শনিবার, অক্টোবর ৩১, ২০২০
Home App Home Page চীনা কোম্পানিই কিনছে শেভরনের সম্পদ

চীনা কোম্পানিই কিনছে শেভরনের সম্পদ

চীনা কোম্পানিই কিনছে শেভরনের সম্পদ

বাংলাদেশে শেভরনের মালিকানাধীন তিনটি গ্যাসক্ষেত্র শেষ পর্যন্ত চীনের একটি কোম্পানির কাছেই বিক্রির বিষয়ে সম্মত হয়েছে। আজ সোমবার বার্তা সংস্থা রয়টার্সের এক খবরে বলা হয়েছে, চীনা কোম্পানি হিমালয় এনার্জি শেভরনের মালিকানায় থাকা বাংলাদেশের ৩টি গ্যাস ক্ষেত্র কিনতে সম্মত হয়েছে। তবে কত টাকার বিনিময়ে এই বেচা-কেনা হচ্ছে তা কিছু জানায়নি রয়টার্স।

উল্লেখ, হিমালয় এনার্জি চীনের রাষ্ট্রায়ত্ত প্রতিষ্ঠান ঝেনহুয়া অয়েল ও হংকং ভিত্তিক বিনিয়োগ প্রতিষ্ঠান সিএনআইসি কর্পোরেশনের একটি কনসোর্টিয়াম।

কিছু দিন আগে রয়টার্সের এক খবরে বলা হয়েছিল, বাংলাদেশে থাকা শেভরনের সম্পদ ২০০ কোটি ডলারে কেনার বিষয়ে একটি প্রাথমিক চুক্তিতে সই করেছে শেভরন ও চীনের রাষ্ট্রায়ত্ত প্রতিষ্ঠান ঝেনহুয়া অয়েল। তখন ঝেনহুয়া অয়েল এর দুই জন নির্বাহী কর্মকর্তার বরাত দিয়ে খবরটি প্রচার করে রয়টার্স।

শেভরনের সঙ্গে এই চুক্তি হলে দক্ষিণ এশিয়ার কোনো দেশে এটিই হবে ঝেনহুয়া অয়েলের প্রথম বড় কোনো বিনিয়োগ।

ঝেনহুয়া অয়েলের মুখপাত্র ঝ্যাং শিয়াওদি রয়টার্সকে বলেছিলেন, যেহেতু প্রকল্পটি এখনো প্রক্রিয়াধীন এবং বাণিজ্যিক আলোচনার মধ্যে আছে। কোম্পানির কৌশলহেতু এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য করা যাচ্ছে না।

পেট্রোবাংলার তথ্য মতে ১৯৯৪ সালে সরকারের সঙ্গে উৎপাদদন অংশীদারিত্ব চুক্তির (পিএসসি) পর ২০১৫ সাল পর্যন্ত গ্যাস উত্তোলনে প্রতিষ্ঠানটি ব্যয় করেছে প্রায় ২৫০ কোটি ডলার।

বাংলাদেশে বর্তমানে মোট তিনটি ব্লকে গ্যাস উত্তোলনের দায়িত্বে আছে শেভরন। সম্মিলিতভাবে এ তিনটি ব্লকে এক বছরের ব্যবধানে শেভরনের বিনিয়োগ (মূলধনী ও পরিচালন) কমেছে ১৯ শতাংশ। এ তিন ব্লকে ২০১৪ সালে শেভরনের মোট মূলধনী ও পরিচালন ব্যয় ছিল ৪১ কোটি ২৯ লাখ ডলার। ২০১৫ সালে তা কমে দাঁড়ায় ৩৩ কোটি ৫৬ লাখ ডলারে। আর ২০১৩ সালে প্রতিষ্ঠানটির বিনিয়োগের পরিমাণ ছিল ৪৮ কোটি ৪৭ লাখ ডলার। এ হিসাবে দুই বছরে বাংলাদেশে শেভরনের বিনিয়োগ কমেছে ২২ কোটি ৮৯ লাখ ডলার।

পেট্রোবাংলা ও বাংলাদেশের একাধিক সংবাদমাধ্যমের তথ্য মতে, গ্যাস উত্তোলনে বাংলাদেশে শেভরনের সবচেয়ে বড় বিনিয়োগ রয়েছে ১২ নং ব্লক বা বিবিয়ানা গ্যাস ফিল্ডে। ২০১৩ সালে এ ব্লকে মূলধনি ও পরিচালন ব্যয়ের মাধ্যমে প্রতিষ্ঠানটির মোট বিনিয়োগ ছিল ৪১ কোটি ৮৭ লাখ ডলার। ২০১৪ সালে সেখানে বিনিয়োগের পরিমাণ কমে দাঁড়ায় ৩৫ কোটি ৯২ লাখ ডলারে। ২০১৫ সালে এ বিনিয়োগ আরো কমে ২৩ কোটি ৩২ লাখ ডলারে নেমে আসে। এ হিসাবে শুধু বিবিয়ানাতেই দুই বছরে শেভরনের বিনিয়োগ কমেছে ৪৪ দশমিক ৩ শতাংশ।

এদিকে বিবিয়ানা গ্যাস ফিল্ডে বিনিয়োগ কমলেও মৌলভীবাজার ও জালালাবাদ গ্যাসক্ষেত্রে মূলধনি ও পরিচালন ব্যয় বেড়েছে শেভরনের। যদিও বাংলাদেশে শেভরনের মোট বিনিয়োগের তুলনায় এ দুই গ্যাসক্ষেত্রে বিনিয়োগের পরিমাণ খুবই কম। ২০১৫ সাল শেষে মৌলভীবাজার গ্যাসক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠানটির মূলধনি ও পরিচালন ব্যয় ছিল ১ কোটি ৪৪ লাখ ডলার। একই সময়ে জালালাবাদ গ্যাসক্ষেত্রে ৮ কোটি ৮০ লাখ ডলার ব্যয় করে শেভরন।

পেট্রোবাংলা সূত্রে জানা গেছে, ২০১৫ সাল পর্যন্ত শেভরনের সবগুলো ব্লকের প্লান্ট ও প্রধান কার্যালয়সহ কর্মী সংখ্যা ছিল প্রায় ১ হাজার। এরা সবাই অস্থায়ী ও চুক্তিভিত্তিক পন্থায় বাংলাদেশ কার্যালয়ের মাধ্যমে শেভরনের হয়ে গ্যাস উত্তোলন কাজে যুক্ত ছিলেন। কিন্তু শেভরন চুক্তিভিত্তিক কর্মীর সঙ্গে চুক্তি নবায়ন না করায় এখন এ ধরনের কর্মী ২০ শতাংশ কমে ৮০০ জনের নিচে দাঁড়িয়েছে।

জানা গেছে, সম্প্রতি কাজাখস্তানে প্রকল্প সম্প্রসারণের পরিকল্পনা হাতে নিয়েছে শেভরন। এ পরিকল্পনা বাস্তবায়নে ব্যয় ধরা হয়েছে ৩৬ দশমিক ৮ বিলিয়ন ডলার। এদিকে আন্তর্জাতিক বাজারে জ্বালানি তেলের দাম পড়ে যাওয়ার প্রভাব পড়েছে প্রতিষ্ঠানটির মুনাফায়।

২০১৬ সালের দ্বিতীয় প্রান্তিকে প্রতিষ্ঠানটির লোকসান দেড় বিলিয়ন ডলার ছাড়িয়েছে। ফলে সম্প্রসারণের কাজ শুরু করতে তারল্য সংকটে পড়েছে প্রতিষ্ঠানটি। এ সংকট নিরসনে বাংলাদেশসহ কিছু দেশের ব্যবসা বিক্রির এই পরিকল্পনা করছে শেভরন।

টি