ভৈরবে ইউপি চেয়ারম্যান আবু বকর ছিদ্দিক আর নেই
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » সর্বশেষ

ভৈরবে ইউপি চেয়ারম্যান আবু বকর ছিদ্দিক আর নেই

কিশোরগঞ্জের ভৈরব উপজেলার সাদেকপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি হাজী আবু বকর ছিদ্দিক আর নেই।

বৃহস্পতিবার রাতে ভৈরব শহরের উত্তর ভৈরবপুর (গাছতলাঘাট) এলাকায় নিজ বাসায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি ( ইন্নালিল্লাহি- —রাজিউন)।

মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিলো ৮৫ বছর। তিনি বার্ধক্যজনিত নানা জটিল রোগে ভুগছিলেন বলে অর্থসূচককে জানিয়েছেন তার ছেলে শাফায়েত উল্লাহ। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, ৪ ছেলে, ৩ মেয়েসহ অসংখ্য গুণাগ্রাহী রেখে গেছেন।

মরহুমের ১ম জানাজার নামাজ আজ শুক্রবার সকালে কমলপুর মাদ্রাসা মাঠে অনুষ্ঠিত হয়। পরে গ্রামের বাড়ি মোটুপী ঈদগাহ মাঠে মরহুমের দ্বিতীয় জানাজা শেষে মোটুপী কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়। তার মৃত্যুতে ভৈরব উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ্ব মো. সায়দুল্লাহ মিয়া, ভৈরব পৌরসভার মেয়র এডভোকেট ফখরুল আলম আক্কাছ, ভৈরব উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম সেন্টু শোক প্রকাশ করেছেন।

মরহুমের রুহের মাগফেরাত কামনাসহ শোকাহত পরিবারের প্রতি জানিয়েছেন গভীর সমবেদনা।

হাজী আবু বকর ছিদ্দিক ১৯৩২ সালের ২০শে মার্চ কিশোরগঞ্জ জেলার ভৈরব উপজেলার সাদেকপুর ইউনিয়নের মৌটুপী গ্রামের এক মুসলিম সম্ভ্রান্ত পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতা হাজী আব্দুল কাদির সাহেব ছিলেন দানবীর ও বিশিষ্ট ব্যবসায়ী। তার বাল্যকাল অতিবাহিত হয়েছে মৌটুপী গ্রামেই। হাজী আবু বকর ছিদ্দিক তৎকলীন শিক্ষাব্যবস্থায় পঞ্চম শ্রেণী পর্যন্ত পড়াশুনা করেন। পরে বাবার ইচ্ছায় ব্যবসার কাজে যুক্ত হোন। যুবক বয়সেই তিনি অন্যায়-অত্যাচারের বিরুদ্ধে প্রতিবাদী কন্ঠে রুখে দাঁড়াতেন। তিনি গরীব-দুঃখী মানুষের পাশে থেকে তাদের ন্যায্য অধিকার আদায়ে সোচ্চার ছিলেন। সেই মানসিকতা থেকে জনগণের কল্যাণে রাজনীতিতে প্রবেশ করেন। মুক্তিযুদ্ধের পূর্ব হতে ১৯৭৩সাল পর্যন্ত তিনি গ্রাম সরকারের দায়িত্ব পালন করেন। পরে তিনি বেশ কয়েকবার ইউপি সদস্য হিসেবে নির্বাচিত হয়ে দায়িত্ব পালন করেন। ২০০২ সালে তিনি সাদেকপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি নির্বাচিত হন। তিনি ন্যায়-নীতি ও সততার সাথে সভাপতির দায়িত্ব পালন করে দলীয় নেতা-কর্মীদের পাশাপাশি সাধারণ মানুষের মন জয় করতে সমর্থ্য হন। ২০০৩ সালে সাদেকপুর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে বিপুল ভোটে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। সততা ও ন্যায়ের সাথে একাধারে দীর্ঘ নয় বছর চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করেন।

২০১৬ সালে দেশের ইতিহাসে প্রথম দলীয় প্রতীকে অনুষ্ঠিত ইউপি নির্বাচনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী হয়ে নৌকা প্রতীকে দ্বিতীয়বারের মতো সাদেকপুর ইউপি’র চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন।

এই বিভাগের আরো সংবাদ