২৩ মে পর্যন্ত সময় পেল আপন জুয়েলার্স
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

২৩ মে পর্যন্ত সময় পেল আপন জুয়েলার্স

জব্দ করা স্বর্ণ-ডায়মন্ডের স্বপক্ষে বৈধ কাগজপত্র দেখাতে আপন জুয়েলার্সকে আগামী ২৩ মে পর্যন্ত সময় দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ড. মইনুল খান।

তিনি জানান, যেসব গ্রাহক স্বর্ণ রিপেয়ার করার জন্য শো-রুমে রেখেছেন গ্রাহকের বৈধ কাগজপত্র দেখানোর শর্তে আগামী ২২ মে দুপুর ২টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত  সেসব স্বর্ণ ফেরত দেওয়া হবে।

Apon Jewellers

আপন জুয়েলার্সের বিক্রয়কেন্দ্রে কাস্টমস গোয়েন্দা বিভাগের অভিযান।

আজ বুধবার বিকেলে রাজধানীর আইডিইবি ভবনে শুল্ক গোয়েন্দার সদর দপ্তরে আপন জুয়েলার্সের ৫টি শো-রুমের মালিক তিন ভাইকে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে সাংবাদিকদের তিনি এসব কথা জানান।

এর আগে সকাল সাড়ে ১১টায় জব্দ করা স্বর্ণ-ডায়মন্ডের পক্ষে জবাব দিতে শুল্ক গোয়েন্দায় হাজির হন আপন জুয়েলার্সের মালিক দিলদার আহমেদ, গুলজার আহমেদ ও আজাদ আহমেদ।

মহাপরিচালক বলেন, তিন ভাই জিজ্ঞাসাবাদে লিখিত ও মৌখিক জবাব দিয়েছেন। তারা কিছু প্রশ্নের জবাব দিয়েছেন, কিছু দিতে পারেননি। যেসব প্রশ্নের জবাব দিয়েছেন তা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হচ্ছে। যেসব প্রশ্নের জবাব দিতে পারেননি ন্যায়বিচারের স্বার্থে তার জবাব দিতে সময় দেওয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, জিজ্ঞাসাবাদে তিনজন জানিয়েছেন, শো-রুমে কাগজপত্র রয়েছে। সময় দিলে তথ্য দিতে পারবেন। তবে আজ তারা কোনো বৈধ কাগজপত্র দিতে পারেননি।

ড. মইনুল খান বলেন, আপন জুয়েলার্সে কর্তৃপক্ষকে আগামী ২৩ মে সকাল ১১টা পর‌্যন্ত সময় দেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে প্রমাণাদি দাখিল করতে পারলে স্বসম্মানে তাদের স্বর্ণ-ডায়মন্ড ফেরত দেওয়া  হবে। আর যদি ব্যর্থ হন তাহলে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

তিনি বলেন, জিজ্ঞাসাবাদে তিন ভাই দাবি করেছেন, কিছু গ্রাহক স্বর্ণ রিপেয়ার করার জন্য শো-রুমে দিয়েছেন। এসব স্বর্ণ তাদের না। আমরা তাদের বক্তব্য আমলে নিয়ে বলেছি, যেসব গ্রাহক স্বর্ণ রিপেয়ার করার জন্য দিয়েছে তা যদি অক্ষত অবস্থায় থাকে আর গ্রাহকের কাছে কাগজপত্র থাকে তাহলে সেগুলো  ফেরত দেওয়া হবে।

জব্দ করা স্বর্ণ প্রায় ৪৯৮ কেজি বা সাড়ে ১৩ মণ। এর মধ্যে রিপেয়ার করা স্বর্ণের পরিমাণ ৫ থেকে সর্বোচ্চ ১০ কেজি । বাকি স্বর্ণের বৈধ কাগজপত্র বা উৎস সম্পর্কে জিজ্ঞাসাবাদে তিন ভাই কিছুই জানাতে পারেননি বলে জানান মহাপরিচালক।

তিনি বলেন, ১৮ মে দুপুর ২টায় সিলগালা করা শো-রুম থেকে কাগজপত্রের ফটোকপি নেওয়ার জন্য খোলা হবে। ২২ মে সোমবার দুপুর ২টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত শো-রুমে খুলে রিপেয়ার করা স্বর্ণ ফেরত দেওয়া হবে। রিপেয়ার করা স্বর্ণ ফেরত দেওয়া হলে গ্রাহকের প্রতি ন্যায় বিচার করা হবে।

 

আপন জুয়েলার্স ছাড়া অন্য কোনো জুয়েলারি শো-রুমের স্বর্ণ অবৈধ কিনা বা সেখানে অভিযান চালানো হয়নি কেন এমন প্রশ্নের জবাবে মহাপরিচালক বলেন, সুনির্দিষ্ট অভিযোগের ভিত্তিতে আপন জুয়েলার্সে অভিযান হয়েছে। সম্প্রতি ডার্টি মানি আর আগের ফাইন্ডিং থেকে এ শো-রুমে অভিযান। অন্য শো-রুমের বিরুদ্ধে সুনির্দিষ্ট তথ্য পেলে যাচাই-বাছাই করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আপন জুয়েলার্সের বায়তুল মোকারম দুইটি শাখা রয়েছে সেখানে কেন অভিযান চালানো হয়নি এ প্রশ্নের জবাব তিনি বলেন, আপন জুয়েলার্সসহ আরও কয়েকটি প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে অস্বচ্ছতার আগে থেকেই অভিযোগ ছিল। আমরা বিভিন্নভাবে যাচাই-বাছাই করেছি। এরপরে ডার্টি মানি ব্যবহারের অভিযোগ আসার পরপরই আমরা অভিযান করেছি। আপন জুয়েলার্স ছাড়া কোনো জুয়েলারির বিরুদ্ধে অভিযোগের সত্যতা পেলে একই ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তবে আপন জুয়েলার্সের বায়তুল মোকাররমের দুইটি শাখার বিরুদ্ধে অভিযোগ নেই। যাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ তাদের শো-রুমে আমরা গিয়েছি।

ড. মইনুল খান বলেন, আপন জুয়েলার্সে ডার্টি মানির বিষয়ে আমাদের যে অনুসন্ধান তা প্রাথমিকভাবে প্রমাণিত হয়েছে।

তিনি বলেন, বাংলাদেশ জুয়েলারি সমিতির সঙ্গে আমাদের একাধিক বৈঠক হয়েছে।এখানে আতঙ্কের কিছু নাই। আপন জুয়েলার্সে সুনির্দিষ্ট অভিযোগের ভিত্তিতে অভিযান হয়েছে। অন্য ব্যবসায়ীদের আতঙ্কিত হওয়ার কোনো কারণ নেই।

তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশ ব্যাংককে চিঠি দেয়া হয়েছে। চোরাচালানের মাধ্যমে যেসব স্বর্ণ উদ্ধার ও আটক হয়েছে সেগুলো যেন দ্রুত নিলামে ওঠানো হয় এবং সেসব স্বর্ণ ব্যবসায়ীরা যাতে তা কিনতে পারেন তার ব্যবস্থা নিতে আমরা অনুরোধ করেছি। বৈধ স্বর্ণ আমদানির আবেদন দ্রুত নিষ্পত্তি করতেও চিঠি দেওয়া হয়েছে। এর মাধ্যমে স্বর্ণ আমদানি সহজতর হবে।

অর্থসূচক/রহমত

এই বিভাগের আরো সংবাদ