ঝিনাইদহের জঙ্গি আস্তানায় আবারও র‍্যাবের তল্লাশি
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

ঝিনাইদহের জঙ্গি আস্তানায় আবারও র‍্যাবের তল্লাশি

ঝিনাইদহ সদর উপজেলার চুয়াডাঙ্গা গ্রামে গতকাল মঙ্গলবার সকালে ঘেরাও করা বাড়ি দুইটিতে আজ বুধবার দ্বিতীয় দিনের মতো অভিযান চালানো হয়েছে। প্রায় ২ ঘণ্টা অভিযানের পর তল্লাশি শেষ ঘোষণা করেছে র‍্যাব।

তবে গতকাল উদ্ধার হওয়া সুইসাইড ভেস্টসহ অন্যান্য বোমা নিষ্ত্রিয় করার পরই অভিযান সমাপ্ত ঘোষণা করা হবে বলে জানিয়েছেন র‍্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক মুফতি মাহমুদ খান।

তিনি বলেন, গতকাল ওই দুই আস্তানার পাঁচটি স্থান থেকে দুইটি সুইসাইড ভেস্ট (আত্মঘাতী বন্ধনী), পাঁচটি শক্তিশালী বোমা, ১৮টি ডিনামাইট স্টিক, বোমা তৈরির ১৮৬টি পিভিসি সার্কিট, চার ড্রাম রাসায়নিক দ্রব্য ও একটি অ্যান্টিমাইন উদ্ধার করা হয়েছে। এরপর সন্ধ্যা ৬টার দিকে অভিযান স্থগিত করা হয়েছিল।

Zinaidah2

জঙ্গি আস্তানায় অভিযান।

মুফতি মাহমুদ খান বলেন, আজ সকাল পৌনে ৮টার দিকে চুয়াডাঙ্গার জঙ্গি আস্তানা দুইটি ঘিরে আবারও তল্লাশি অভিযান চালানো হয়েছে। তবে আর কিছুই পাওয়া যায়নি। বোমা নিষ্ক্রিয়কারী দল ঘটনাস্থলে কাজ করছে।

র‌্যাবের পরিচালক (অপারেশন) লেফটেন্যান্ট কর্নেল মাহমুদ, র‌্যাব-৬-এর কমান্ডিং অফিসার এডিশনাল ডিআইজি খন্দকার রফিকুল ইসলাম, ঝিনাইদহ র‌্যাবের অধিনায়ক মেজর মনির আহমেদ প্রমুখ ঘটনাস্থলে রয়েছেন।

মেজর মনির আহমেদ জানান, ঘটনাস্থল থেকে ২০০ গজের মধ্যে গত সোমবার ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছিল; তা আজও বলবৎ আছে। ২০০ গজের মধ্যে মধ্যে থাকা বাড়ির বাসিন্দাদের বাইরে চলাচলে নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়েছে।

প্রসঙ্গত, ঝিনাইদহে গত এক মাসের মধ্যে পাঁচটি জঙ্গি আস্তানার খোঁজ পেল আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী।

গত ২০ এপ্রিল সদর উপজেলার পোড়াহাটি গ্রামে আব্দুল্লাহ নামে ধর্মান্তরিত এক ব্যক্তির বাড়ি ঘিরে অভিযান চালায় আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী। দুই দিনের অভিযান শেষে ওই জঙ্গি আস্তানা থেকে ২০টি কেমিক্যাল কন্টেইনার, ৬টি বোমা, ৩টি সুইসাইড ভেস্ট, ৯টি সুইসাইড বেল্টসহ বিপুল পরিমাণ বিস্ফোরক ও বোমা তৈরির সরঞ্জাম উদ্ধার করা হয়। তবে সেখানে কাউকে পাওয়া যায়নি।

গত ৫ মে মহেশপুর উপজেলায় এক বাড়িতে পুলিশের অভিযানে নব্য জেএমবির দুই জঙ্গি নিহত হয়। আর সদর উপজেলার লেবুতলায় আরেক বাড়িতে পাওয়া যায় ৮টি বোমা ও একটি ৯ এমএম পিস্তল।

এর মধ্যেই ২৬ এপ্রিল চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জের আরেক জঙ্গি আস্তানার সন্ধান পাওয়া যায়। ওই অভিযানে চারজন নিহত হয়; ওই বাড়ি থেকে অস্ত্র ও সুইসাইড ভেস্ট পাওয়া যায়।

আর সর্বশেষ ১১ মে রাজশাহীর গোদাগাড়ীতে এক জঙ্গি আস্তানা ঘিরে পুলিশের অভিযানে এক পরিবারের ৫জন নিহত হয়। জঙ্গিদের হামলায় নিহত হয় ফায়ার সার্ভিসের এক কর্মী। ওই বাড়ি থেকে ১১টি বোমা ও একটি পিস্তল উদ্ধার করে পুলিশ।

অর্থসূচক/এমই/

এই বিভাগের আরো সংবাদ