অস্ট্রিয়ার ভ্যামেডের সঙ্গে ইম্পেরিয়াল হাসপাতালের চুক্তি
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

অস্ট্রিয়ার ভ্যামেডের সঙ্গে ইম্পেরিয়াল হাসপাতালের চুক্তি

বন্দরনগরী চট্টগ্রামে নির্মাণাধীন বেসরকারি চিকিৎসাসেবা প্রতিষ্ঠান ইম্পেরিয়াল হাসপাতাল পরিচালনার জন্য অস্ট্রিয়ার বিখ্যাত ভ্যামেড (ভিএএমইডি) হেলথ কেয়ার ম্যানেজমেন্টের চুক্তি সই হয়েছে।

আজ শনিবার দুপুরে নগরীর পাহাড়তলী চক্ষু হাসপাতালের পাশে নির্মিতব্য ইম্পেরিয়াল হাসপাতালে এই চুক্তি হয়। ইম্পেরিয়ালের পক্ষে ব্যবস্থাপনা পরিচালক আমজাদুল ফেরদৌস চৌধুরী ও ভ্যামেডের পক্ষে ম্যানেজিং ডিরেক্টর ক্রিস্টোফ উইগল চুক্তিতে সই করেন।

imperialইম্পেরিয়ল হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, হাসপাতাল পরিচালনার জন্য অস্ট্রিয়ার বিখ্যাত ভ্যামেড (ভিএএমইডি) হেলথ কেয়ার ম্যানেজমেন্টের সঙ্গে ৫ বছর মেয়াদে চুক্তি হয়েছে। এই চুক্তির ফলে ইম্পেরিয়াল হাসপাতাল পরিচালনার ক্ষেত্রে যাবতীয় পরামর্শ দেবে বিদেশি ওই প্রতিষ্ঠানটি।

ইম্পেরিয়ালের বোর্ড চেয়ারম্যান ডা. রবিউল হোসেন বলেন, সব কিছুর জন্যই ঢাকা কেন্দ্রীয় পড়ে পড়ছে দেশের মানুষ। বাংলাদেশের চিকিৎসাও বলতে গেলে ঢাকা কেন্দ্রীক হয়ে পড়েছে। দেশের উচ্চ আয়ের মানুষরা চিকিৎসার জন্য ভারত বা সিঙ্গাপুরে পাড়ি জমান। আর মধ্য এবং নিম্ন আয়ের মানুষরা ভালো চিকিৎসা সেবা পান না। সবার জন্য সুষ্ঠু এবং উন্নত চিকিৎসা নিশ্চিত করতেই চট্টগ্রামের এই হাসপাতাল প্রতিষ্ঠা করছি আমরা।

তিনি আরও বলেন, ভূমিকম্প নিরোধক প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে তৈরি করা হচ্ছে এই হাসপাতালের ভবন। ৬ লাখ বর্গফুটের এই হাসপাতালে ৮৮টি সিঙ্গেল, ৭৬ ডাবল কেবিন (কক্ষ), ১৪টি অস্ত্রোপচার কক্ষ, ৭৫টি ক্রিটিক্যাল কেয়ার বেড, ৫২টি কন্সালটিং রুম, রোগীর স্বজনদের থাকার জন্য ৪০টি রুম, ২৭১ জন থাকার ডরমেটরি থাকছে। সাত একর জমিতে গড়ে তোলা দৃষ্টিনন্দন বিশেষায়িত এই হাসপাতালে ৩৫০টি শয্যা থাকবে। চলতি বছরের শেষদিকে ২০০ শয্যা নিয়ে চিকিৎসা সেবা কার্যক্রম শুরু হবে।

ডা. রবিউল হোসেন বলেন, মানুষের লাইফস্টাইলের কারণে এই জনপদে ক্যান্সার ও কিডনির বিভিন্ন রোগের ঝুঁকি বাড়ছে। তাই হাসপাতালে এই দুই সেবা সম্প্রসারণের লক্ষ্যে পৃথক জমি বরাদ্দ করা হয়েছে।

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক প্রকৌশল পরামর্শক প্রতিষ্ঠান কেএমডির স্থাপত্য নকশায় ভ্যামেডের পরিকল্পনা, প্রযুক্তি ও প্রকৌশল সহযোগিতায় ইম্পেরিয়াল হাসপাতালটি গড়ে তোলা হচ্ছে। দুই বছরের বেশি সময় ধরে ইঞ্জিনিয়ারিং, বায়োমেডিকেল ও ইনফরমেশন টেকনোলজি নিরীক্ষা করে যন্ত্রপাতি নির্বাচন, রক্ষণাবেক্ষণ ও সংযোজনের কাজ চলছে। এখানে জরুরী বিভাগ, গুরুতর রোগীদের দ্রুত ও নিরাপদ স্থানান্তরের জন্য লাইফ সাপোর্ট সেবাযুক্ত অ্যাম্বুলেন্স এবং হেলিপ্যাড সুবিধা থাকবে। এছাড়া দূরবর্তী রোগীর স্বজনদের জন্য হাসপাতালে রাখা হয়েছে সীমিত আবাসন সুবিধা।

চুক্তি সই অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন দৈনিক আজাদী সম্পাদক ও ইম্পেরিয়ালের পরিচালক এম.এ. মালেক, প্রকল্প পরিচালক ইঞ্জিনিয়ার স্ট্রোমেয়ার, ইনটেরিয়র ডিজাইনার মিসেস ক্রিস্টা স্ট্রোমেয়ার প্রমুখ।

অর্থসূচক/দেবব্রত/এমই/

এই বিভাগের আরো সংবাদ