বনানীর 'ধর্ষকের' মুক্তি চেয়ে ইমামের পলায়ন!
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

বনানীর ‘ধর্ষকের’ মুক্তি চেয়ে ইমামের পলায়ন!

বনানীর রেইনট্রি হোটেলে দুই তরুণীকে ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেপ্তার হওয়া ব্যক্তিদের মুক্তি চেয়ে মোনাজাত করা হয়েছে বলে কক্সবাজারের এক ইমামের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে। ওই ইমাম আপন জুয়েলার্সকে রক্ষায় জন্যও আল্লাহর রহমত কামনা করেন।

ঘটনাটি ঘটে গতকাল শুক্রবার (১৯ মে) জেলা শহরের বইল্লাপাড়ার বায়তুশ শরফ জামে মসজিদে। এ ঘটনায়  জুমার নামাজে আসা লোকজন তাৎক্ষণিকভাবে ক্ষোভ প্রকাশ করে এর ব্যাখ্যা চাইলে ইমাম রিদুয়ানুল হক দ্রুত পালিয়ে যান।

RainTree Dhaka

বনানীর দ্য রেইন ট্রি হোটেল।

কক্সবাজার শহরে সুপরিসর তিন তলাবিশিষ্ট বায়তুশ শরফ জামে মসজিদে জুমার নামাজ পড়তে প্রতি শুক্রবার কয়েক হাজার মুসল্লি জমায়েত হন। এ ঘটনার পর মুসল্লিরা ক্ষোভে ফেটে পড়েন।

স্থানীয় সংবাদমাধ্যমের খবর অনুসারে, শুক্রবার জুমার নামাজের পর করা মোনাজাত শেষে এই নিয়ে মুসল্লিদের মাঝে উত্তেজনা দেখা দেয়। পরে মুসল্লিদের তোপের মুখে বায়তুশ শরফ কমপ্লেক্সের মহাপরিচালক সিরাজুল ইসলাম ও মসজিদের ইমাম রিদুয়ানুল হক মসজিদ এলাকা থেকে সবার অজান্তে সরে পড়েন।

জানা গেছে ওই দিন নামাজের শেষে মোনাজাতে উপস্থিত সবার নামাজ কবুল ও দেশের মঙ্গল কামনার পাশাপাশি হঠাৎ আপন জুয়েলার্সের দুর্গতির কথা উল্লেখ করে ব্যবসা স্বাভাবিক করতে এবং প্রতিষ্ঠান মালিকের কারান্তরীণ ছেলের মুক্তির জন্য আল্লাহর বিশেষ রহমত কামনা করেন।

ইমামের এই মোনাজাতে তাৎক্ষণিকভাবে মুসল্লিরা এক অপরের মুখের দিকে তাকান। মোনাজাত শেষ হওয়ার পরপরই মুসল্লিরা এ ঘটনায় হট্টগোল শুরু করে।

মুসল্লিদের দাবি, জুমার নামাজ শেষে মোনাজাত শুরুর আগ মুহূর্তে বায়তুশ শরফ কমপ্লেক্সের মহাপরিচালক সিরাজুল ইসলাম এগিয়ে গিয়ে রিদুয়ানুল হকের কানে কানে কিছু একটা বলেন। এরপরই মোনাজাতে বনানীতে দুই ছাত্রী ধর্ষণে জড়িতদের মুক্তি ও আপন জুয়েলার্সের জন্য দোয়া করা হয়।

কক্সবাজার শহরে সুপরিসর তিন তলাবিশিষ্ট বায়তুশ শরফ জামে মসজিদে জুমার নামাজ পড়তে প্রতি শুক্রবার কয়েক হাজার মুসল্লি জমায়েত হন। এ ঘটনার পর মুসল্লিরা ক্ষোভে ফেটে পড়েন।

জুমার নামাজে মসজিদে ধর্ষক ও তাদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের জন্য দোয়া চাওয়া নিয়ে এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে। এলাকাবাসী ওই ইমামকে মসজিদে ঢুকতে না দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন।

টি

এই বিভাগের আরো সংবাদ