বিক্রি বেড়েছে পদ্মা মেঘনা যমুনার
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

বিক্রি বেড়েছে পদ্মা মেঘনা যমুনার

অসাধু রিফাইনারিগুলোর জোচ্চুরির বিরুদ্ধে সরকারের নেওয়া কঠোর ব্যবস্থার সুবাতাস লেগেছে তালিকাভুক্ত তিন কোম্পানি পদ্মা অয়েল, মেঘনা পেট্রোলিয়াম ও যমুনা অয়েলের গায়ে। তিন কোম্পানিরই তেল বিক্রির পরিমাণ বেড়েছে সম্প্রতি। বিক্রি বৃদ্ধি পাওয়ায় কোম্পানি তিনটির আয়ের পরমিাণও বাড়বে। জ্বালানি মন্ত্রণালয় সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

সূত্র জানিয়েছে, বর্তমানে প্রতিদিন প্রায় ৭০০ মেট্রিক টন জ্বালানি তেল বিক্রি করছে বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম করপোরেশন (বিপিসি)। দুই মাস আগেও গড়ে দৈনিক তেল বিক্রির পরিমাণ ছিল ৩৭৩ মেট্রিক টন। তেল বিক্রির পরিমাণ বেড়েছে প্রায় ৮৮ শতাংশ।

বিপিসি জ্বালানি তেল আমদানি করলেও নিজে সরাসরি তা বিক্রি করে না। সংস্থাটির আওতাধীন তিন কোম্পানি পদ্মা অয়েল, মেঘনা পেট্রোলিয়াম ও যমুনা অয়েল লিমিটেড এই তেল বিক্রির দায়িত্ব পালন করে থাকে। আমদানি করা তেল কোম্পানি তিনটির মধ্যে প্রায় সমান ভাগে ভাগ করে দেওয়া হয়। কোম্পানি তিনটি প্রতি লিটার হিসেবে বিক্রিত তেলের উপর কমিশন পেয়ে থাকে।

অন্যদিকে তেল বিক্রির অর্থের একাংশ কোম্পানি তিনটি সঙ্গে সঙ্গে বিপিসিকে বুঝিয়ে না দিয়ে কিছুদিন নিজেদের হেফাজতে রেখে দেয়। এই টাকা ব্যাংকে জমা রাখা হয়। ফলে সেখান থেকে সুদ হিসেবে উল্লেখযোগ্য পরিমাণ অর্থ পাওয়া যায়। তেল বিক্রির পরিমাণ বৃদ্ধি পাওয়ায় কোম্পানি তিনটির হাতে নগদ অর্থের প্রবাহও বেড়েছে। স্বাভাবিকভাবেই ব্যাংকে জমার পরিমাণও বাড়বে।

উল্লেখ, নতুন নতুন শিল্প স্থাপন, যানবাহনের সংখ্যা বৃদ্ধিসহ নানা কারণে দেশে জ্বালানি তেলের চাহিদা বাড়লেও সে অনুপাতে বিপিসির তেল বিক্রির পরিমাণ বাড়ছিল না। বরং এর পরিমাণ গত দুই বছরে কিছুটা কমে যায়। এই রহস্যের কারণ অনুসন্ধান করতে যেয়ে জ্বালানি মন্ত্রণালয় জানতে পারে, স্থানীয় বেশিরভাগ রিফাইনারি সরকারের কাছ থেকে কনডেনসেট নিলেও তা থেকে উৎপাদির তেল বিপিসির কাছে বিক্রি করছে না। শুধু তা-ই নয়, কোম্পানিগুলো কনডেনসেট নামের প্রাকৃতিক গ্যাসের ওই উপজাতকে পরিশোধন না করে সরাসরি অসাধু পেট্রোল পাম্পের কাছে বিক্রি করে দিচ্ছে। এতে একদিকে সরকার তার প্রাপ্য রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হচ্ছে, অন্যদিকে ভেজাল জ্বালানি তেল ব্যবহারের কারণে আয়ু কমে যাচ্ছে মূল্যবান বৈদেশিক মুদ্রা ব্যয় করে আমদানিকৃত বিভিন্ন যানবাহনের। এ অবস্থায় জ্বালানি মন্ত্রণালয় অভিযুক্ত রিফাইনারিগুলোতে কনডেনসেট সরবরাহ করা বন্ধ করে দেয়।

এই বিভাগের আরো সংবাদ