সঙ্গিনীর উপর অভিমান হলে...
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

সঙ্গিনীর উপর অভিমান হলে…

সম্পর্কের মাঝে রাগ বা অভিমান হওয়াটা অনেক বেশি স্বাভাবিক একটি বিষয়। দেখা যায় সম্পর্ক থাকলে দুজনেই দুজনের উপর কিছু আশা করে থাকেন। এবং তা পূরণ না হওয়ার কারণেই এই রাগ বা অভিমান। কিন্তু যদি সঙ্গীর উপরে অনেক বেশি রাগ বা অভিমান জন্মায় তখন তার প্রতিফল অনেক বড় ধরণের হতে পারে। মানুষ যখন কিছু না পেতে পেতে অসহ্য হয়ে রাগ বা অভিমান করে তখন তা মারাত্মক ঝগড়ার সৃষ্টি করে যার কারণে সম্পর্কে ভাঙন পর্যন্ত আসতে পারে।

কিন্তু তাই বলে কতক্ষণ অভিমান পুষিয়ে রাখা যায়? কাউকে না কাউকে তো অভিমান ভাঙানোর উদ্যোগ নিতেই হবে। ধরুন আপনার ভুলেই ঝগড়াটা হয়েছিল। আপনি বুঝেওছেন সেই ভুল। বার বার সরিও বলেছেন কিন্তু অভিমান ভাঙাতে পারছেন না।

relation1

সম্পর্কে বোঝাবুঝি আছে বলেই ভুল বোঝাবুঝি হয়। নিজেদের জায়গায় নিজেরা পরিষ্কার থাকলেই আর ভুল বোঝাবুঝি হবেনা। মডেল তৌহিদ ও নীরা।

এমনটা হলে নিচের এই টিপসগুলো ফলো করবেন। দেখবেন সঙ্গীর মান ভাঙবেই।

  • সরাসরি কথা বলে রাগ বা অভিমানের কথা বলে ফেলুন। রাগ দুঃখ এবং অভিমান ধরণের আবেগগুলো কারো সাথে শেয়ার করতে পারলে মন অনেক হালকা হয়। আর সঙ্গীর সাথেই যদি বলে নিতে পারেন তাহলে মনের ক্ষোভ অনেকাংশে আপনা আপনিই দূর হয়ে যাবে।
  • কি ব্যাপারে আপনার এই রাগ বা অভিমান তা স্পষ্ট করে বলুন; অযথা একগাদা কারণ টেনে আনবেন না। মূলত আপনার বর্তমানে কি বিষয়ে রাগ উঠেছে বা অভিমান হচ্ছে তা সঙ্গীকে স্পষ্ট ভাষায় বলে দিন। এতে করে নিজের বিষয়টি ভালো করে বুঝাতে পারবেন এবং মন শান্ত হবে।
  • দেখা যায় নিজেদের ভুলের ব্যাপারে একটু উদাসীনই থাকি আমরা। তাই ভুল থাকলে  নিজের ব্যাপারটিও স্বীকার করুন। যদি সঙ্গী উল্টো আপনাকে কোনো কারণে প্রশ্ন করেন তাহলে নিজে আরও ক্ষেপে না গিয়ে আগে বোঝার চেষ্টা করুন সঙ্গীর কোথায় যুক্তি রয়েছে কিনা। যদি যুক্তি থাকে তাহলে অযথা চেঁচামেচি না করে নিজের ব্যাপারটিও স্বীকার করে নিন।
  • যখনকার সমস্যা তখনই মেটাবার চেষ্টা করুন, অভিমান করে বসে থাকলে তা দিনে দিনে বাড়তেই থাকে। যদি রাগ উঠে যায় এবং অভিমান হয় তাহলে সেই ব্যাপারটি তাৎক্ষণিকভাবে মিটিয়ে ফেলার চেষ্টা করুন। এতে করে এই বিষয়টি নিয়ে পরে আবার ঝগড়া হওয়ার সম্ভাবনা কমে যায়।
  • সঙ্গীর উপরে প্রতিশোধ নিতে যাবেন না ভুলেও অনেকে রাগ বা অভিমান করে সঙ্গীর উপরে প্রতিশোধ নেয়ার কথা ভাবতে থাকেন। এই ভুলটি করবেন না। এতে সমস্যা আরও মারাত্মক আকার ধারণ করতে পারে।
  • অ্যালবাম আপনাদের দু’জনের সুন্দর মুহূর্তের ছবি দিয়ে অ্যালবাম তৈরি করুন। সেই অ্যালবাম দেখে সঙ্গীর মুখে হাসি ফুটবেই।
relation3

ফেলে আসা খুনসুঁটি গুলো মনে করতে পারেন। মান অভিমান ভাঙাতে এগুলোও বেশ কাজে দেবে। মডেল তৌহিদ ও নীরা।

ঝগড়া হওয়ার পর থেকে হয়তো আপনি অনেক চেষ্টা করছেন সঙ্গীর মান ভাঙাতে। বার বার সরি বলছেন। কিন্তু তাতে হিতে বিপরীত ফল হচ্ছে? কিছুটা সময় একা ছেড়ে দিন সঙ্গীকে। তাকে তার মতো থাকতে কিছুটা সময় দিন। আপনার অনেক সরিতেও যে কাজ হয়নি, সময় দিলে অনেক সময় সেই সমস্যা সহজেই মিটে যায়।

  • অনেক সময় মুখে যে কথা বলা যায় না বলে কাজ হয় না আলিঙ্গন সেই কাজ সহজেই করে দেয়। ‘ওয়ার্ম হাগ’-এর এটাই ম্যাজিক। ভালবেসে কাছে টেনে নিলে সবাই দুঃখ ভুলে যায়।
  • সঙ্গীকে আপনার রাগ বা অভিমানটি বোঝানোর জন্য অন্য কাউকে ডেকে আনবেন না। নিজের সমস্যা নিজেদের মধ্যেই রাখার চেষ্টা করুন। বরং পরামর্শ চাইতে পারেন কারো কাছে।
  • অন্যায়ের প্রতিবাদ করতে পিছপা হবেন না। যদি সঙ্গীর আসলেই দোষ থাকে এবং আপনি চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দেয়ার পরও তিনি না স্বীকার করেন তাহলে কষ্ট পেয়ে আরও অভিমান করে চুপ হয়ে যাবেন না। সমান তেজে নিজের প্রতি হওয়া অন্যায়ের প্রতিবাদ করুন। এতে পরবর্তীতে সঙ্গী ভুল করতে গেল দুবার ভেবে নেবেন।
  • সম্পর্ক ভাঙার চিন্তা না করে সমস্যা মেটানোর চিন্তা করুন, রাগ বা অভিমান হলে সকলেই প্রথমে সম্পর্ক ভেঙে ফেলার কথাটি ভাবেন। কিন্তু এই বিষয়টি না ভেবে ভাবুন সমস্যা কীভাবে সমাধান করবেন তাহলেই রাগ ও অভিমানের মতো ছোটো ব্যাপার মিটে যাবে খুব সহজেই।
  • কিছুটা ব্যতিক্রমী উপায়ে সঙ্গীর মুখে হাসি ফোটাতে পারেন কবিতা, চিঠি, এসএমএস দিয়ে। আজকাল কেউ তো আর চিঠি লিখে না, তাই নিজের মনের মতো করে একটা চিঠিও লিখে পাঠাতে পারেন সঙ্গিনীর ঠিকানায়। হয়তো ৭/৮দিনের মধ্যে চিঠি পৌঁছুবে। তবুও  সেই আনন্দটাই হতে পারে তীব্র ভালবাসার উৎস। তাছাড়া ফেইসবুক বা এসএমএস এর মাধ্যমেও সরি বলাটা খু্ব সহজতম উপায়।

এতোকিছুর পরও মনে হয় না আপনার সঙ্গী অভিমান করে থাকতে পারবে।

তাবাচ্ছুম/কাঙাল মিঠুন

এই বিভাগের আরো সংবাদ