৭ সেপ্টেম্বর থেকে ১০ টাকায় চাল পাবে ৫০ লাখ পরিবার
রবিবার, ৭ই ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

৭ সেপ্টেম্বর থেকে ১০ টাকায় চাল পাবে ৫০ লাখ পরিবার

নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি মোতাবেক ১০ টাকা কেজিতে চাল বিক্রির সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন করতে যাচ্ছে সরকার। পল্লী রেশন ডিলারদের মাধমে নির্ধারিত কার্ডধারীদের মাঝে উল্লেখিত মূল্যে মাসে ৩০ কেজি চাল বিক্রি করা হবে। সারাদেশে ৫০ লাখ হতদরিদ্র পরিবারের মধ্যে ৫ মাস এই কর্মসূচির বাস্তবায়ন হবে।

poor-peopleইউনিয়ন পর্যায়ে বাস্তবায়নের জন্য গৃহীত ‘হতদরিদ্রদের জন্য খাদ্যবান্ধব কর্মসূচি’ আগামী ৭ সেপ্টেম্বর উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। কুড়িগ্রামের চিলমারী উপজেলা সদরে এ কর্মসূচির উদ্বোধনীর পর চিলমারী পাইলট উচ্চি বিদ্যালয় মাঠে তিনি এক সুধি সমাবেশ ও জনসভায় ভাষণ দেবেন প্রধানমন্ত্রী।

কুড়িগ্রামের জেলা প্রশাসক খান মো. নুরুল আমিন জানান, সারাদেশের ৫০ লাখ হত দরিদ্র পরিবারকে নির্বাচন করে কার্ড বিতরণের কাজ চলছে। স্থানীয় জনপ্রতিধিদের মাধ্যমে হত দরিদ্রদের নির্বাচন করা হয়েছে। ধান লাগানো ও ধান কাটার মধ্যবর্তী সময়ে যখন দিনমজুরদের কোনো কাজ থাকে না, তখনই এই কর্মসূচির সুফল পাবেন হতদরিদ্র পরিবারগুলো। চলতি বছরের সেপ্টেম্বর, অক্টোবর ও নভেম্বর এবং আগামী বছরের মার্চ ও এপ্রিল মাসে নির্ধারিত ডিলারদের কাছ থেকে ১০ টাকা কেজি দরে মাসে সর্ব্বোচ্চ ৩০ কেজি চাল কিনতে পারবেন কার্ডধারীরা।

জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রণ অফিস সূত্রে জানা গেছে, কুড়িগ্রাম জেলায় মোট ১ লাখ ২৫ হাজার ২৭৯টি পরিবার খাদ্যবান্ধব কার্ডের মাধ্যমে এই কর্মসূচির সুফল পাবেন। ইতোমধ্যে চিলমারী উপজেলার ৮ হাজার ২১ জন দরিদ্র পরিবারকে এই কার্ড দেওয়া হয়েছে। এছাড়া সদরে ১৭ হাজার ৭২২টি, নাগেশ্বরীতে ২৪ হাজার ২০টি, ভুরুঙ্গামারীতে ১৩ হাজার ৯৮৫টি, ফুলবাড়ীতে ৯ হাজার ২৯৮টি, রাজারহাটে ১০ হাজার ৬০২টি, উলিপুরে ২৪ হাজার ২০৮টি, রৌমারীতে ১২ হাজার ৬৮৫টি ও রাজীবপুর উপজেলায় ৪ হাজার ৭৩৮টি কার্ড বিতরণ প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। চাল বিক্রির জন্য জেলায় ২৪৭ জন সম্ভাব্য ডিলারের মধ্যে ১২৬ জনকে ইতোমধ্যে নিযুক্ত করা হয়েছে।

কুড়িগ্রাম জেলা পরিষদের প্রশাসক মো. জাফর আলী বলেন, কুড়িগ্রামবাসীকে ভালবেসে এ অঞ্চল থেকে যুগান্তকারী খাদ্যবান্ধব কর্মসূচি উদ্বোধন করতে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এর আগে বিশ্ববিদ্যালয় ও অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠাসহ এ অঞ্চলের মানুষের অনেক দাবি পূরণ করেছেন তিনি। দারিদ্র বিমোচন কর্মসূচির মধ্য দিয়ে কুড়িগ্রামের মানুষের আরেকটি দাবি পূরণ করতে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী।

অর্থসূচক/এমই/

এই বিভাগের আরো সংবাদ