এফবিসিসিআই নির্বাচন: ভোটার তালিকায় কারসাজি
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

এফবিসিসিআই নির্বাচন: ভোটার তালিকায় কারসাজি

ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন বাংলাদেশ শিল্প ও বণিক সমিতি ফেডারেশনের (এফবিসিসিআই) ২০১৭-১৯ মেয়াদের নির্বাচনের ভোটার তালিকা নিয়ে জালিয়াতির অভিযোগ উঠেছে। এক সংগঠনের নামে অন্য সংগঠনকে ভোটার করা হয়েছে। সংশ্লিষ্ট সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

জানা গেছে, স্টিল বিল্ডিং ম্যানুফেকচারার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশকে (এসবিএমএ) চূড়ান্ত ভোটার তালিকা থেকে বাদ দিয়ে তাদের স্থলে একটি ইলেকট্রনিক্স অ্যাসোসিয়েশকে বসানো হয়েছে। এতে স্টিল বিল্ডিং সংগঠনটি তাদের প্রাপ্য অধিকার থেকে বঞ্চিত হয়েছে বলে মনে করছে।

এফবিসিসিআইয়ের লোগো

এ অবস্থায়, এসবিএমএ-এর পক্ষে এফবিসিসিআই নির্বাচন আরবিট্রেশন ট্রাইবুনালে বিষয়টি নিষ্পত্তির জন্য আপিল করা হয়। উদ্ভুত পরিস্থিতিতে নির্বাচনের পূর্বে পর্যাপ্ত সময় না থাকায় এবং আরবিট্রেশন নিষ্পত্তি না হওয়ার আশঙ্কায় সংগঠনটি সুপ্রিম কোর্টে রিট আবেদন করে।

বিষয়টি বিচারপতি যুবায়ের রহমান চৌধুরী ও বিচারপতি মো. ইকবাল কবিরের বেঞ্চে শুনানি হয়। শুনানির পরে এ বেঞ্চ এফবিসিসিআইয়ের আরবিট্রেশন ট্রাইবুনালকে আগামী ১১ মে এর মধ্যে বিষয়টি নিষ্পত্তির জন্য আদেশ দিয়েছে।

এ বিষয়ে এসবিএমএ সভাপতি আবু নোমান হাওলাদার অর্থসূচককে বলেন, আমাদের সংগঠনের স্থলে অন্য সংগঠনকে ভোটার করা হয়েছে। এতে করে আমরা প্রাপ্য অধিকার থেকে বঞ্চিত হয়েছি। ফলে ন্যায় বিচার পাওয়ার জন্য আদালতে গিয়েছি।

নির্ধারিত সময়ের মধ্যে যদি সমস্যার সমাধান না হয়, তবে নির্বাচন স্থগিত করার জন্য আদালতের শরণাপন্ন হবো বলে জানান তিনি।

বিষয়টি নিয়ে সভাপতি প্রার্থী শফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন অর্থসূচকে বলেন, এ ধরনের কোনো সমস্যা হয়ে থাকলে অবশ্যই তাদের ন্যায় বিচার পাওয়া উচিত।

উল্লেখ, এফবিসিসিআই হলো পণ্যভিত্তিক ৩৮০টি ব্যবসায়ী সংগঠন এবং ৮১টি চেম্বারের যৌথ সংগঠন। এসব ব্যবসায়ী সংগঠনের মনোনীত সদস্যরা ভোট দিয়ে এফবিসিসিআইয়ের পরিচালক নির্বাচন করেন।

অবশ্য ১২টি করে চেম্বার ও অ্যাসোসিয়েশনের একজন করে প্রতিনিধি মনোনীত পরিচালক হন। পরিচালকরা ভোট দিয়ে সভাপতি ও দুই সহসভাপতি নির্বাচন করেন। চেম্বারে ভোটার সংখ্যা ৪৫৪ জন এবং অ্যাসোসিয়েশনে ভোটার ১ হাজার ৮৮৭ জন।

১৪ মে এফবিসিসিআই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এতে চেম্বারের ১৮টি পদে বৈধ পরিচালক প্রার্থী ছিলেন ৩৪ জন। এদের মধ্যে ১৬ জন মনোনয়ন প্রত্যাহার করেন। সে হিসেবে চেম্বার গ্রুপে ভোট না হলেও অ্যাসোসিয়েশন গ্রুপের ১৮টি পরিচালক পদে সম্মিলিত গণতান্ত্রিক পরিষদ ও ব্যবসায়ী ঐক্য ফোরাম থেকে পরিচালক প্রার্থীরা নিজেদের মধ্যে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

অর্থসূচক/গিয়াস/শাহীন

এই বিভাগের আরো সংবাদ