৭ দিনে মিউচ্যুয়াল ফান্ডের বাজারমূলধন বেড়েছে ১০%
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

৭ দিনে মিউচ্যুয়াল ফান্ডের বাজারমূলধন বেড়েছে ১০%

mutual-fund

মিউচুয়াল ফান্ড-প্রতীকী ছবি

পুঁজিবাজারের তালিকাভুক্ত মিউচ্যুয়াল ফান্ডের প্রতি আগ্রহ বাড়ছে বিনিয়োগকারীদের।ঈদের পর ৭ কার্যদিবসে এ খাতের বাজার মূলধন বেড়েছে ১০ দশমিক ৭ শতাংশ। যেখানে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) সামগ্রিক বাজার মূলধন বেড়েছে মাত্র ১ দশমিক ৪১ শতাংশ।

বাজার সংশ্লিষ্টরা বলছেন, দীর্ঘদিন যাবত মিউচ্যুয়াল ফান্ডগুলো প্রকৃত সম্পদ মূল্যের (এনএভি) নিচে লেনদেন হচ্ছে।যদিও অনেক ফান্ড ভালো লভ্যাংশ দিচ্ছে।এছাড়াও বিএসইসি এ খাতটিকে ঢেলে সাজানোর উদ্যোগ নিচ্ছে। এর অংশ হিসেবে বিদ্যমান আইনে আনা হতে পারে কিছু সংশোধনী। এসব উদ্যোগের ফলে আগামীতে মিউচ্যুয়াল ফান্ডে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহীতা আরও বাড়বে বলে মনে করছেন বিনিয়োগকারীরা। অন্যদিকে সামনে অনেকগুলো ফান্ডের মেয়াদ শেষ হচ্ছে। সব মিলিয়ে বিনিয়োগকারীরা এ মিউচ্যুয়াল ফান্ডের দিকে ঝুঁকছেন।

ডিএসই সূত্র মতে, ঈদ পরবর্তী প্রথম কার্যদিবসে মিউচুয়াল ফান্ড খাতে বাজার মূলধন ছিল ২ হাজার ৯৩২ কোটি টাকা। ২৬ সেপ্টেম্বর এটি বেড়ে দাঁড়ায় ৩ হাজার ২৪৫ কোটি টাকা। অন্যদিকে প্রথম কার্যদিবসে ডিএসইর বাজার মূলধন ছিল ৩ লাখ ২৩ হাজার ২৩৮ কোটি টাকা। ২৬ সেপ্টেম্বর এটি দাঁড়িয়েছে ৩ লাখ ২৭ হাজার ৭৯৪ কোটি টাকা।

এ বিষয়ে আইডিএলসি ইনভেস্টেমন্টসের ব্যবস্থপনা পরিচালক মনিরুজ্জামান অর্থসূচককে বলেন, অনেক দিন যাবত মিউচ্যুয়াল ফান্ড তার এনএভির নিচে অবস্থান করছে। ফলে এ খাতের প্রতি বিনিয়োগকারীদের আগ্রহ বাড়ছে।

তিনি আরও বলেন, দীর্ঘ মেয়াদে বিনিয়োগের চিন্তা করে এদিকে ঝুঁকছেন বিনিয়োগকারীরা। অন্যদিকে সর্বশেষ হিসাবে বছরে অনেক ফান্ডের লভ্যাংশের হারও ছিল বেশ ভাল।

প্রায় অভিন্ন কথা বলেন ইউসিবিএল ব্যাংকের প্রধান অর্থ কর্মকর্তা হাবিবুর রহমান চৌধুরী। তিনি অর্থসূচককে বলেন, এখাতের স্বচ্ছতা ও জবাবদিহীতা বাড়াতে উদ্যোগ নিয়েছে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)। ফলে এ খাতের প্রতি আগ্রহ বাড়ছে বিনিয়োগকারীদের।

তিনি বলেন, অন্যদিকে অনেকগুলো ফান্ডের মেয়াদ শেষ হওয়ার পথে। ইউনিটের দাম যেহেতু তাদের সম্পদমূল্যের (এনএভি) চেয়ে কম, তাই এখানে বিনিয়োগ করলে ভালো মুনাফা পাওয়ার সম্ভাবনা আছে।

ফান্ড ম্যানেজার এটি ক্যাপিটালের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক এমরান হাসান অর্থসূচককে বলেন, সর্বশেষ হিসাব বছরে অনেক ফান্ডে ভালো লভ্যাংশ দেওয়া হয়েছে। একই সঙ্গে সম্পদমূল্যের অনেক নিচে লেনদেন হয়ে আসছিল ফান্ডগুলো। অনেক ফান্ড এনএভির তুলানায় কম মূল্য থাকায় বিনিয়োগকারীদের আগ্রহ বাড়ছে।

অর্থসূচক/গিয়াস

এই বিভাগের আরো সংবাদ