'এই পুলিশের দরকার কী?'
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

‘এই পুলিশের দরকার কী?’

ঢাকার বনানীতে ২ শিক্ষার্থীকে ধর্ষণের ঘটনা তদন্তে পুলিশের গাফিলতি ও নিষ্ক্রিয়তা ছিল বলে মন্তব্য করেছেন জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান কাজী রিয়াজুল হক। তিনি বলেছেন, ‘দুই শিক্ষার্থী ধর্ষণের ঘটনার এক মাস পরও পুলিশ কোনো কিছু জানল না, তারা কোনো কিছু করতেই পারল না। তাহলে পুলিশের প্রয়োজনটা আমাদের কী জন্য?’

আজ মঙ্গলবার দুপুরের দিকে খুলনা জেলা প্রশাসকের সম্মেলনকক্ষে ‘ভলান্টারি ন্যাশনাল রিভিউ অন সাসটেইনেবল ডেভেলপমেন্ট গোলস’ শীর্ষক পরামর্শ সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এসব কথা বলেন।

জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান।

রিয়াজুল হক বলেন, অভিযোগ দায়েরের সঙ্গে সঙ্গে পুলিশ সক্রিয় হলে আসামিদের গ্রেপ্তার করা সম্ভব হতো। পুলিশ এখন বলছে আসামিদের পাওয়া যাচ্ছে না। এখনো যদি পুলিশ চেষ্টা করে তাহলে আসামিদের গ্রেপ্তার করা সম্ভব বলে মনে করেন তিনি।

বনানীর ঘটনা উল্লেখ করে রিয়াজুল হক বলেন, ‘এটা অত্যন্ত দুঃখজনক। তার চেয়েও বেশি দুঃখজনক মামলা নিতে পুলিশের দুই দিন লেগেছে।’ মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান বলেন, ৪৮ ঘণ্টা বিভিন্ন টালবাহানা করা হয়েছে। এটা সহ্য করার মতো নয়। বনানীর ঘটনায় পুলিশের নিষ্ক্রিয়তা ও গাফিলতি ছিল।

টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রার (এসডিজি) অগ্রগতিতে সন্তোষ প্রকাশ করে মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান বলেন, এসডিজির লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে জাতীয় মানবাধিকার কমিশন সরকারের সঙ্গে একত্রে কাজ করে যাচ্ছে। বাংলাদেশ এমডিজির আটটি লক্ষ্যমাত্রার মধ্যে বেশ কয়েকটি নির্দিষ্ট সময়ের আগেই অর্জন করে ফেলে।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক মোহাম্মদ ফায়েক উজ্জামান, ওয়ার্ল্ড ভিশন বাংলাদেশের পরিচালক চন্দন ডেজ গমেজ, খুলনা প্রেসক্লাবের সভাপতি এস এম হাবিব।

মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ওয়ার্ল্ড ভিশনের ডেপুটি ডিরেক্টর সাবিরা সুলতানা। জাতীয় মানবাধিকার সম্পর্কে উপস্থাপন করেন জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের সিনিয়র সহকারী পরিচালক (অভিযোগ ও তদন্ত) এম রবিউল ইসলাম। এতে সভাপতিত্ব করেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (এলএ) মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান।

আলোচনা সভায় বিভিন্ন সরকারি দপ্তরের কর্মকর্তা, এনজিও প্রতিনিধি, আইনজীবী, শিক্ষক, মুক্তিযোদ্ধাসহ বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

এই বিভাগের আরো সংবাদ