'বিনা চিকিৎসায় আর কেউ মারা যাবে না'
সোমবার, ৯ই ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

‘বিনা চিকিৎসায় আর কেউ মারা যাবে না’

বাংলাদেশে আর কেউ না খেয়ে থাকবে না বলে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, এখন থেকে রোগে ভোগে বিনা চিকিৎসায় আর কোনো মানুষ মারা যাবে না।

আজ বুধবার কুড়িগ্রামের চিলমারী থানাহাট এ.ইউ. পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে ইউনিয়ন পর্যায়ে দরিদ্র পরিবারের জন্য ‘খাদ্যবান্ধব কর্মসূচি’র আওতায় ১০ টাকা কেজি দরে চাল বিক্রির উদ্বোধন উপলক্ষে আয়োজিত সমাবেশে এ কথা বলেন তিনি।

শেখ হাসিনা বলেন, একটা মানুষও কষ্টে থাকবে না, একটা মানুষ না খেয়ে থাকবে না, একটা মানুষ গৃহহীন থাকবে না। বন্যায় ভেঙ্গে যাওয়া ঘরবাড়ি তৈরির জন্য জেলা প্রশাসনকে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। মানুষের জন্যই রাজনীতি করি। দেশের মানুষকে শান্তিতে রাখতে পারলেই রাজনীতির স্বার্থকতা।

তিনি বলেন, আমরা দুঃস্থদের সাহায্য দিচ্ছি। কিন্তু দুঃস্থ মানুষ, দুঃস্থ থাকুন সেটা আমরা আর চাই না। সেটা থেকে মুক্ত মিলছে এখন। আমরা বলতে চাই, এ অঞ্চলে আর কোনো দুর্ভিক্ষ হবে না, মঙ্গা হবে না; কেউ না খেয়ে দুঃখে কষ্টে থাকবে না। এ অঞ্চলের মানুষের জন্য স্বাস্থ্যসম্মত শৌচাগার, বিশুদ্ধ পানির ব্যবস্থার জন্য সব ধরনের পদক্ষেপ নিয়েছি।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ছবি সংগৃহীত

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ছবি সংগৃহীত

প্রধানমন্ত্রী বলেন, জঙ্গিবাদ-সন্ত্রাস-মাদক ভয়াবহ আকার নিয়েছিল। আমরা সরকার গঠন করার পরে জঙ্গিবাদ-সন্ত্রাস কঠোরভাবে নিয়ন্ত্রণ করি। পরপর কয়েকটি সন্ত্রাসবাদের ঘটনা ঘটেছিল; সবগুলোই আমরা সমাধান করেছি। ১০ ঘণ্টার মধ্যে অভিযান চালিয়ে বন্দিদের মুক্ত করেছি- পৃথিবীর অন্য কোনো দেশে এমনটি হয় না। সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ বন্ধে বাবা-মাকে তাদের সন্তানের প্রতি আরও আন্তরিক হতে হবে।

শিক্ষকদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, প্রত্যেক শিক্ষার্থীর বিদ্যালয়ে উপস্থিতি নিশ্চিত করতে হবে। এ বিষয়ে শিক্ষকদের নজরদারি বাড়াতে হবে। অনুপস্থিত শিক্ষার্থীদের সমস্যার ব্যাপারে খোঁজ-খবর নিতে হবে।

খাদ্যমন্ত্রী অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলা‌মের সভাপ‌তি‌ত্বে ‘খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির’ উদ্বোধনী অনুষ্ঠা‌নে আরও উপ‌স্থিত ছি‌লেন কৃ‌ষিমন্ত্রী ম‌তিয়া চৌধুরী, সংস্কৃ‌তিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর, স্থানীয় সরকার প্রতিমন্ত্রী ম‌শিউর রহমান রাঙ্গা, সমাজকল্যাণ প্রতিমন্ত্রী নূরুজ্জামান আহমেদ, আওয়ামী লী‌গের সাংগাঠ‌নিক সম্পাদক খা‌লিদ মাহমুদ চৌধুরী এম‌পি, কু‌ড়িগ্রাম-৪ আস‌নের স্থানীয় সংসদ সদস্য রুহুল আমিন এম‌পি, জেলা আওয়ামী লী‌গের সভাপ‌তি আমিনুল ইসলাম মঞ্জু মণ্ডল, সাধারণ সম্পাদক জাফর আলী, চিলমারী উপ‌জেলা প‌রিষদ চেয়ারম্যান ও উপ‌জেলা আওয়ামী লী‌গের সভাপতি শওকত আলী সরকার ‌বীর‌বিক্রম প্রমুখ।

মার্চ, এপ্রিল, সেপ্টেম্বর, অক্টোবর ও নভেম্বর- এই পাঁচ মাস হতদরিদ্র ৫০ লাখ পরিবার ১০ টাকা কেজি দরে ৩০ কেজি করে চাল পাবেন। বিধবা ও প্রতিবন্ধী নারীদের এ ক্ষেত্রে প্রাধান্য দেওয়া হবে। এ জন্য উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নেতৃত্বে গঠিত একটি কমিটি হতদরিদ্র পরিবারের সংখ্যা ঠিক করে তাদের কার্ড দেবে। কমিটিতে জনপ্রতিনিধিরাও আছেন।

অর্থসূচক/এমই/

এই বিভাগের আরো সংবাদ