ফ্লেমিঙ্গো, ফ্লেমিঙ্গো, এক পায়ে দাঁড়িয়ে...
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

ফ্লেমিঙ্গো, ফ্লেমিঙ্গো, এক পায়ে দাঁড়িয়ে…

‘তাল গাছ তাল গাছ/ এক পায়ে দাঁড়িয়ে/ সব গাছ ছাড়িয়ে/ উঁকি মারে আকাশে’ ছোটবেলায় বইতে পড়া এ সব ছড়ার সাথে যদিও ফ্লেমিঙ্গো পাখির সবটুকু মিল নেই তবুও এক দিকে বেশ মিল রয়েছে। দাঁড়ানোর জায়গায়। এরা বেশিরভাগ সময় এক পায়ে দাঁড়িয়ে থাকে। অনেকটা আমাদের দেশের বকের মতোই।

ফ্লেমিঙ্গোর পা সরু ও লম্বা, নিম্নমুখী ঠোঁট, লেজ খাটো, গলা লম্বা ও বক্রাকার। এদের উচ্চতা ৯০ থেকে ১৫০ সেন্টিমিটার পর্যন্ত। বছরের নির্দিষ্ট সময়ে এদের সবার শরীরের কিছু অংশ গোলাপী বর্ণ ধারণ করে। দলবদ্ধ স্বভাবের ফ্লেমিঙ্গোকে প্রায়ই উড়তে কিংবা নদী ও সমুদ্রতীরে বিচরণ করতে দেখা যায়। একেক দলে ১০০টিরও বেশি ফ্লেমিঙ্গো থাকে। বিভিন্ন ছোট ছোট প্রাণী, শামুক বা জলজ উদ্ভিদ এরা খাদ্য হিসেবে গ্রহণ করে।

বছরের নির্দিষ্ট সময়ে এদের সবার শরীরের কিছু অংশ গোলাপী বর্ণ ধারণ করে।

ফ্লেমিঙ্গোদের বেশির ভাগ সময় এক পায়েই দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা যায়। এর কারণ হিসেবে কোনও কোনও গবেষকের ধারণা ছিল, শরীরের তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণ করার জন্যই বোধহয় ফ্লেমিঙ্গোরা এক পায়ে দাঁড়ায়।

আটলান্টার জর্জিয়া ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজির (জর্জিয়া টেক) অধ্যাপক ইয়ং-হুই চ্যাং এবং আটলান্টার এমোরি ইউনিভার্সিটির লেনা এইচ টিং ফ্লেমিঙ্গোর এই এক পায়ে দাঁড়িয়ে থাকার রহস্য উদ্ধার করেছেন বলে বিবিসির একটি প্রতিবেদন সূত্রে জানা গেছে।

এক পায়ে দাঁড়ানোর সময় ফ্লেমিঙ্গোরা একটু পর পর পা বদলায়।

জীবিত ও মৃত, দুধরনের ফ্লেমিঙ্গো নিয়েই তাদের পরীক্ষা-নিরীক্ষা চালিয়েছে প্রমাণ করেছেন; এক পায়ে দাঁড়িয়ে থাকলে ফ্লেমিঙ্গোদের আলাদাভাবে কোনও শক্তি খরচ করতে হয় না। এক পায়ে দাঁড়ানোর সময় ফ্লেমিঙ্গোরা একটু পর পর পা বদলায়, গবেষকরা বলছেন মাসল ফ্যাটিগ বা পেশীর ক্লান্তি কাটানোর জন্যই এ কাজটি করে।

এই গবেষকরা রয়্যাল সোসাইটি জার্নাল বায়োলজি লেটার্সে প্রকাশিত এক গবেষণাপত্রে তারা এই পদ্ধতির নাম দিয়েছেন ‘প্যাসিভ গ্র্যাভিটেশনাল স্টে মেকানিজম’।

অর্থসূচক/তাবাচ্ছুম/কাঙাল মিঠুন

এই বিভাগের আরো সংবাদ