পানের গুণগান
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

পানের গুণগান

জামাইকে ঠকানোর জন্য বুদ্ধিমতী সরসী শাশুড়ি নাকি বলতেন-

‘পান খাও রসিক জামাই কথা কও ঠারে,

পানের জন্ম হইলো কোন অবতারে

যদি না কইতে পার পানের জন্ম কথা

ছাগল হয়া খাও শেওড়া গাছের পাতা’।  অদ্ধৈত মল্ল বর্মণের  ‘তিতাস একটি নদীর নাম’ জীবনভিত্তিক উপন্যাসটিতে আদতেই এ ঘটনা ঘটেছিলো কি না তা সম্পর্কে নিশ্চিত না হলেও জনপ্রিয় গান ‘পান খাইয়া ঠোঁট লাল করিলাম, বন্ধুভাগ্য হইলো না’ কিংবা চট্টগ্রামের সেই বিখ্যাত আঞ্চলিক গান ‘বক্সিরহাটর পানর খিলি তারে বানাই হাওয়াইতাম’ গানটি আজও আমাদেরকানে বাজে।

‘বক্সিরহাটর পানর খিলি তারে বানাই হাওয়াইতাম’

আমাদের উপমহাদেশে পান খাওয়ার ঐতিহ্য  নতুন না হলেও ঠিক কবে থেকে চালু হয়েছিল তা বলা মুশকিল। পূর্বে রীতি বা ঐতিহ্য হিসেবে গ্রামাঞ্চলে আজও পানের ব্যবহার দেখা যায়। অতিথি আপ্যায়নে কিংবা সামান্য মিষ্টিমুখের পরপরই যা বাকি থাকে তা হলো পান। তবে হাল আমলে ফ্যাশন হিসেবে বড় ও নামি-দামি রেস্তোরাঁগুলোতেও পান দিতে দেখা যায়।

পান একটি চিরহরিৎ লতানো উদ্ভিদ বিশেষ। গাছটির হৃদয় আকৃতির চকচকে সবুজ, ঝাঁঝাঁলো পাতাই ব্যবহার করা হয়। অনেকে ঘরের সৌন্দর্য বৃদ্ধির জন্যও পান গাছ লাগিয়ে থাকেন। এমনিতে প্রাকৃতিকভাবে জন্মালেও বাণিজ্যিকভাবে পানের উৎপাদন বা ফলন সবচেয়ে বেশি হয় দক্ষিণ ও দক্ষিণপূর্ব এশিয়ায়। পান পাতায় রয়েছে পর্যাপ্ত পরিমাণে ভিটামিন-সি, থায়ামিন, নায়াসিন, রিবোফ্লাভিন, ক্যারোটিন এবং ক্যালসিয়াম। পাশাপাশি সর্বাধিক স্বাস্থ্য সুবিধাও পাবেন। আজ পান নিয়ে কিছু কথা জানাচ্ছে অর্থসূচক-

পান একটি লতানো জাতীয় উদ্ভিদ।

ডায়াবেটিস চিকিৎসায়: পান পাতায় থাকা উপাদান রক্তে শর্করার পরিমাণ কমায়। ফলে এটি ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য বেশ উপকারী।

হজম বাড়ায়: পানের রস হজম শক্তি বাড়াতে সাহায্য করে।

ওজন কমায়: ওজন কমাতে কার্যকর ভূমিকা রাখে পান। এটি শরীরের চর্বি কমায় এবং বিপাক প্রক্রিয়ার হার বৃদ্ধি করে।

ক্যানসার প্রতিরোধ: মুখের ক্যানসারের জন্য দায়ী কার্সিনোজেন প্রতিরোধ এবং মুখের লালায় থাকা অ্যাসকরবিক অ্যাসিড নিয়ন্ত্রণে সহায়তা করে পান পাতা। তার জন্য ১০ থেকে ১২টি পান পাতা কয়েক মিনিট সেদ্ধ করুন। সেদ্ধ পানিতে পরিমিত মাত্রায় মধু মিশিয়ে নিন। মধু মিশ্রিত পানি নিয়মিত পান করুন। মুখের ক্যানসারের ঝুঁকি কমে যাবে।

ক্ষত সারাতে: পান পাতা ক্ষত বা জখম সারাতে দারুণ কাজ করে। আক্রান্ত স্থানের পান পাতার রস ব্যবহার করলে দ্রুত উপশম হয়। তাছাড়া, ফোঁড়া থাকলেও পান পাতার রস ব্যবহার করলে উপকার পাবেন।

সুপ্রাচীনকাল থেকে অতিথি আপ্যায়নে পান ব্যবহৃত হয়ে আসছে।

মাথা ব্যথা নিরাময়: বিভিন্ন ধরনের মাথা ব্যথা নিরাময়ে চমৎকার কাজ করে পান পাতা। পানে রয়েছে শীতলকারী উপাদান। মাথা ব্যথা তাৎক্ষণিক উপশমে সহায়তা করে। একটি বা দুটি পান পাতা অল্প পানিতে সেদ্ধ করুন। সেদ্ধ করা পানির সঙ্গে সামান্য কর্পূর মিশিয়ে কপালের চারপাশে ব্যবহার করুন। দ্রুত মাথা ব্যথা কমবে।

যৌনাকাঙ্খা বাড়ায়: সেক্স লাইফেও পানের মহিমা অপরিসীম। পান খেলে যৌনাকাঙ্খা বাড়ে। তাই আগেকার দিনে বাসর রাতে নতুন দম্পতিকে নানা মশলার আয়োজনে পান খাওয়ানোর রেওয়াজ ছিল।

ক্ষত নিরাময়ে: পান পাতায় অ্যান্টিব্যাক্টেরিয়াল রাসায়নিক থাকে। তাই পান পাতা বেটে ক্ষতস্থানে দিলে দ্রুত নিরাময় সম্ভব। পান পাতা ব্যবহার করলে সংক্রমণের ভয়ও থাকে না। পানের বেদনানাশক গুণ থাকায় ব্যথা থেকে মুক্তি মেলে।

মুখের রোগে: পান খেলে মুখের দুর্গন্ধ থাকে না। পান মুখের ভিতরের অ্যাসকরবিক অ্যাসিডের স্তর স্বাভাবিক থাকে। ‌যার ফলে বিভিন্ন রোগ দূরে থাকে। পান খেলে দাঁত পরিষ্কার হয়। ফলে দাঁতে ক্ষয়ের সম্ভাবনা থাকে না। তবে চুন, সুপারির কারণে লালচে ভাব হলে দাঁত ব্রাশ করা উচিত।

পান স্বাস্থ্যের জন্য উপকারীও বটে।

অস্থি সন্ধির ব্যথা নিরাময়ে: বাতের ব্যথা দূর করতে বিশেষ উপকারী ভূমিকা গ্রহণ করতে পারে পান। পান থেঁতো করে একটা কাপড়ের পুটলিতে ভরে গরম পানিতে ওই পুঁটলি ডুবিয়ে ব্যথা জায়গায় সেঁক দিলে উপশম হবে।

পেটের ব্যথা দূর করতে: পেটে ব্যথা বা কোষ্টকাঠিন্য হলে পান পাতার ওপর নারকেল তেল লাগিয়ে মোমবাতির ওপর ধরুন। এবার পেটে সেঁক দিন।

গলা খুসখুস কমাতে: গলা খুসখুস করলে পান পাতার ৫ মিলিলিটার রস এক গ্লাস গরম পানিতে মিশিয়ে আস্তে আস্তে পান করলে খুসখুস কমে যাবে।

সতর্কতাঃ

-পানের সাথে চুন, জর্দা, খয়ের খাওয়া স্বাস্থের জন্য খুব ক্ষতিকর।

-সব সময় ভরা পেটে বা খাওয়ার পর পান খাওয়া উচিত।

-শিশুদের ও অন্তঃসত্ত্বা মহিলাদের পান না খাওয়াই উত্তম।

-বেশি মাত্রার পান খেলে মুখে আলসারের সম্ভাবনা দেখা দেয়।

অর্থসূচক/সাদিয়া/কাঙাল মিঠুন

এই বিভাগের আরো সংবাদ