ভাইস-চেয়ারম্যানের বক্তব্য ভিত্তিহীন: ইসলামী ব্যাংক চেয়ারম্যান
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

ভাইস-চেয়ারম্যানের বক্তব্য ভিত্তিহীন: ইসলামী ব্যাংক চেয়ারম্যান

ইসলামী ব্যাংক ফের স্বাধীনতা বিরোধীদের নিয়ন্ত্রণে চলে গেছে বলে ভাইস-চেয়ারম্যান সৈয়দ আহসানুল আলম পারভেজের অভিযোগকে ভিত্তিহীন বলে দাবি করেছেন ব্যাংকটির চেয়ারম্যান আরাস্তু খান।

আরাস্তু খান- ফাইল ছবি

তিনি বলেছেন, সৈয়দ আহসানুল আলম পারভেজ চাইলে নিজে থেকে পদত্যাগ করতে পারেন। তার থাকা বা পদত্যাগ নিয়ে ব্যাংকের ভেতর থেকে তার উপর কোনো চাপ নেই।

তিনি আজ বৃহস্পতিবার মতিঝিলের ইসলামী ব্যাংক টাওয়ারে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, ভাইস চেয়ারম্যান যে কথা ফেসবুকে লিখেছেন তার কোনো ভিত্তি নেই।

ইসলামী ব্যাংক চেয়ারম্যান বলেন, স্বাধীন পরিচালক হিসেবে যদি উনি (ভাইস চেয়ারম্যান) নিজে পদত্যাগ করেন সেক্ষেত্রে আমাদের কিছু করার নেই। এটা আমার ব্যাপার না। তার থাকা বা পদত্যাগ নিয়ে ব্যাংকের ভেতর থেকে কোনো চাপ নেই।

সৈয়দ আহসানুল আলম পারভেজের ফেসবুক স্ট্যাটাস সম্পর্কে তিনি বলেন, এই স্ট্যাটাস দেয়ার পরে আমি তাকে ফোন করেছিলাম। আমি তাকে বলেছিলাম, আপনি একটু ওয়েট করতে পারতেন। আমি ৫ ঘন্টা পরে দেশে ফিরবো। পরে যখন তাকে বোর্ড মিটিংয়ে ডাকা হলো, তখন তিনি বলেছেন, তাকে পদত্যাগ করতে ফোর্স করা হচ্ছে। কে বলেছে, সেটা আমাকে বলেননি। এ বিষয়ে আমরা বাংলাদেশ ব্যাংককে জানিয়েছি।

আরস্তু খান বলেন, আমরা এখানে ভালো কিছু করতে এসেছি। সবাই কিন্তু অনেক সৎ। এমনকি তিনিও (ভাইস চেয়ারম্যান)। কিন্তু, আমি জানি না। তিনি কেন এগুলো করেছেন। সরকার, ব্যাংক, বোর্ড এবং এই ম্যানেজমেন্টের ভাবমূর্তি নষ্ট করার কোনো অধিকার তার নাই।

এক প্রশ্নের জবাবে ইসলামী ব্যাংক চেয়ারম্যান বলেন, তিনি (ভাইস চেয়ারম্যান) বলেছেন, তাকে বাইরের কেউ ফোর্স করছে। ব্যাংকের কেউ বলেছে সেটা তিনি দাবি করেননি।

সম্প্রতি ইসলামী ব্যাংকের যাকাত ফান্ড নিয়ে যে সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে তা ভিত্তিহীন এবং অসত্য বলে দাবি করেছেন আরস্তু খান। সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেছেন, গত ৩৪ বছরে ইসলামী ব্যাংকের মোট যাকাত ৩৪৭ কোটি টাকা। যা থেকে ১৭৪ কোটি টাকা বিতরণ করা হয়েছে এবং ট্যাক্সের জন্য কিছু টাকা রাখা আছে। এই টাকা বাদ দিলে যে টাকা আছে তা মাত্র ২৮ কোটি। তবে কিছু সংবাদ মাধ্যমে এসেছে ৪৫০ কোটি টাকা প্রধানমন্ত্রীর যাকাত ফান্ডে প্রদান করা হবে। আমাদের বোর্ড মিটিংয়ে এ ধরণের কোনো কথাই হয়নি।

তিনি বলেন, পত্রিকায় এটা প্রকাশিত হওয়ার পর প্রধানমন্ত্রীর অফিস থেকে আমাকে ডাকা হয়েছে। এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে আমার ৪০ মিনিট কথা হয়েছে। আমাদের যাকাত ফান্ডে যেখানে মাত্র ২৮  কোটি টাকা আছে সেখানে আমরা কীভাবে ৪৫০ কোটি টাকা প্রধানমন্ত্রীর যাকাত ফান্ডে দিবো?

উল্লেখ, গত বৃহস্পতিবার নিজের ফেসবুক প্রোফাইলে দেওয়া এক স্ট্যাটাসে সৈয়দ আহসানুল আলম পারভেজ লিখেন,  অশুভ শক্তির ইশারায় আমার শত চেষ্টার পরেও ইসলামী ব্যাংকে রাষ্ট্র বিরোধী শক্তি পুনর্বাসিত হয়েছে এবং জাতির পিতার খুনীদের সাথে সংশ্লিষ্টরা ফিরে আসছেন নেতৃত্বে। আগামী বছর এই ব্যাংকটিকে রাষ্ট্রবিরোধী কাজে ব্যবহার করার নীল নকশা সম্পাদন হচ্ছে।

একটি অনলাইন পোর্টালে তিনি আরও স্পষ্ট ও দৃঢ়ভাবে এ অভিযোগ করেছেন। তিনি বলেছেন,  ইসলামী ব্যাংক আবারও স্বাধীনতাবিরোধীদের হাতে চলে গেছে।

আজকের সংবাদ সম্মেলনে ব্যাংকটির অন্যান্য ঊর্ধতন কর্মকর্তা উপস্থিত থাকলেও সৈয়দ আহসানুল আলম পারভেজ উপস্থিত ছিলেন না।

অর্থসূচক/মেহেদী/টি

এই বিভাগের আরো সংবাদ