দক্ষিণ খানে আবাসন প্রকল্প: আশিয়ান সিটির রিভিউ আবেদন গ্রহণ
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

দক্ষিণ খানে আবাসন প্রকল্প: আশিয়ান সিটির রিভিউ আবেদন গ্রহণ

ঢাকার দক্ষিণ খান মৌজায় আবাসন প্রকল্পের কার্যক্রম অবৈধ ঘোষণা করে দেওয়া রায় বাতিল করে আবাসন নির্মাতা প্রতিষ্ঠান আশিয়ান সিটির রিভিউ আবেদন গ্রহণ করেছে হাইকোর্ট।

আশিয়ান সিটির রিভিউ আবেদনের শুনানি শেষে বিচারপতি সৈয়দ এ.বি. মাহমুদুল হক, বিচারপতি নাইমা হায়দার ও বিচারপতি কাজী রেজা-উল হকের বৃহত্তর বেঞ্চে আজ মঙ্গলবার এই রায় দেয়।

শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের বিপরীতে হজ ক্যাম্পসংলগ্ন দক্ষিণ খান থানার আশকোনা ও কাওলা এলাকায় আশিয়ান সিটি প্রকল্পের বাস্তবায়ন করছিল আশিয়ান ল্যান্ডস ডেভেলপমেন্ট লিমিটেড। ওই প্রকল্পের কার্যক্রম বন্ধের দাবিতে ২০১২ সালের ২২ ডিসেম্বর একটি রিট আবেদন নিয়ে হাইকোর্টে আসে আইন ও সালিশ কেন্দ্র, অ্যাসোসিয়েশন ফর ল্যান্ড রিফর্ম অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট, বাংলাদেশ পরিবেশ আইনবিদ সমিতি, ব্লাস্ট, বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন, ইনস্টিটিউট অব আর্কিটেক্ট বাংলাদেশ, নিজেরা করি, পরিবেশ বাঁচাও আন্দোলন।

হাই কোর্ট। ছবি সংগৃহীত

হাই কোর্ট। ছবি সংগৃহীত

তাদের অভিযোগ ছিল, ১৯৭২ সালের ল্যান্ড হোল্ডিং লিমিটেশন অর্ডার অনুসারে বাংলাদেশের কেউ ৩৩ একর বা ১০০ বিঘার বেশি জমি রাখতে পারেন না। কিন্তু আশিয়ান সিটি প্রকল্পের কাগজপত্র অনুসারে তারা ৪৩ দশমিক ১১ একর ভূমিতে আবাসন প্রকল্পের অনুমোদন পেয়েছে। ওই প্রকল্প এলাকা প্লাবন ভূমি ও নিচু জমি হওয়ায় এবং সেখানে খাল থাকায় জলাধার আইন অনুসারে ওই জমিতে আবাসন প্রকল্প করা যায় না।

ওই রিটের পরিপ্রেক্ষিতে ২০১৫ সালের ২ জানুয়ারি রুল জারি করে হাইকোর্ট। রুলের ওপর চূড়ান্ত শুনানি শেষে চলতি বছরের ১৬ জানুয়ারি আশিয়ান সিটির ওই প্রকল্পের কার্যক্রম অবৈধ ঘোষণা কর হয়।

বিচারপতি সৈয়দ এ.বি. মাহমুদুল হক, বিচারপতি কাজী রেজা-উল হক ও বিচারপতি এ.বি.এম. আলতাফ হোসেনের বৃহত্তর বেঞ্চে সংখ্যাগরিষ্ঠের মতের ভিত্তিতে ওই রায়ের ফলে আশিয়ান সিটির প্রকল্প এবং প্লট-ফ্ল্যাট ক্রয়-বিক্রয়সহ সব কর্মকাণ্ডই অবৈধ হয়ে যায়।

আশিয়ান সিটি কর্তৃপক্ষ ওই রায় পুর্নবিবেচনার আবেদন করলে প্রধান বিচারপতি তিন বিচারকের নতুন বেঞ্চ ঠিক করে দেন। সেই বেঞ্চে গত ৮ মে থেকে শুনানি শেষেই রিভিউ গ্রহণের রায় দেওয়া হয়।

রিভিউ শুনানিতে আশিয়ান সিটির পক্ষে ছিলেন ব্যারিস্টার রোকন উদ্দিন মাহমুদ ও ব্যারিস্টার মোস্তাফিজুর রহমান খান। রিট আবেদনকারীপক্ষে শুনানি করেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী ফিদা এম. কামাল ও মিনহাজুল হক চৌধুরী। রাষ্ট্রপক্ষে শুনানিতে অংশ নেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম ও অতিরিক্ত অ্যাটর্নি জেনারেল মুরাদ রেজা।

এলাকাবাসীকে ভয় দেখিয়ে অবৈধভাবে ভূমি দখলের অভিযোগে ২০১১ সালের ১৬ নভেম্বর আশিয়ান সিটিকে ৫০ লাখ টাকা জরিমানা করে পরিবেশ অধিদপ্তর। অবশ্য পরে পরিবেশ মন্ত্রণালয় ওই জরিমানার পরিমাণ কমিয়ে ৫ লাখ টাকা নির্ধারণ করে।

অথসূচক/এমই/

এই বিভাগের আরো সংবাদ