‘যুবকের অর্থ লোপাটে সরকারের কিছু করার নেই’
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

‘যুবকের অর্থ লোপাটে সরকারের কিছু করার নেই’

বিতর্কিত প্রতিষ্ঠান যুব কর্মসংস্থান সোসাইটির (যুবক) মাধ্যমে প্রতারণা করে হাতিয়ে নেওয়া অর্থ উদ্ধারে নতুন করে সরকারের কিছু করার নেই বলে মন্তব্য করেছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত।

আজ সচিবালয়ে অর্থমন্ত্রণালয়ে যুবকের অর্থ লোপাট সংক্রান্ত আন্তঃমন্ত্রণালয়ে এক বৈঠক শেষে তিনি একথা বলেন।jubok

বৈঠকে বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ, সিনিয়র বাণিজ্য সচিব হেদায়েতুল্লাহ আল মামুন, বাংলাদেশ ব্য্যাংকের ডেপুটি গভর্ণর এসবে সুর চৌধুরীসহ অর্থমন্ত্রণালয়ের উর্ধ্বতন কর্মকতাগণ উপস্থিত ছিলেন।

অর্থমন্ত্রী বলেন, যুবকের প্রতারণায় ক্ষতিগ্রস্তদের ৫০০ শতাধিক অভিযোগ আছে। এদের একটা লোকও কোর্টে যায়নি। এটা হলো লটারি টেনডেন্সি। হায় হায় কোম্পানিতে ইনভেস্ট আজকে নতুন নয়। বহু বছর ধরেই চলছে। স্যাকা (প্রতারণা) খায় লোকজন, আবার ওই দিকে যায়।

অর্থমন্ত্রী বলেন, যুবকে যারা আহত হয়েছেন, তাদের কোনো ইন্টারেস্ট নেই। একটা কেস (মামলা) নেই, এখানে কি করা যাবে … কিছু করার নেই। তারপরও এখন প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে আলাপ-আলোচনা করে ঠিক করবো কি করা যায়।

যুবকের জব্ধকৃত সম্পতি সংক্রান্ত এক প্রশ্নের জবাবে বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেন, যুবকের সারাদেশে ৯৮ একর জমি আছে ছড়ানো ছিটানো। কোনটা বায়না করা হয়েছে, রেজিষ্ট্রি হয়নি। সবকিছু এলোমেলো।

বিনিয়োগকারীদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, যারা বিনিয়োগ করেছে, তাদের সতর্ক হওয়া উচিত ছিলো, কি কোম্পানি জানা উচিতি ছিল। তারা না জেনে বেশি মুনাফা লাভের আশায় বিনিয়োগ করে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। তাদের জন্য আমরা দুঃখ প্রকাশ করছি। আমরা তাদের অনুভব করি, সাহায্য করতে যাই। কিন্তু যারা এ কাজগুলো করেছে, তাদের কোনো খোঁজ নেই এবং এতোগুলো লোক এখানে বিনিয়োগ করেছে, তারা কোর্টে যেতো, মামলা করতো। কোন কিছু নেই। বিষয়টা অর্থমন্ত্রণালয় থেকে আমাদের মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছিল। আমরা একটা সামারি প্রধানমন্ত্রীর কাছে পাঠিয়েছিলাম। প্রধানমন্ত্রী আমাকে অর্থমন্ত্রীর সঙ্গে আলোচনা করতে বলেছেন, আমরা আজকে আলোচনা করলাম। আবার আমরা প্রধানমন্ত্রীকে অবহিত করবো।

অর্থসূচক/আজম/শাহীন

এই বিভাগের আরো সংবাদ