রিয়াল মাদ্রিদ ৬ : বার্সালোনা ৪
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

রিয়াল মাদ্রিদ ৬ : বার্সালোনা ৪

ইংলিশ লিগে বরুসিয়া ডর্টমুন্ড, বায়ার্ন মিউনিক, ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ও ম্যানচেস্টার সিটির মতো বেশ কয়েকটি ক্লাবের ম্যাচে প্রতিদ্বন্দ্বিতা হয়। শিরোপার লড়াইয়ে একদল অন্য দলকে ছাড় দেওয়ার নয়।

তবে স্প্যানিশ লিগের প্রতিযোগিতা দীর্ঘদিন ধরে রিয়াল মাদ্রিদ ও বার্সালোনার মধ্যে সীমাবদ্ধ। সর্বোচ্চ গোল, সেরা খেলোয়াড়সহ মৌসুমজুড়ে পয়েন্ট তালিকায় শীর্ষে থাকে এ দুই দল। বেশ কয়েক বছর ধরে এর ব্যতিক্রম দেখা যাচ্ছে না। আর বর্ষসেরা ফুটবলারের পুরস্কার ব্যালন ডি’অরের চূড়ান্ত তালিকায়ও বেশ কয়েক বছর ধরে এ দুই ক্লাবের দুই খেলোয়াড়ের নাম থাকছে। তারা হলেন- বার্সালোনার লিওনেল মেসি এবং রিয়াল মাদ্রিদের ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো। এবারও তার ব্যতিক্রম হওয়ার সম্ভাবনা কম।

২০১৬ সালের বিশ্বসেরা ফুটবলারের পুরস্কার ব্যালন ডি’অরের জন্য গতকাল সোমবার প্রাথমিক তালিকা প্রকাশ করেছে ফ্রান্স ফুটবল ম্যাগাজিন। প্রতি ধাপে ৫ জন করে মোট ৬ ধাপে ৩০ জনের ঠাঁই হয়েছে এতে।

Messi4

ব্যালন ডি’অর পুরস্কার জেতার পর উচ্ছ্বসিত মেসি। ফাইল ছবি

প্রাথমিক তালিকায় রিয়াল মাদ্রিদের ৬ জয় এবং বার্সালোনার ৪ জন খেলোয়াড়ের নাম রয়েছে। রিয়াল মাদ্রিদের খেলোয়াড়দের মধ্যে রয়েছেন- ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো,  গ্যারেথ বেল, টনি ক্রুস (অধিনায়ক), লুকা মাদ্রিচ, পেপে এবং সার্জিও রামোস।

অন্যদিকে ২০১৬ ব্যালন ডি’অরের তালিকায় থাকা বার্সালোনার খেলোয়াড়রা হলেন- লিওনেল মেসি, নেইমার, লুইস সুয়ারেস এবং আন্দ্রেস ইনিয়েস্তা।

মৌসুম জুড়ে অসাধারণ সাফল্যের কারণে এবার এ পুরস্কার জেতার লড়াইয়ে বেশ এগিয়ে আছেন রোনালদো। ক্লাবের হয়ে উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগ এবং পর্তুগালের হয়ে প্রথমবারের মতো ইউরো চ্যাম্পিয়নশিপ জিতেছে ৩ বারের বর্ষসেরা এই ফুটবলার।

অন্যদিকে বার্সালোনার হয়ে কোপা দেল রে; লা লিগা এবং আর্জেন্টিনার হয়ে শতবর্ষী কোপা আমেরিকার ফাইনালে খেলায় বিশেষ অবদান রাখায় এবারের ব্যালন ডি’অরের দাবিদার ৫ বারের বর্ষসেরা মেসিও।

ফিফা ব্যালন ডি'অর হাতে রোনালদো। ছবি সংগৃহীত

ফিফা ব্যালন ডি’অর হাতে রোনালদো। ফাইল ছবি

ব্রাজিলের প্রথমবারের মতো অলিম্পিক ফুটবলের স্বর্ণ জয় এবং বার্সালোনার হয়ে কোপা দেল রে ও লা লিগা জয়ে বিশেষ অবদান রয়েছে নেইমারের। গত বছর ব্যালন ডি’অর বর্ষসেরা খেলোয়াড়ের তালিকায় তৃতীয় হয়েছিলেন তিনি। ২০১৫-১৬ মৌসুমে বার্সালোনার সর্বোচ্চ গোলদাতা ছিলেন সুয়ারেস। অর্থাৎ এ সময়ে কোপা দেল রে ও লা লিগা জয়ে অনবদ্য ছিলেন তিনি।

এছাড়া বায়ার্ন মিউনিকের ৪ জন; আতলেটিকো মাদ্রিদ ও জুভেন্তুসের ৩ জন করে; ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড, ম্যানচেস্টার সিটি ও লেস্টার সিটির দুজন করে এবং বরুসিয়া ডর্টমুন্ড, টটেনহ্যাম হটস্পার, ওয়েস্ট হ্যাম ও স্পোর্টিং লিসবনের একজন করে খেলোয়াড় এবারের ব্যালন ডি’অর বর্ষসেরা খেলোয়াড়ের তালিকায় রয়েছেন।

৩০ জনের প্রাথমিক তালিকায় বায়ার্ন মিউনিখের ৪ জন হলেন- রবের্তো লেভানদোভস্কি, টমাস মুলার, ম্যানুয়েল নয়ার ও আর্তুরো ভিদাল। আতলেটিকো মাদ্রিদের ৩ জন হলেন- গ্রিজমান, দিয়েগো গদিন ও কোকে। জুভেন্তুসের ৩ জন হলেন- জানলুইজি বুফফন, পাওলো দিবালা ও গঞ্জালো হিগুয়েইন।

Ronaldo & Messi

ব্যালন ডি’অর পুরস্কার জয়ীর নাম ঘোষণার আগে দর্শক সারিতে এই তালিকার শীর্ষে থাকা দুই ফুটবল তারকা রোনালদো ও মেসি। ফাইল ছবি

এছাড়া ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের পল পগবা ও ইব্রাহিমোভিচ; ম্যানচেস্টার সিটির সার্জিও আগুয়েরো ও কেভিন ডি ব্রুইন এবং লেস্টার সিটির রিয়াদ মাহরেজ ও জেমি ভার্ডির নাম রয়েছে এ তালিকায়। ব্যালন ডি’অরের জন্য মনোনীত অন্য ৪ জন হলেন- বরুসিয়া ডর্টমুন্ডের পিয়েরে-এমেরিক আউবামেয়াং, টটেনহ্যাম হটস্পারের হুগো লরিস, ওয়েস্ট হ্যামের দিমিত্রি পায়েত এবং স্পোর্টিং লিসবনের রুই পাত্রিসিও।

১৯৫৬ সাল থেকে ইউরোপের সেরা খেলোয়াড়কে ব্যালন ডি’অর পুরস্কার দেওয়া হচ্ছে। ১৯৯৪ সাল পর্যন্ত শুধু ইউরোপের খেলোয়াড়দেরই দেওয়া হতো এ পুরস্কার। এরপর বিশ্বের সব খেলোয়াড়ের মধ্যে ইউরোগ সেরা খেলোয়াড়ের জন্য পুরস্কারটি উন্মুক্ত করে দেওয়া হয়। ২০০৭ সাল থেকে শুধু ইউরোপ সেরা নয়; বিশ্বের সেরা ফুটবলারকে দেওয়া হচ্ছে এ পুরস্কার।

২০১০ সালে ফিফার বর্ষসেরা পুরস্কার আর ফ্রান্স ফুটবলের ব্যালন ডি’অর একীভুত হয়েছিল। তবে ফুটবলের নিয়ন্ত্রক সংস্থার সঙ্গে মিলে পুরস্কারটি দেওয়ার চুক্তি শেষ হয়ে যাওয়ায় এ বছর থেকে আবার একাই ব্যালন ডি’অর দেবে ফ্রান্স ফুটবল।

অর্থসূচক/এমই/

এই বিভাগের আরো সংবাদ