৬০০ কোটি টাকা আয়ের লক্ষ্যে চট্টগ্রামে আবাসন মেলা শুরু
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » আবাসন

৬০০ কোটি টাকা আয়ের লক্ষ্যে চট্টগ্রামে আবাসন মেলা শুরু

আমাদের ব্যাংকে কত টাকা জমা আছে?’ স্বামী জাফর আলমকে স্ত্রী আরমানার প্রশ্ন। কিছুক্ষণ ভেবে জাফর সাহেব বললেন, ৬০-৭০ লাখ হবে। উত্তর শুনে স্ত্রীর চেহারাতে অন্য এক তৃপ্তির আভা ছড়িয়ে পড়লো। কিছুক্ষণ পর স্ত্রী বলল, তাহলে আমারো কিছু জমানো টাকা আছে। সব মিলিয়ে ৮০-৯০ লাখ টাকায় আমাদের একটা ফ্ল্যাট পাওয়া যায় কিনা দেখে আসি চল রিহ্যাব মেলায়।

জাফর-আরমানা দম্পতির মত এরকম আরো অনেক ধনিক পরিবার নিজের পছন্দ মত আবাসের খোঁজ করতে মেলায় বিভিন্ন স্টলে ঘুরছে। যদি মনের মত, নিজের সাধ্যের মধ্যে একটা আবাসন পাওয়া যায়।

এই সব পরিবারের কথায় মাথায় রেখে চট্টগ্রাম নগরীর ‘হোটেল রেডিসন ব্লু চিটাগং বে ভিউ’- তে আজ থেকে শুরু হচ্ছে ৪ দিনব্যাপী আবাসন মেলা ‘রিহ্যাব চট্টগ্রাম ফেয়ার ২০১৭’। রিয়েল এস্টেট অ্যান্ড হাউজিং অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (রিহ্যাব) উদ্যোগে ‘স্বপ্নীল আবাসন সবুজ দেশ লাল সবুজের বাংলাদেশ’ এ স্লোগান নিয়ে ১০ম বারের মত এ মেলা রেডিসনের মেজবান হলে আয়োজন করা হয়েছে। মেলা চলবে ৮ থেকে ১১ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত। এবার ৬০০ কোটি টাকার ব্যবসার টার্গেট রয়েছে এ খাত সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ীদের।

রিহ্যাবের ভাইস প্রেসিডেন্ট আবদুল কৈয়ূম চৌধুরী জানান, প্রায় ৩ হাজারের অধিক ফ্ল্যাটের অফারসহ ৭২টি প্রতিষ্ঠানের ৯০টি স্টল নিয়ে চট্টগ্রামে এই রিহ্যাব মেলা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এরমধ্যে সাধারণ ক্যাটাগরিতে রয়েছে ২৬ কোম্পানি। মেলায় সিঙ্গেল এন্ট্রি টিকেটের মূল্য রাখা হয়েছে ৫০ টাকা এবং মাল্টিপল এন্ট্রি টিকেটের মূল্য ১০০ টাকা। প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত মেলা চলবে।

তিনি আরও বলেন, ‘রিহ্যাবভুক্ত আবাসন কোম্পানির অনুমোদিত প্রকল্পেগুলোর প্লট, ফ্ল্যাট ও কমার্শিয়াল স্পেস কেবলমাত্র মেলায় প্রদর্শন ও বিক্রয়ের সুযোগ দেওয়া হচ্ছে। এবারের মেলায় ঋণ সুবিধা নিয়ে আর্থিক প্রতিষ্ঠানসহ বেশ কয়েকটি লিংকেজ প্রতিষ্ঠানকে অংশ নেওয়ার সুযোগ দেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে বিল্ডিং নির্মাণকারী ম্যাটিরিয়াল প্রতিষ্ঠান ১০টি ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান রয়েছে ৮টি। মেলায় কো-স্পন্সর হিসেবে অংশ নিয়েছে ২২টি প্রতিষ্ঠান। এর মধ্যে এএনজেড প্রপার্টিজ, ইকুইটি প্রপার্টি একং সানমার প্রপার্টিজ অন্যতম।

আবদুল কৈয়ূম চৌধুরী বলেন, জাতীয় প্রবৃদ্ধিতে প্রায় ১৪ শতাংশ ভূমিকা রাখা আবাসন শিল্প গত ৩-৪ বছরের স্থবিরতা কাটিয়ে ঘুরে দাঁড়াতে শুরু করেছে। সিঙ্গেল ডিজিট সুদে ব্যাংক লোন, এফডিআরের সুদের হার হ্রাস এবং প্রবাসীদের জন্য ব্যাংক লোন প্রদানে সরকারি সিদ্ধান্তের কারণে এ খাতে আশার আলো সৃষ্টি হয়েছে।

সরকার ১ম শ্রেণির কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের জন্য ৫ শতাংশ সুদে ব্যাংক ঋণ দেওয়ার ঘোষণায় খুব শিগগিরই এ খাত আরো গতিশীল হয়ে উঠবে আশা প্রকাশ করেন তিনি।

রিহ্যাবের পক্ষ থেকে অর্থমন্ত্রণালয়সহ সরকারের বিভিন্ন পর্যায়ে ৫ থেকে ৭ শতাংশ সুদে দীর্ঘমেয়াদী ২০ হাজার কোটি টাকার তহবিল, নিবন্ধন ব্যয়, ট্যাক্স ও ভ্যাট হ্রাসের দাবি জানানোর পাশাপাশি ভবন নির্মাণকালীন বিদ্যুতের রেট শিল্প রেটে নির্ধারণ করা এবং এলপি গ্যাস সিলিন্ডার সহজলভ্য না হওয়ার পর্যন্ত নির্মাণাধীন প্রকল্পসমূহে পাইপ লাইনের গ্যাস নিশ্চিত করার প্রয়োজন বলা জানান তিনি।

অর্থসূচক/সুমন/কাঙাল মিঠুন

এই বিভাগের আরো সংবাদ