‘যৌন পেশা ছেড়ে আমি এখন ট্রাফিক পুলিশ’
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

‘যৌন পেশা ছেড়ে আমি এখন ট্রাফিক পুলিশ’

পেটের দায়ে যৌনকর্মীর পেশা বেছে নিয়েছিলাম। মানুষের সম্মান পাইনি কোনো দিন । কিন্তু সরকার আজ আমাকে নতুন করে সম্মান দিয়েছে, উৎসাহ দিয়েছে। আজ বেঁচে থাকাতেও আনন্দ পাচ্ছি- আকাশী রঙের শাড়ির আঁচলে চোখ মুছে কথাগুলো বলছিলেন ববি নামের একজন তৃতীয় লিঙ্গধারী। তিনি ট্রাফিকের সাথে কাজ করতে তালিকাভুক্ত হয়েছেন।

ভারতে হিজড়ারা যোগ দিচ্ছে ট্রাফিক পুলিশে।

ভারতে হিজড়ারা যোগ দিচ্ছে ট্রাফিক পুলিশে।

সম্প্রতি ভারত সরকার হিজড়া বলে পরিচিত এই তৃতীয় লিঙ্গকে সম্মানজনক পেশায় অন্তর্ভুক্ত করার উদ্যোগ নিয়েছে। ইতোমধ্যে তা বাস্তবায়ন হতে চলেছে। আগামী ৯ অক্টোবর থেকে দিল্লির রাস্তায় ট্রাফিক পুলিশের সঙ্গে কাজে নামবে হিজড়ারা।

দিল্লি লিগ্যাল সার্ভিস কর্তৃপক্ষ ও দিল্লী ট্রাফিক পুলিশ সূত্র জানিয়েছে, যৌনবৃত্তি,, ভিক্ষাবৃত্তি ও এরকম পেশায় নিয়োজিত প্রায় ২০ জনের একটি দলকে ট্রাফিক সংকেত ও অন্যান্য নিয়ম কানুনের উপর মোট দুইদিনের প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে। ভারতীয় প্রথাগত ও ঐতিহ্যবাহী পোশাক শাড়ি পড়ে তারা দিল্লির ট্রাফিক পুলিশের সাথে একজোটে কাজ করবে।

ববি জানান, তিনি আগে যৌন কর্মীর কাজ করতেন। যখন তাকে প্রথম এই সুখবরটি জানানো হয় সে খুবই অবাক হয়।

‘যখন আমাকে বলা হয়েছিলো আমি ট্রাফিক নিয়ম কানুন শিখবো এবং ট্রাফিক পুলিশদের সাথে কাজ করবো। আমি খুব চিন্তায় পড়ে গিয়েছিলাম যে আমি কিভাবে করবো? তবে আমি চ্যালেঞ্জটা নিয়েছি। এজন্য আমার আগের পেশাকে ছেড়ে দিয়েছি।’

একজন উর্ধ্বতন কর্মকর্তা জানান, তাদের এই পদক্ষেপ তৃতীয় লিঙ্গধারী এই সব মানুষকে সম্মানের সাথে বাঁচতে সাহায্য করবে।

রিজওয়ান নামের আরেকজন প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত তৃতীয় লিঙ্গধারী বলেন, তাদের দুই দিনের প্রশিক্ষণে কিভাবে জনগণকে ট্রাফিক আইন মানিয়ে নিতে সাহায্য করলে দুর্ঘটনা ও সহিংসতা কমিয়ে আনা যায় সে ব্যাপারে গুরুত্ব দিয়ে শেখানো হয়েছে। সেই সাথে জনগণকে নতুন এই প্রক্রিয়ার সাথে মানানসই করার জন্য ইতোমধ্যে সিট বেল্ট বাঁধার উপর একটি বিজ্ঞাপন তৈরি করে তা গণমাধ্যমে প্রচার করছে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ।

এই বিভাগের আরো সংবাদ