সিটি কর্পোরেশন ও পৌর এলাকায় কোরবানি হবে ৬২৩৩ স্থানে
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

সিটি কর্পোরেশন ও পৌর এলাকায় কোরবানি হবে ৬২৩৩ স্থানে

আসন্ন কোরবানি ঈদে ঢাকাসহ দেশের সব সিটি কর্পোরেশন এবং পৌর এলাকাগুলোতে স্থান নির্ধারণ করে দিয়েছে সরকার। আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে পশু কোরবানির বিষয়ে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের আয়োজিত বৈঠক শেষ এ তথ্য জানান স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায়মন্ত্রী খন্দকার মোশাররফ হোসেন।

তিনি জানান, দেশের সিটি কর্পোরেশন ও পৌর এলাকাগুলোতে এবারের কোরবানি ঈদের পশু কোরবানির জন্য ৬ হাজার ২৩৩টি স্থান নির্ধারণ করা হয়েছে।

Kurbani

রাজধানীতে একটি বাড়ির সামনে রাস্তায় দেওয়া হচ্ছে ঈদুল আযহার পশু কোরবানি। ফাইল ছবি

মন্ত্রী বলেন, দেশের মানুষের আর্থিক সক্ষমতা বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে পশু কোরবানির হারও বাড়ছে। আসন্ন কোরবানির ঈদ উপলক্ষে সারা দেশে ৩৫ থেকে ৪০ লাখ পশু কোরবানি হতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে। পৌর ও সিটি কর্পোরেশন এলাকার বাসিন্দারা অবশ্যই সরকার নির্ধারিত স্থানে পশু কোরবানি দিতে হবে।

তিনি বলেন, পশু কোরবানির পর এর বর্জ্য যেন স্বাস্থ্য ও পরিবেশের কোনো ধরনের হুমকি হতে না পারে- সেই জন্য সিটি কর্পোরেশন ও পৌর এলাকায় পশু কোরবানির জন্য স্থান নির্ধারণ করে দেওয়া হয়েছে। পশু কোরবানির পর এর বর্জ্য দ্রুত সরিয়ে ফেলার ব্যবস্থা করতে স্থানীয় মেয়র, কমিশনার ও সংশ্লিষ্টদের প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, সিটি কর্পোরেশন ও পৌর এলাকার যে সব বাসিন্দা নিজ বাড়িতে কোরবানি করবেন, তাদের নিজ উদ্যোগে বর্জ্য অপসারণের ব্যবস্থা করতে হবে। কোরবানি পশুর বর্জ্য যেন স্বাস্থ্য ও পরিবেশের জন্য হুমকি হতে না পারে- সেদিকে সবারই লক্ষ্য রাখা উচিৎ।

বৈঠকে ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ও বিভিন্ন পৌরসভার মেয়রসহ সরকারের বিভিন্ন দপ্তরের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। বৈঠকের পর কোরবানির পর ৪৮ থেকে ৭২ ঘণ্টার মধ্যে বর্জ্য অপসারণে সাংবাদিকদের প্রতিশ্রুতি দেন ঢাকার দুই মেয়র আনিসুল হক ও সাঈদ খোকন।

অর্থসূচক/এন/এমই/

এই বিভাগের আরো সংবাদ