এইচএসসির খাতা পুনর্মূল্যায়নে চট্টগ্রামে জিপিএ-৫ বাড়ল ৩৯
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

এইচএসসির খাতা পুনর্মূল্যায়নে চট্টগ্রামে জিপিএ-৫ বাড়ল ৩৯

চট্টগ্রাম শিক্ষাবোর্ডের উচ্চ মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট (এইচএসসি) পরীক্ষার খাতা পুনর্মূল্যায়নের মাধ্যমে ৩৯ জনের জিপিএ-৫ বেড়েছে। ফলে এইচএসসিতে জিপিএ-৫ পাওয়া পরীক্ষার্থীর সংখ্যা দুই হাজার ২৫৩ জন থেকে বেড়ে দুই হাজার ২৯২ জন হয়েছে। এছাড়া ৩২৯ জন পরীক্ষার্থীর ফলাফল পরিবর্তন হয়েছে এবং ফেল করা পরীক্ষার্থীর মধ্য থেকে পাশের তালিকায় যুক্ত হয়েছে ৮৬ জন।

পুনর্মূল্যায়নের জন্য আবেদন করা ১৫ হাজার ৯২৩ পরীক্ষার্থীর ৫৫ হাজার ৮৭৯টি খাতা পুনঃনিরীক্ষণের পর আজ শনিবার এই ফলাফল প্রকাশ করেছে চট্টগ্রাম শিক্ষাবোর্ড। শিক্ষাবোর্ডের ওয়েবসাইটে ও আবেদনকারীদের মোবাইলে এসএমএসের মাধ্যমে এই ফলাফল সরবরাহ করার কথা। ২০১৬ সালের এইচএসসি পরীক্ষার ফল প্রকাশের পর গত ১৮ আগস্ট থেকে ২৫ আগস্ট রাষ্ট্রীয় মোবাইলফোন অপারেটর টেলিটকের মাধ্যমে পুনঃনিরীক্ষণের আবেদনের সুযোগ পায় পরীক্ষার্থীরা।

HSC_Photo

২০১৬ সালের এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় অংশ নেওয়া পরীক্ষার্থীদের একাংশ।

চট্টগ্রাম শিক্ষাবোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক মাহবুব হাসান বলেন, উত্তরপত্রে কোনো পরীক্ষার্থীর খাতায় বৃত্ত ভরাটে ভুল হয়েছে কি না; কোনো প্রশ্নের উত্তর অমূল্যায়িত থেকেছে কি না; খাতার নম্বর গণনায় ভুল হয়েছে কি না- এসব যাচাই করে দেখা হয়েছে। কোনো প্রশ্নের উত্তরে অমূল্যায়িত থাকলেই শুধু নতুন করে নম্বর দেওয়া হয়েছে।

সাংবাদিকের প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এসব ভুলের জন্য পরীক্ষার্থী, পরীক্ষক ও প্রধান পরীক্ষক দায়ী হতে পারে। ভুল করার ঘটনায় যেসব পরীক্ষক ও প্রধান পরীক্ষকের নাম পাওয়া যাবে- তাদের বিরুদ্ধে প্রতি বছরই শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হয়।

প্রসঙ্গত, গত ১৮ আগস্ট প্রকাশিত ফলাফলে দেখা যায়, চট্টগ্রাম শিক্ষাবোর্ডে ৬৪ দশমিক ৬ শতাংশ শিক্ষার্থী পাশ করেছে এবং ২ হাজার ২৫৩ জন পরীক্ষার্থী জিপিএ-৫ পেয়েছে। ফেল করা পরীক্ষার্থীদের মধ্যে অধিকাংশই আইসিটি বিষয়ে অকৃতকার্য হয়েছে। এই বিষয়ে পুনঃনিরীক্ষণের আবেদনও বেশি জমা পড়ে। এ বিষয়ে পুনঃনিরীক্ষণের জন্য ৫ হাজার ১৪৩টি আবেদন জমা পড়েছিল। এছাড়া বাংলায় ৪ হাজার ৯৯১টি, ইংরেজিতে ৪ হাজার ৩৪৯টি, পদার্থ বিজ্ঞানে ২ হাজার ৯৮১টি, রসায়নে ২ হাজার ৪২৩টি, জীববিজ্ঞানে ২ হাজার ৩৬০টি, হিসাব বিজ্ঞানে ১ হাজার ১৮৬টি এবং গণিতে ১ হাজার ২১২টি আবেদন জমা পড়েছিল।

অর্থসূচক/দেবব্রত/এমই/

এই বিভাগের আরো সংবাদ