‘দুর্নীতি একটা দানবিক পরিচয়’
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » জাতীয়

‘দুর্নীতি একটা দানবিক পরিচয়’

‘দুর্নীতি কোন মানবিক প্রত্যয় নয়; এটি একটি দানবিক পরিচয়। দুর্নীতি মানুষকে সমাজ থেকে দূরে সরিয়ে রাখে। দুর্নীতি প্রতিরোধে তরুণদেরই এগিয়ে আসতে হবে।’

আজ বুধবার সকালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র শিক্ষক কেন্দ্রে (টিএসসি) দুদিন ব্যাপী জাতীয় স্কুল বিতর্ক প্রতিযোগিতার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য ড. আখতারুজ্জামান। ‘অন্তর্জাতিক যুব দিবস ২০১৬’ উপলক্ষে ঢাকা ইউনিভার্সিটি ডিবেটিং সোসাইটি (ডিইউডিএস) এবং ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনালের (টিআই) যৌথ উদ্যোগে এই বিতর্ক প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়।

উপ-উপাচার্য বলেন, এখনকার তরুণরাই জাতির ভবিষ্যৎ নির্ধারণ করবে। তাই ভবিষ্যতকে উন্নত করতে তরুণদেরকেই এগিয়ে আসতে হবে। একইসঙ্গে দুর্নীতির বিরুদ্ধে নিজেদেরকে সচেতন হতে হবে।DUDS

তিনি বলেন, ভবিষ্যতের বিভিন্ন দিক-নির্দেশনা এই তরুণদের বিতর্কের মাধ্যমেই উঠে আসবে। তাই তরুণদেরকে সচেতন করতে দুর্নীত বিরোধী  বিভিন্ন অনুষ্ঠান এবং বেশি বেশি বিতর্ক প্রতিযোগিতার আয়োজন করা প্রয়োজন। এর মাধ্যমে নিজেরা আরও সমৃদ্ধি অর্জন করবে।

ডিইউডিএসের প্রধান মডারেটর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক সৈয়দ মঞ্জুরুল ইসলাম বলেন, দুর্নীতি থেকে মুক্তি পেতে ১৯৭১ সালের মতো তরুণদেরই জেগে উঠতে হবে। প্রথমত আমাদেরই দুর্নীতিমুক্ত থাকা উচিত। এর জন্য বেশি বেশি ভালো বই পড়তে হবে। দ্বিতীয়ত সচেতন হতে হবে। এর জন্য প্রকৃতি থেকে আমাদের শিখতে হবে। তৃতীয়ত দুর্নীতির বিরুদ্ধে রোল মডেল হতে হবে এবং সর্বশেষ দুর্নীতির বিরুদ্ধে সদা সক্রিয় থাকতে হবে।

তরুণ প্রজন্মের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, ভবিষ্যতে বড় বড় কাজ করতে হবে তোমাদের। প্রবীণদের মধ্যে অনেক দুর্নীতি বসত করছে। সেটা উচ্ছেদের দায়িত্ব তোমাদেরকেই নিতে হবে। কথা, কাজ এবং নেতৃত্ব দিয়ে দেশকে এগিয়ে নেবে তরুণরাই।

বিতর্ক প্রতিযোগিতা উদ্বোধনের আগে টিএসসির সামনে দুর্নীতি বিরোধী একটি মানববন্ধনের আয়োজন করা হয়। ‘দুর্জয় তারুণ্য-দুর্নীতির বিরুদ্ধে একসাথে’ স্লোগনে ওই মানববন্ধনে টিআইবির নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান এবং বিতর্কে অংশ নেওয়া শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন ।

ড. ইফতেখারুজ্জামান বলেন, দুর্নীতি নিয়ন্ত্রণের মূল দায়িত্ব সরকারের হলেও এর বিরুদ্ধে সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে। মূলত দুর্নীতিমুক্ত টেকসই উন্নয়নের লক্ষ্যে অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড ও নেতৃত্ব স্থানে তরুণদের অংশগ্রহণ গুরুত্বপূর্ণ।

তিনি আরও বলেন, আগামীর নেতৃত্ব তরুণদের হাতেই। তাই তাদের মধ্যে নেতৃত্বের গুণাবলী বিকাশের উপযুক্ত পরিবেশ তৈরি করা আমাদের দায়িত্ব। তারাই হবে এদেশে সুশাসন প্রতিষ্ঠা ও দুর্নীতি প্রতিরোধে অদম্য সৈনিক।

অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন ডিইউডিএসের মডারেটোর মাহবুবা নাসরিন, টিআইবির গবেষক ড. রেজাউল করিম প্রমুখ। জাতীয় স্কুল বিতর্ক প্রতিযোগিতায় এবার দেশের ৬টি জেলা থেকে বাছাইকৃত ৩৩টি বিদ্যালয়ের ১৫০ জন শিক্ষার্থী অংশ নিচ্ছেন।

অর্থসূচক/মুন্নাফ/এমই/

এই বিভাগের আরো সংবাদ