বন্দরের সক্ষমতা বাড়ানোর পরামর্শ বিশ্বব্যাংকের
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

বন্দরের সক্ষমতা বাড়ানোর পরামর্শ বিশ্বব্যাংকের

আন্তর্জাতিক বাণিজ্য ও কর্মসংস্থান বাজার আরও চাঙ্গা করতে বাংলাদেশকে বন্দরের সক্ষমতা বাড়ানোর পরামর্শ দিয়েছে বিশ্বব্যাংক। এক প্রতিবেদনে সংস্থাটি জানিয়েছে, বেসরকারি খাতের অংশগ্রহণের মাধ্যমে এটা করা যেতে পারে। এর মাধ্যমে উন্নয়ন ও প্রতিযোগিতা বৃদ্ধি পাবে। খবর জিনহুয়া।

বিশ্বব্যাংক আরও জানায়, গত দুই দশকে বাংলাদেশ ও দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি বেড়েছে। তবে হতাশার বিষয়, সে তুলনায় কন্টেইনার পোর্টের সক্ষমতা তেমন বাড়েনি। যা প্রবৃদ্ধির গতিকে বাধাগ্রস্ত করছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, শ্রীলঙ্কার মতো বাংলাদেশ, ভারত ও পাকিস্তান যদি তাদের সক্ষমতা বৃদ্ধি করতো, তবে এ দেশগুলোর শিপিং ব্যয় ৯ শতাংশ পর্যন্ত কমতো। এতে করে রপ্তানিও ৭ শতাংশ পর্যন্ত বাড়তো।

বিশ্বব্যাংকের বাংলাদেশ, ভুটান ও নেপালের কান্ট্রি ডিরেক্টর ফ্যান কিমিয়াও বলেন, বৈশ্বিক বাজারের একটি বড় অংশ ধরার সম্ভাবনা আছে বাংলাদেশের। এর জন্য দেশটির কন্টেইনার টার্মিনালের সক্ষমতা বাড়াতে হবে। দেশের শ্রমবাজার সংস্কার ও বাণিজ্য বৃদ্ধিতে একটি অন্যতম নিয়ামক।

সংস্থার বরাত দিয়ে খবরে বলা হয়, বেসরকারি খাতে বিনিয়োগ ও সংস্কারের মধ্য দিয়ে অর্থনীতিকে এগিয়ে নিচ্ছে ভারত, পাকিস্তান ও শ্রীলঙ্কা। এ ক্ষেত্রে বাংলাদেশ এখনো পিছিয়ে আছে। টার্মিনাল সেক্টরে ভারতীয় উপমহাদেশের মধ্যে কেবল বাংলাদেশই একমাত্র দেশ; যেখানে বেসরকারি খাত তেমন কার্যকরি ভূমিকা রাখতে পারেনি।

এস

এই বিভাগের আরো সংবাদ