খুলনা মেডিকেলে ছাত্রলীগ নেতা বহিষ্কার, রাজনীতি নিষিদ্ধ
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

খুলনা মেডিকেলে ছাত্রলীগ নেতা বহিষ্কার, রাজনীতি নিষিদ্ধ

ছাত্রলীগ খুলনা মেডিকেল কলেজ (খুমেক) শাখার ৪ নেতাকে বহিষ্কার করা হয়েছে। একইসঙ্গে ক্যাম্পাসে সকল রাজনৈতিক দলের রাজনীতিও নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। রোববার খুমেকের একাডেমিক কাউন্সিলের বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। কলেজের অধ্যক্ষ এ সিদ্ধান্তের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

অপরদিকে, খুলনা মেডিকেল কলেজে (খুমেক) ছাত্রলীগের দু’ গ্রুপের মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের ঘটনায় ৬টি মামলা দায়ের করা হয়েছে। দু’ পক্ষ থেকেই শনিবার রাতের বিভিন্ন সময় মামলাগুলো দায়ের করা হয়। তবে পুলিশ কাউকে আটক করতে পারেনি। এদিকে, ঘটনার পর থেকে ক্যাম্পাসে থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে।

খুলনা মেডিকেল কলেজ

খুলনা মেডিকেল কলেজ

উদ্ভুত পরিস্থিতিকে কেন্দ্র করে রোববার খুলনা মেডিকেল কলেজ একাডেমিক কাউন্সিলের বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

বৈঠকে ছাত্রলীগ খুমেক শাখার বিলুপ্ত কমিটির সভাপতি সাইফুল্লাহ মানসুর, অনিন্দ্য সুন্দর, সাফিউল ইসলাম ও রাসেল নামে চারজনকে বহিষ্কার করা হয়। একইসঙ্গে ক্যাম্পাসে সকল রাজনৈতিক দলের রাজনীতিও নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়।

কলেজ অধ্যক্ষ প্রফেসর মো. আব্দুল্লাহ আল মাহবুব বলেন, ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে কলেজের ছাত্র সাইফুল্লাহ মানসুর, অনিন্দ্য সুন্দর, সাফিউল ইসলাম ও রাসেলকে  বহিষ্কারর এবং কলেজ ক্যাম্পাসে সকল রাজনৈতিক দলের রাজনীতি নিষিদ্ধ করা হয়েছে। ৩ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটিকে আগামী ১৫ দিনের মধ্যে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

এর আগে শনিবার খুলনা মেডিকেল কলেজে ছাত্রলীগের বিলুপ্ত কমিটির সভাপতি সাইফুল্লাহ মানসুর গ্রুপের কর্মীদের সাথে প্রতিপক্ষ সাধারণ সম্পাদক সাইদুর রহমান টিটো গ্রুপের কর্মীদের ব্যাপক সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে রামদা, বিভিন্ন ধারালো অস্ত্র ও লাঠি সোটার আঘাতে  ছাত্রলীগের নেতা-কর্মী ও সাধারণ শিক্ষার্থীসহ ৩০ জন আহত হয়। যাদের মধ্যে ৬ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

রোববার সরেজমিনে দেখা গেছে, ক্যাম্পাসে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। ক্লাস খোলা থাকলেও শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি নেই। শিক্ষক ও প্রশাসনীক অনেক ভবনে তালা দেওয়া রয়েছে। আতংকে রয়েছেন সাধারণ শিক্ষার্থীরা।

সোনাডাঙ্গা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা  (ওসি) সুকুমার বিশ্বাস বলেন, ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষের ঘটনায় শনিবার রাতে ৬টি মামলা দায়ের করা হয়েছে। বর্তমানে ক্যাম্পাসে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।

এদিকে দুপুর ২টায় খুলনা প্রেস ক্লাবে উদ্ভুদ পরিস্থিতি নিয়ে সংবাদ সম্মেলন করেছে মহানগর ছাত্রলীগ।

এ সময় তারা দাবি করেন, খুমেকে বহিরাগত সন্ত্রাসীদের অতর্কিত আক্রমণে কলেজ ছাত্রলীগের প্রায় ২৫-৩০ জন কর্মী ও ছাত্র-ছাত্রী গুরুতর আহত হয়েছেন।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন মহানগর ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক আসাদুজ্জামান রাসেল।

রাসেল জানান, সংঘর্ষের ঘটনায় ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে ৫সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

এই বিভাগের আরো সংবাদ