মাছ রপ্তানিতে আয় ৩৪৭৬ কোটি টাকা; চিংড়িতে ৮৩.৩১%
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

মাছ রপ্তানিতে আয় ৩৪৭৬ কোটি টাকা; চিংড়িতে ৮৩.৩১%

চলতি ২০১৬-১৭ অর্থবছরের জুলাই-এপ্রিল মেয়াদে হিমায়িত ও জীবিত মাছ রপ্তানিতে আয় হয়েছে ৪২ কোটি ৫০ লাখ ৯০ হাজার মার্কিন ডলার বা ৩ হাজার ৪৭৬ কোটি টাকা; যা এ সময়ের রপ্তানি লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ৩ দশমিক ০৮ শতাংশ কম। অর্থবছরের প্রথম ১০ মাসে শুধু চিংড়ি রপ্তানিতে আয় হয়েছে ৩৫ কোটি ৪২ লাখ ১০ হাজার মার্কিন ডলার; যা মোট হিমায়িত ও জীবিত মাছ রপ্তানি আয়ের ৮৩ দশমিক ৩১ শতাংশ।

বাংলাদেশ রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবি) মে মাসে প্রকাশিত হালনাগাদ প্রতিবেদন থেকে এই তথ্য জানা গেছে। এতে আরও জানানো হয়েছে, ২০১৫-১৬ অর্থবছরে হিমায়িত ও জীবিত মাছ রপ্তানিতে আয় হয়েছিল ৫৩ কোটি ৫৭ লাখ ৭০ হাজার মার্কিন ডলার। চলতি অর্থবছরে এই খাতের রপ্তানি লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ৫৪ কোটি ১০ লাখ মার্কিন ডলার। এর মধ্যে প্রথম ১০ মাসে ৪৩ কোটি ৮৬ লাখ মার্কিন ডলার রপ্তানি আয়ের লক্ষ্যমাত্রার বিপরীতে আয় হয়েছে ৪২ কোটি ৫০ লাখ ৯০ হাজার মার্কিন ডলার; যা লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ৩ দশমিক ০৮ শতাংশ কম।

shrimp Export

রপ্তানির জন্য প্রক্রিয়াজাত হচ্ছেে চিংড়ি মাছ।

ইপিবির হালনাগাদ প্রতিবেদন থেকে জানা গেছে, ২০১৫-১৬ অর্থবছরের জুলাই-এপ্রিল মেয়াদের তুলনায় চলতি অর্থবছরের একই মেয়াদে হিমায়িত ও জীবিত মাছ রপ্তানি আয় ৩ দশমিক ১০ শতাংশ কমেছে। ২০১৫-১৬ অর্থবছরের প্রথম ১০ মাসে এ খাতের পণ্য রপ্তানিতে আয় হয়েছিল ৪৩ কোটি ৮৭ লাখ ১০ হাজার মার্কিন ডলার।

২০১৬-১৭ অর্থবছরেরর প্রথম ১০ মাসে জীবিত মাছ রপ্তানিতে আয় হয়েছে ৬৩ লাখ ২০ হাজার মার্কিন ডলার; যা এই সময়ের লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ২২ দশমিক ০৭ শতাংশ কম। আলোচ্য সময়ে এই খাতে বৈদেশিক মুদ্রা আয়ের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছিল ৮১ লাখ ১০ হাজার মার্কিন ডলার। ২০১৫-১৬ অর্থবছরের জুলাই-এপ্রিল মেয়াদে জীবিত মাছ রপ্তানিতে আয় হয়েছিল ৬৫ লাখ ৩০ হাজার মার্কিন ডলার। অর্থাৎ আগের অর্থবছরের প্রথম ১০ মাসের তুলনায় চলতি অর্থবছরের প্রথম ১০ মাসে জীবিত মাছ রপ্তানি আয় ৩ দশমিক ২২ শতাশ কমেছে।

২০১৬-১৭ অর্থবছরের প্রথম ১০ মাসে হিমায়িত মাছ রপ্তানিতে আয় হয়েছে ৩ কোটি ৭৮ লাখ ২০ হাজার মার্কিন ডলার; যা এ সময়ের লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ২ দশমিক ৮৩ শতাংশ এবং আগের অর্থবছরের একই সময়ের তুলনায় ১০ দশমিক ৪৬ শতাংশ কম। ২০১৫-১৬ অর্থবছরের জুলাই-এপ্রিল মেয়াদে হিমায়িত মাছ রপ্তানিতে আয় হয়েছিল ৪ কোটি ২২ লাখ ৪০ হাজার মার্কিন ডলার।

চলতি অর্থবছরের জুলাই-এপ্রিল মেয়াদে চিংড়ি রপ্তানি আয়ের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছিল ৩৬ কোটি ৪৮ লাখ ৩০ হাজার মার্কিন ডলার। তবে এই সময়ে আয় হয়েছে ৩৫ কোটি ৪১ লাখ ১০ হাজার মার্কিন ডলার। যা লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ২ দশমিক ৯৪ শতাংশ কম। ২০১৫-১৬ অর্থবছরের প্রথম ১০ মাসে চিংড়ি রপ্তানিতে আয় হয়েছিল ৩৬ কোটি ৫১ লাখ ৫০ হাজার মার্কিন ডলার। অর্থাৎ বছরের ব্যবধানে চিংড়ি রপ্তানি আয় ৩ দশমিক ০২ শতাংশ কমেছে।

আলোচ্য সময়ে কাঁকড়া রপ্তানিতে আয় হয়েছে ১ কোটি ৭৪ লাখ ৬০ হাজার মার্কিন ডলার; যা এ সময়ের লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ১৩ দশমিক ৮৬ শতাংশ কম। ২০১৫-১৬ অর্থবছরে এ খাতের পণ্য রপ্তানিতে আয় হয়েছিল ১ কোটি ৮৫ লাখ ৯০ হাজার মার্কিন ডলার। অর্থাৎ বছরের ব্যবধানে কাঁকড়া রপ্তানি আয় ৬ দশমিক ০৮ শতাংশ কমেছে।

২০১৬-১৭ অর্থবছরের জুলাই-এপ্রিল মেয়াদে অন্যান্য হিমায়িত মাছ রপ্তানিতে আয় হয়েছে ৯৩ লাখ ৮০ হাজার মার্কিন ডলার; যা এ সময়ের রপ্তানি লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ৪৪ দশমিক ৫৩ শতাংশ বেশি। এর আগের ২০১৫-১৬ অর্থবছরের প্রথম ১০ মাসের তুলনায় এ খাতে চলতি অর্থবছরের একই সময়ের আয় ৫১ দশমিক ২৯ শতাংশ বেড়েছে। গত অর্থবছরে অন্যান্য হিমায়িত মাছ রপ্তানিতে আয় হয়েছিল ৬২ লাখ মার্কিন ডলার।

অর্থসূচক/এমই/

এই বিভাগের আরো সংবাদ