বলেন, আমরা বিদ্যুৎ বিভাগে একটি রূপকল্প নিয়ে কাজ করছি। কিন্তু গত বছরে আমরা সেটা বাস্তবায়ন সম্পন্ন করতে পারিনি। এটার দায় আমার, তারপরও আমি দায় মাথায় নিয়ে কাজ করে যাচ্ছি। বর্তমানে আমাদের প্রি-প্রেমেন্ট প্রকল্পে সাড়া বাংলাদেশ ২ কোটি ৪৬ লাখ গ্রাহক আছে। যার মধ্যে আমরা মাত্র ১০ লাখ গ্রাহককে এই প্রকল্পের আওয়তায় আনতে পেরেছি। আশা করছি সরকারের  চলতি মেয়াদেই আমরা কাজটি শেষ করতে পারবো। জাতির প্রত্যাশা যেহেতু আমরা বাড়িয়েছি, সেজন্য দেশকে একটি উন্নত রাষ্ট্রে পরিণত করতে আমরা আপনারা সবাই মিলে কাজ করছি।

বক্তব্য শেষে ৪টি বিক্রয় ও বিতরণ বিভাগের প্রি-পেমেন্ট মিটারিং ভেন্ডিং স্টেশন, বিবিবি-আগ্রাবাদের প্রি-পেমেন্ট মিটারিং ভেন্ডিং স্টেশন ও বিবিবি-পাহাড়তলী প্রি-পেমেন্ট মিটারিং ভেন্ডিং স্টেশনের উদ্বোধন করেন প্রতিমন্ত্রী।

এসময়, বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের চেয়ারম্যান প্রকৌশলী খালেদ মাহমুদ, পিডিবি চট্টগ্রামের ভারপ্রাপ্ত প্রধান প্রবীর কুমার সেন সহ পিডিবি কর্মকর্তা-কর্মচারী ও প্রশাসনের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

অর্থসূচক/দেবব্রত/কাঙাল মিঠুন

এই বিভাগের আরো সংবাদ